ই-সিম কি?E SIM সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ -বদলে যাবে সিম প্রযুক্তির ভবিষ্যৎ-2022

ই-সিমের সম্পর্কে কমবেশি আমরা সবাই পেপার-পত্রিকা তে শুনতে পাচ্ছি এবং দেখতে পাচ্ছি,কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা এই সিম কি?  তাই আজকে আমি আপনাদেরকে এই ই-সিম সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর চেষ্টা করবসিম এর সুবিধা ও অসুবিধা, সিম কোন কোন মোবাইল ফোনে ব্যবহার করা যাবে এবং – সিম কিভাবে ব্যবহার করবেন, এসব সকল বিষয় নিয়ে আজকের আলোচনা।

ই-সিম
বদলে যাবে সিম প্রযুক্তির ভবিষ্যৎ

 সাবস্ক্রাইবার আইডেন্টিটি মডিউল,” সংক্ষেপে, সিম হল একটি চিপ করা প্লাস্টিকের কার্ড যা মোবাইল ফোনে ব্যবহৃত হয় – এই তথ্যটি সবারই জানা। এটি মোবাইল নম্বরের মতো বিভিন্ন তথ্যও সংরক্ষণ করে। এছাড়া সিমের মাধ্যমে ফোন ও ইন্টারনেটে কল বা মেসেজ পাঠানোর সুবিধাও রয়েছে। সহজ কথায়, একটি সিম কার্ড হল একটি মোবাইল অপারেটরের নেটওয়ার্কে সংযোগ করার একটি মাধ্যম।

যেহেতু যোগাযোগের নম্বরটি সিমে সংরক্ষিত আছে, তাই ফোন পরিবর্তন করার সময় বেশ সহজে নতুন ফোনে সিম ঢুকিয়ে আগের সমস্ত নম্বর পুনরুদ্ধার করা যায়। সিম কার্ড একটি অতি পুরাতন প্রযুক্তি, যা দীর্ঘদিন ধরে সেবা দিয়ে আসছে। কিন্তু এখন ই-সিমের পালা।

সহজে এন্ড্রয়েড ফোন আপডেট করুন

সিম কার্ড কি?

ই-সিম কার্ডের কার্যকারিতা আরও ভালোভাবে বোঝার জন্য প্রথমে প্রচলিত সিম কার্ড সম্পর্কে জানতে হবে। একটি সিম সাধারণত ফোনের একটি বিশেষ ট্রেতে ঢোকানো হয়। মূলত কোন ক্যারিয়ার বা অপারেটর এটি প্রদান করে। এটি একটি ডিভাইসের অনন্য সিরিয়াল নম্বর, আইএমইআই, আইসিসিআইডি, প্রমাণীকরণ কী, ডিভাইস পিন, এসএমএস ইত্যাদি সম্পর্কে তথ্য সংরক্ষণ করে।

একটি সিম কার্ড সাধারণত একটি ছোট প্লাস্টিকের কার্ড যার এক কোণে একটি খাঁজ থাকে৷ সিম কার্ডটিতে একটি সোনালী ঘড়ি সার্কিট রয়েছে যা মূলত সিমের মাদারবোর্ড এবং সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বহন করে। প্রতিটি সিমের একটি নম্বর থাকে, যা রবি, জিপির মতো ক্যারিয়ার সরবরাহ করে। এক ডিভাইস থেকে অন্য ডিভাইসে সিম ব্যবহার করা যাবে।

সিম কি?

