একটি ফ্রিজ ব্যবহারে বিদ্যুৎ বিল কত আসবে?

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম। আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। সম্মানিত ভিজিটর বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেলে আপনাদের সকলকে স্বাগতম। আশা করছি সকলে ভালো আছেন। বরাবরের মতো আমি আজকেও নতুন একটি আর্টিকেল আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি।

যারা ঘরের নতুন ফ্রিজ কিনেছেন অথবা আপনার ঘরের ফ্রিজটি ব্যবহারে আপনার বিদ্যুৎ বিল মাসে বেশি আসছে কিনা এই সম্পর্কে যাদের জানা প্রয়োজন তাদের জন্য আমাদের আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে ঘরে একটি ফ্রিজ থাকলে আপনার বিদ্যুৎ বিল কত আসবে এই বিষয়টি নিয়ে।আমাদের আজকের আর্টিকেলটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ে আলোচিত।সুতরাং আশা করছি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে আর্টিকেলটি পড়বেন এবং আমাদের সাথে থাকবেন।ফ্রিজ ব্যবহারে বিদ্যুৎ বিল কত আসবে

৩০০ ওয়াট একটি ফ্রিজের বিদ্যুৎ খরচ

যে কোন ফ্রিজে সাধারণত 24 ঘন্টার মধ্যে ৬ ঘন্টা কম্প্রেসার চালু থাকে আর বাকি 18 ঘণ্টায় কম্প্রেসার বন্ধ থাকে। যদিও আপনার ব্যবহারের উপর নির্ভর করে এই সময়ের কিছুটা তারতম্য হতে পারে।

যদি একটি ফ্রিজের কম্প্রেসার ছয় ঘন্টা চালু থাকে তাহলে ৩০ দিনে ১৮০ ঘন্টা ফ্রিজটি চালু থাকে। এই হিসাবে ওই ফ্রিজের এক মাসের মোট বিদ্যুৎ খরচ হবে:

ফ্রিজের পাওয়ার কত রাখবেন? 

W=৩০০×১৮০ ওয়াট-ঘন্টা=৫৪০০০ ওয়াট-ঘন্টা=৫৪‌ ইউনিট

আমরা যদি বাংলাদেশের বিদ্যুৎ বিলের বিভিন্ন স্টেপ হিসাব করি তাহলে বিদ্যুৎ বিলের সর্বোচ্চ হার হচ্ছে ১১ টাকা এবং সর্বনিম্ন হার হচ্ছে ৪.১৯ টাকা।

সুতরাং ওই ফ্রিজের সর্বোচ্চ মাসিক বিল হবে ৫৪×১১=৫৯৪ টাকা এবং ওই ফ্রিজের সর্বনিম্ন মাসিক বিল হতে পারে ৫৪×৪.১৯=২২৭ টাকা

একটি ফ্রিজ কত ওয়াটের হয়?

একটি ফ্রিজ কত ওয়াটার হয় তা মূলত বিভিন্ন সাইজের ওপর নির্ভর করে। ফ্রিজের সাইজের উপর তার কম্প্রেসার হয় আর বিভিন্ন কম্প্রেসারের ওয়ার্ড বিভিন্ন রকম।

বিদ্যুৎ খরচের ওপর নির্ভর করে বর্তমানের ফ্রিজ গুলোকে স্টার রেটিং দেওয়া হয়ে থাকে। যেমন: ৩ স্টার, ৪ স্টার, ৫ স্টার। এই স্টার রেটিং গুলোর মধ্য সবচেয়ে বেশি বিদ্যুৎ খরচ হয় ৩ স্টার ফ্রিজে আর সবচেয়ে কম বিদ্যুৎ খরচ হয় ৫ স্টার ফ্রিজে।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

একটি ৫ স্টার রেটিং যুক্ত ফ্রিজ সাধারণত ২৩০ ওয়ার্ড থেকে ২৫০ ওয়াট পর্যন্ত হতে পারে।

তবে বর্তমানে প্রযুক্তির সাথে সাথে ফ্রিজ ও স্মার্ট হয়ে যাচ্ছে। একদিনে ফ্রিজের ভেতরের ও বাইরের তাপমাত্রা উপর ভিত্তি করে বিদ্যুৎ খরচ কম বেশি হয়। যার কারণে শীতে ফ্রিজের খরচ কম আর গরমে ফ্রিজের খরচ বেশি হতে পারে। একটা কথা মাথায় রাখতে হবে মার্কেটিং এর জন্য ফ্রিজ কোম্পানির গুলো ফ্রিজের উপর সম্ভাব্য বিদ্যুৎ খরচ লিখে রাখে। ফ্রিজ কিনতে গেলে লিখিত সংখ্যার উপর প্রায় ১০ থেকে ২০ শতাংশ বেশি বিদ্যুৎ খরচ হবে।

বিদ্যুৎ সাশ্রয় ফ্রিজ উৎপাদন করছে ওয়ালটন

বাংলাদেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের ফলশ্রুতিতে শিল্প কারখানা বিকাশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বিদ্যুতের চাহিদা। বিদ্যুৎ উৎপাদন ও বিদ্যুৎ সরবরাহের পরিমাণ বাড়লেও চাহিদার এখনো ঘাটতি দেখা যায়।