ই-সিমের পূর্ণরূপ হল এমবেডেড সাবস্ক্রাইবার আইডেন্টিটি মডিউল। মোবাইল ফোনে সাধারণত যে প্লাস্টিকের সিম কার্ড ব্যবহার করা হয় তা সহজেই খোলা ও পরিবর্তন করা যায়। কিন্তু ই-সিম হল একটি ছোট চিপ যা সরাসরি মাদারবোর্ডের সাথে সংযুক্ত থাকে। যা একটি সাধারণ সিম কার্ডের মতো নেটওয়ার্ক প্রদানকারী কোম্পানির সাথে যুক্ত হতে পারে।

ই-সিমে থাকা তথ্য পুনর্লিখনযোগ্য। এর অর্থ হল সিম পরিবর্তন না করে বা নতুন সিম ব্যবহার না করে ই-সিম ব্যবহার করে অপারেটর পরিবর্তন করা যেতে পারে। ই-সিমের এমন সুবিধার ফলে অদূর ভবিষ্যতে আর প্রচলিত সিমের প্রয়োজন হবে না। ডুয়েল-সিম ফোনে অনেক ক্ষেত্রেই এখন দ্বিতীয় সিম হিসেবে ই-সিম ব্যবহার করা হচ্ছে।

 Google News – নিয়মিত আপডেট পেতে  এখানে ক্লিক করুন

যেসব ফোনে সিম আছে

বর্তমানে নির্দিষ্ট কিছু স্মার্টফোন ও স্মার্টওয়াচে ই-সিম দেখা যাবে। এই ডিভাইসগুলি হল:

  • আইফোন 13 সিরিজ, আইফোন 12 সিরিজ, আইফোন 10আর, আইফোন 10এস এবং আইপ্যাড প্রো
  • Samsung এর Galaxy S21 সিরিজ, S20 সিরিজ
  • গুগলের গুগল পিক্সেল 6 সিরিজ, পিক্সেল 5 সিরিজ, পিক্সেল 4 সিরিজ, পিক্সেল 3 সিরিজ
  • Motorola Razer (কোন সিম ট্রে, শুধুমাত্র ই-সিম)
  • স্যামসাং গিয়ার ডিভাইস
  • অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ 6, সিরিজ 5, সিরিজ 4, সিরিজ 3

সিম যেভাবে ব্যবহার করবেন

আপনি যদি ই-সিম পরিষেবা অফার করে এমন একটি মোবাইল অপারেটরের গ্রাহক হন এবং আপনার কাছে একটি ই-সিম সমর্থিত ডিভাইস থাকে; তাহলে আপনি খুব সহজেই ই-সিম ব্যবহার করতে পারবেন।

যেহেতু ই-সিমের ক্ষেত্রে, ফিজিক্যালি সিম কার্ড ঢোকানোর কোন সুযোগ নেই, সফটওয়্যারের মাধ্যমে ডিভাইসে সিম কার্ড সক্রিয় করার পুরো কাজটি করা যায়। তবে চিন্তার কিছু নেই। আপনার কোন বিশেষ সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা বা বিশেষজ্ঞের দ্বারা স্মরণ করিয়ে দেওয়ার দরকার নেই৷

ই-সিম সমর্থনকারী ডিভাইসগুলি ই-সিম সেটআপ সফ্টওয়্যার দিয়ে সরবরাহ করা হয়। ফলে সেটিংস থেকে সহজেই ই-সিম সেট আপ করতে পারবেন।

ডিভাইসে ই-সিম সেট আপ করার আগে আপনাকে মোবাইল অপারেটর কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করতে হবে। আপনি কোন নম্বর এবং পরিকল্পনার জন্য ই-সিম ব্যবহার করতে চান তা তাদের জানাতে হবে৷ তারপর মোবাইল অপারেটর কোম্পানি আপনাকে ই-সিম সক্রিয় করতে QR কোড সহ একটি কার্ড দেবে। এক্ষেত্রে আপনাকে কার্ডের জন্য অতিরিক্ত টাকা দিতে হতে পারে। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে মোবাইল অপারেটর কোম্পানির ওপর।

E-SIM সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ

আপনি যখন আপনার ই-সিম অ্যাক্টিভেশন কার্ড পাবেন, তখন আপনাকে আপনার ডিভাইসের নির্দিষ্ট সেটিংস থেকে এটি স্ক্যান করতে হবে।

আইফোন থেকে এই ক্ষেত্রে

  • প্রথমে সেটিংস এ যাবেন।
  • তারপর Cellular (or Mobile Data) অপশনটিতে যাবেন।
  • এবার Add Cellular Plan অপশনটিতে গিয়ে কিউআর কোডটি স্ক্যান করে নিন।

অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে সিম সেট আপ করতে

  • প্রথমে সেটিংস অপশনে যান।
  • এরপর Network & internet অপশনে যান।
  • এখন Add অপশনটিতে ক্লিক করুন এবং স্ক্রিনে আসা ইন্সট্রাকশন ফলো করুন। এবং Use 2 Number এই অপশনটি সিলেক্ট করুন।
  • অ্যাপল ওয়াচ বা গ্যালাক্সি ওয়াচে ই-সিম অ্যাক্টিভ করতে পারবেন, ফোনের অ্যাপ থেকেই।
E-SIM সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ
 E-SIM সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ

সিম এর সুবিধাসমূহ

ই-সিমের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এটি নেটওয়ার্ক অর্থাৎ মোবাইল অপারেটরকে খুব সহজেই পরিবর্তন করা সম্ভব করে তোলে। অপারেটর পরিবর্তন করতে একটি নতুন সিম কিনে ফোনে ঢোকানোর দরকার নেই। ই-সিমের ক্ষেত্রে, আপনাকে সিম ইজেক্টর টুল দিয়ে সিম সরিয়ে নতুন সিম ব্যবহার করতে হবে না।

ই-সিম সহজেই এক নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্কে পরিবর্তন করা যায়। একটি ই-সিমে একসাথে কমপক্ষে 5টি ভার্চুয়াল সিম কার্ডের ডেটা সংরক্ষণ করা সম্ভব। এর মানে হল যে আপনি যদি এমন এলাকায় যান যেখানে কোনও নেটওয়ার্ক সিগন্যাল নেই, যে সিম থেকে নেটওয়ার্ক রয়েছে সেই সিমটি ই-সিমের সুবিধার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

ই-সিমের সুবিধাটি হচ্ছে, এটি সত্যিই অনেক ছোট। বর্তমানে প্রচলিত সবচেয়ে ছোট ন্যানো সিমকার্ডের চেয়ে অন্তত ৩গুণ ছোট এই ই-সিম। ন্যানো সিমকার্ড ইনসার্ট করতে যেখানে ১০৮.২৪ বর্গ মিলিমিটার জায়গার প্রয়োজন হয়; সেখানে মাত্র ৩০ বর্গ মিলিমিটার জায়গাতে লাগে ই-সিম এর চিপ বসাতে।

ই-সিম স্থানীয় নেটওয়ার্কে স্যুইচ করা সহজ করে তোলে, বিশেষ করে ভ্রমণের সময়। এক্ষেত্রে ফিজিক্যাল সিম পরিবর্তন না করেই লোকাল সিম পরিবর্তন করা যায়।

এক স্লটে একাধিক সিম ব্যবহার করার পাশাপাশি ডুয়াল-সিম ফোনে ই-সিমের সঙ্গে ঐতিহ্যবাহী সিম ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। অন্য কথায়, ই-সিম ব্যবহার করলেও একই ফোনে একাধিক ফোন নম্বর ব্যবহার করার সুবিধা রয়েছে। আপনি যদি ব্যক্তিগত যোগাযোগের জন্য একটি ফোন নম্বর এবং ব্যবসার জন্য একটি পৃথক নম্বর ব্যবহার করতে চান তবে ই-সিম এমন পরিস্থিতিতে খুব কার্যকর হতে পারে।

স্মার্টফোনের আকার কমানোর পাশাপাশি স্মার্টওয়াচের মতো ছোট আকারের ডিভাইসে ই-সিম ব্যবহার করা বেশ সুবিধাজনক হতে পারে। অ্যাপল ইতিমধ্যেই তাদের স্মার্টওয়াচের বিভিন্ন সিরিজে ই-সিম যুক্ত করেছে। Samsung তাদের Samsung Gear S2 এবং Samsung Gear S3 স্মার্টওয়াচে ই-সিম যুক্ত করেছে।

ই-সিম ফোনের একপাশে বা পাশে সংযুক্ত করার প্রয়োজন নেই। তাই জলরোধী বা ডাস্টপ্রুফ ডিভাইস সহজেই তৈরি করা যায়। ফলে এ ধরনের ডিভাইসের দাম অনেকটাই কমে আসবে। ব্যবহারকারীরাও ই-সিম ব্যবহার করে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন

আপনার পকেটে কয়েকটি সিম কার্ড বহন করার দরকার নেই। সিম কার্ডের ট্রে খুলতে কোনো পেপারক্লিপ বা আলপিন খোঁজার দরকার নেই।

ই-সিম এর অসুবিধাসমূহ

সুবিধা এবং অসুবিধার মধ্যে সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য। তাই ই-সিম ব্যবহারেও কিছু অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারেন। বিশেষ করে যখন আপনি আপনার মোবাইল ফোন বা ডিভাইস পরিবর্তন করেন; তাহলে আপনি এখনকার মতো সিম কার্ড খুলে নতুন ফোনে রাখতে পারবেন না।

এর জন্য মোবাইল অপারেটর কোম্পানির সাথে যোগাযোগের প্রয়োজন হতে পারে। এছাড়া ডিভাইসে কোনো সমস্যা থাকলে তা বের করতে কিছুটা সময় লাগতে পারে। বিশেষ করে নেটওয়ার্ক সমস্যার ক্ষেত্রে।

আপনার যদি সন্দেহ হয় যে সিমের সাহায্যে আপনার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে, সাধারণ সিমটি সরানো বেশ সহজ। কিন্তু ই-সিমের ক্ষেত্রে তেমন কোনো সুবিধা নেই। তবে ফোন চুরি হয়ে গেলে ছিনতাইকারীরা কোনো তথ্য মুছে ফেলতে পারবে না, এটা ভালো কথা।

এখন যদি আপনার ফোনে নেটওয়ার্ক না থাকে, আপনি চাইলে আপনার সিম কার্ড খুলে অন্য ফোনে নিয়ে যেতে পারেন। এতে করে নেটওয়ার্ক বা আপনার ফোনের সমস্যা বুঝতে পারবেন। ই-সিমের ক্ষেত্রে এমন কোনো সুযোগ নেই। ডিভাইসের সমস্যা মানে আপনাকে সার্ভিস সেন্টারে যেতে হবে।

ই-সিম একটি নতুন প্রযুক্তি হিসেবে জনপ্রিয় হতে এবং মূলধারার প্রযুক্তিতে পুরোপুরি প্রবেশ করতেও কিছু সময় লাগবে। এই সময়ের মধ্যে এটি ধীরে ধীরে উন্নত হবে। একইভাবে, বর্তমান ব্যবহারকারীদের প্রযুক্তিগত বা ত্রুটি মোকাবেলা করতে হবে।

যাইহোক, যেহেতু সুবিধাগুলি অসুবিধাগুলিকে ছাড়িয়ে গেছে। সুতরাং, কিছু সময়ের পরে, আশা করা যায় যে ই-সিম সম্পূর্ণরূপে এই সীমাবদ্ধতাগুলি কাটিয়ে উঠবে এবং সিম কার্ড প্রতিস্থাপন করবে।

বাংলাদেশে কি সিম সুবিধা আছে?

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোনো টেলিকম অপারেটর আইএসআইএম দিচ্ছে না। হয়তো অদূর ভবিষ্যতে চলে আসবে।

?ব্যাটারি ছাড়া ল্যাপটপ চালানো

?স্মার্টফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়ানোর সহজ টিপস জেনে নিন

?দুর্দান্ত ক্যামেরা ও শক্তিশালী ব্যাটারি সহ লঞ্চ হল

?পাওয়ার ফুল ব্যাটারি, দাম 20 হাজার টাকার কম

  •  আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন
  •  আপনি টুইটার ব্যবহার করলে টুইটারেও আমাদের ফলো করতে পারেন। টুইটার এড্রেস হচ্ছেঃ https://twitter.com/BariStudio1
pp

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম

Leave a Reply

Your email address will not be published.