বিদ্যুতের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে এবং খরচ কমাতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় ইলেকট্রনিক্স পণ্য ব্যবহার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যার কারণে এই বিষয়টি ওয়ালটন বিবেচনায় এনে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির ফ্রিজ উৎপাদন ও বাজারজাত করছে এবং একই সাথে পরিবেশ সুরক্ষার ফ্রিজের কম্প্রেসারে ব্যবহার করছে R600a।ধারণা করা হচ্ছে ইনভার্টার প্রযুক্তির ফ্রিজ ব্যবহার করলে বছরে গ্রাহকের সাশ্রয় হবে প্রায় ৩৬০ কোটি টাকা। এরি সাথে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও চাহিদার মত বিরাজমান ঘাটতি ও হ্রাস পাবে।

ফ্রিজ বা রেফ্রিজারেটরের বিদ্যুৎ বিল হ্রাস করার উপায়

আপনার ঘরে থাকা ফ্রিজ বাড়ি রেফ্রিজারেটরে বিদ্যুৎ বিল কমাতে করতে হলে যে কাজগুলো করতে পারেন তাহলো:

১) ফ্রিজ অংশে বরফ জমতে না দেওয়াই ভালো। কারণ বরফ টাক্কু পরিবাহী হওয়ায় এটি প্রচুর পরিমাণে শক্তি অপচয় করে। যদি আপনার ফ্রিজে মোটামুটি আধা সেন্টিমিটারের বেশি বরফ জমে তাহলে তা তুলে ফেলা উচিত।

২) ফ্রিজের থার্মোস্ট্যাট ব্যবহার করা জানতে হবে।অনেক সময় দেখা যায় তাড়াতাড়ি ঠান্ডা করার জন্য নব ঘুরিয়ে রাখা হয়। প্রয়োজনীয় তাপমাত্রা অনুযায়ী ঘুরিয়ে যথাযথ স্থানে রাখা উচিত। এতে ফ্রিজের ভেতরে তাপমাত্রা ঠিক থাকে ও বিদ্যুৎ খরচ কম হয়।

৩) সব সময় মনে রাখতে হবে ভর্তি ফ্রিজের তুলনায় খালি ফ্রিজ বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করে।

৪) ফ্রিজ থেকে কোন কিছু বের করার সময় ফ্রিজের দরজার যত কম সম্ভব খোলা যায় ততই ভালো।

সচরাচর জিজ্ঞাসা

রেফ্রেজারেটর কি?

রেফ্রিজারেটর হচ্ছে কৃত্রিমভাবে খাদ্য পানি ও ঠান্ডা করে সংরক্ষণ করার একটি জনপ্রিয় গৃহস্থালী যন্ত্র।

রেফ্রিজারেটর কত ওয়াটের?

ঘরবাড়ির রেফ্রিজারেটর ৩৫০ থেকে ৭৮০ ওয়াট ব্যবহার করে। রেফ্রিজারেটরের পাওয়ার ব্যবহারের বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে এর ওয়াট। যেমন আপনি কি ধরনের ফ্রিজের ব্যবহার করছেন তার আকার বয়স রান্নাঘরের পরিবেশের তাপমাত্রা রেফ্রিজারেটরের ধরন এবং আপনি এটি কোথায় রাখবেন এই বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ফ্রিজের বৈদ্যুতিক ওয়াট নির্ভর করে।

ফ্রিজ কোন মুখ করে রাখা উচিত?

ফ্রিজের সঠিক দিক বাস্তুশাস্ত্র অনুসারে ফ্রিজ উত্তর-পূর্ব দিকে রাখা উচিত নয়। সেই সঙ্গে বাড়ির দেওয়াল এবং কোন থেকে কমপক্ষে এক ফুট দূরে রাখতে হবে ফ্রিজ। এছাড়া ফ্রিজ পশ্চিম দিকে রাখা যেতে পারে।

উপসংহার

উপসংহারে বলতে পারি যে আমরা আজকে যেই উদ্দেশ্য নিয়ে আর্টিকেলটি লিখেছি অর্থাৎ একটি ফ্রিজের বিদ্যুৎ বিল কত আসতে পারে এই সম্পর্কে জানানোই ছিল আমাদের আর্টিকেলের মূল উদ্দেশ্য। আশা করছি আপনারা আজকের আর্টিকেলটি পড়ে এই বিষয়টি ‌সম্পর্কে অবগত হতে পেরেছেন।আমাদের আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকবেন এবং আপনার বন্ধুদের সাথে আমাদের ওয়েবসাইটটি শেয়ার করবেন। কোন অজানা তথ্য কিংবা যে কোন বিষয়ে জানতে চাইলে আমাদের কমেন্ট করতে ভুলবেন না।

Post tags-

কোন ফ্রিজের বিদ্যুৎ খরচ কম,ওয়ালটন ফ্রিজ কত ওয়াট,12 সেফটি ফ্রিজ কত ওয়াট,ফ্রিজের বিদ্যুৎ বিল কমানোর উপায়,সিলিং ফ্যানের বিদ্যুৎ খরচ,একটি 200 ওয়াটের বাতি 5 ঘন্টা চললে কত ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ হবে,টেলিভিশন কত ওয়াট,ফ্রিজ কত লিটারে কত সেফটি,

আপনার জন্য আরো 

আপনার জন্য-

ওয়ালটন ফ্রিজ প্রাইজ ইন বাংলাদেশ ২০২৩.

ওয়ালটন ডিপ ফ্রিজের দাম ২০২৩

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম