বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার পূর্বে বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক সম্পর্কে জেনে নিন

বিকাশ বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় মোবাইল ফোন ভিত্তিক মানি ট্রান্সফার (MFS) পরিষেবা প্রদানকারী। গ্রাহকরা*247# ডায়াল করে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে ক্যাশ ডিপোজিট, ক্যাশ উইথড্রয়াল, সেন্ড মানি, অ্যাড মানি, রেমিট্যান্স, মোবাইল রিচার্জ, পে অ্যান্ড পে বিলের মতো পরিষেবা পেতে পারেন।

?বিকাশ থেকে জামানত ছাড়া লোন নেওয়ার উপায়?

 

 

বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার পূর্বে বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক সম্পর্কে জেনে নিন

বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার পূর্বে বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক সম্পর্কে জেনে নিন

বিকাশ থেকে ঋণ নেওয়ার সুযোগ চালু করা হয়েছে। যোগ্য ব্যবহারকারীরা সহজেই বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে সিটি ব্যাংকের বিকাশ লোনের জন্য আবেদন করতে পারেন। বিকাশ এবং সিটি ব্যাংকের এই ক্ষুদ্র ব্যবস্থার মাধ্যমে বাংলাদেশ ডিজিটাল ঋণের যুগে প্রবেশ করেছে।

  • কে দিচ্ছে এই ঋণ?
  • ঋণের পরিমাণ কত?
  • বিকাশ ঋণের সুবিধা?
  • ঋণের সুদের হার কত?
  • ঋণ পরিশোধ করতে কতক্ষণ সময় লাগে?
  • নির্ধারিত সময়ের আগে কিস্তি পরিশোধ করা যাবে?
  • নির্ধারিত তারিখের আগে ঋণ পরিশোধ করলে লাভ?
  • বিকাশ থেকে লোন পেতে কি করতে হবে?

কে দিচ্ছে এই লোন?

সিটি ব্যাংক বিকাশ যৌথভাবে ঋণ দিচ্ছে। সিটি ব্যাংকের সহায়তায় বিকাশ এই ডিজিটাল ক্ষুদ্র ব্যবস্থা চালু করেছে। জামানত ছাড়াই ঋণ দিচ্ছে সিটি ব্যাংক। আর এই ঋণ দেওয়া হচ্ছে উন্নয়নের মাধ্যমে। শুধুমাত্র বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে, উপযুক্ত বিকাশ ব্যবহারকারীরা সহজেই কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ছাড়াই ঋণ নিতে পারেন। 2020 সালে পাইলট শুরু হওয়ার পরে 15 ডিসেম্বর2021 তারিখে এই সুবিধাটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়েছিল।

সিটি ব্যাংকের এই বিকাশ লোনের পরিমাণ কত?

বিকাশ থেকে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা রয়েছে। অর্থাৎ ঋণ হিসেবে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা নেওয়া যাবে। একজন ব্যবহারকারী সর্বনিম্ন 500 টাকা থেকে সর্বোচ্চ20,000 টাকা পর্যন্ত এই ডিজিটাল ন্যানো লোন নিতে পারেন। ঋণ হিসেবে নেওয়া এই টাকা বিকাশ অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্সে যোগ হবে।

একজন গ্রাহক চাইলে সে টাকা পাঠাতে পারে বা এই টাকা ক্যাশ আউট করতে পারে। অন্য কথায়, একজন বিকাশ লোন গ্রহীতা একটি সাধারণ বিকাশ ব্যালেন্সের মতো বিকাশের মাধ্যমে প্রাপ্ত অর্থ ব্যবহারের সম্পূর্ণ সুযোগ পাবেন। উল্লেখ্য, একজন গ্রাহক একবারে একটি মাত্র ঋণ নিতে পারেন।

বিকাশ লোন কেনো নিবেন?

বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে তাৎক্ষণিকভাবে ডিজিটাল ন্যানো লোন পাওয়া যাবে। এই ঋণ পেতে আলাদা কোনো কাগজপত্র বা ব্যাংকিং ফি লাগবে না। এই ঋণ পেতে সিটি ব্যাংকের কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বা নিরাপত্তার প্রয়োজন নেই। বিকাশ সিটি ব্যাংকের এই সেবা দিয়ে ডিজিটাল ক্ষুদ্রঋণের পথে একধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ।

সরাসরি বিকাশ অ্যাপ থেকে লোন নিতে পারছেন প্রত্যন্ত অঞ্চলের উপযুক্ত বিকাশ ব্যবহারকারীগণ। এছাড়াও চড়া সুদের হার না থাকায় বিকাশ লোন পরিশোধে সুবিধা হবে গ্রাহকদের।

 ?বিকাশ থেকে 250 টাকায় ইনস্ট্যান্ট বোনাস

বিকাশ লোনের সুদের হার কত?

বিকাশের প্রদত্ত ঋণটি সিটি ব্যাংক প্রদান করে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী এই ডিজিটাল ঋণের জন্য বার্ষিক9% সুদের হার প্রযোজ্য হবে। এই সুদের হার দৈনিক ভিত্তিতে প্রযোজ্য হবে। আপনি বিকাশ অ্যাপে ঋণের কিস্তি এবং সুদের হিসাব দেখতে পাবেন। তাই এটা নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করার দরকার নেই।

?গুগল নিউজে  সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

লোন কতদিনের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে?

সিটি ব্যাংক বিকাশের এই ঋণ ব্যবস্থায় প্রাপ্ত ঋণ ,ঋণ গ্রহণের মাসের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে। বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স থেকে একটি স্বয়ংক্রিয়কিস্তি ঋণ পরিশোধের সুবিধা রয়েছে। অন্য কথায়, আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্টে ব্যালেন্স থাকলে বিকাশ স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঋণের কিস্তি কেটে নেবে।

আমি কি নির্ধারিত তারিখের আগে কিস্তিতে পরিশোধ করতে পারি? আগে লোন পরিশোধ করলে আমার কি কোনো লাভ হবে?

হ্যাঁ, আপনি চাইলে নির্ধারিত তারিখের আগে কিস্তি পরিশোধ করতে পারেন।

ঋণ নেওয়ার পর নির্দিষ্ট সময়ের আগেই ঋণ পরিশোধ করা যাবে। আর নির্দিষ্ট সময়ের আগে ঋণ পরিশোধ করলে কম সুদের সুবিধা পাবেন ব্যবহারকারীরা। অন্য কথায়, যদি আপনি নির্ধারিত সময়ের আগে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করেন, তাহলে সুদের পরিমাণ কম হবে, তাই আপনাকে তুলনামূলকভাবে কম সুদ দিতে হবে।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে লোন পরিশোধ না করলে কী হবে?

যেকোনো ঋণ সময়মতো পরিশোধ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার এনআইডি কার্ডের তথ্য ব্যবহার করে কোনো ব্যাংক থেকে ঋণ নিলে সেই তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্ভারে জমা থাকবে। এটি আপনার ক্রেডিট রেটিং তৈরি করে। আপনার যদি ভালো ক্রেডিট রেটিং না থাকে তাহলে পরবর্তীতে লোন পেতে আপনার সমস্যা হবে। আপনার ক্রেডিট কার্ড থাকলেও, আপনি সময়মতো ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ না করলে আপনার ক্রেডিট রেটিং ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

তাই আপনি যদি সিটি ব্যাংক থেকে এই ঋণ নেন এবং সময়মতো তা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হন তাহলে আপনার ক্রেডিট রেটিং ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে এবং সেক্ষেত্রে ভবিষ্যতে ঋণ পেতে আপনার অসুবিধা হতে পারে। একই সঙ্গে বিকাশ সিটি ব্যাংককে বিলম্ব ফি দিতে হবে।

নির্ধারিত তারিখে আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্টে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করার জন্য আপনার কাছে প্রয়োজনীয় পরিমাণ অর্থ না থাকলে বা আপনি সেই নির্ধারিত তারিখের আগে কিস্তি পরিশোধ না করলে বিলম্ব ফি প্রযোজ্য হবে। এই বিলম্বের হার ঋণের পরিমাণের উপর বার্ষিক 2% হারে প্রযোজ্য হবে।

 কারা পাবে এই ডিজিটাল লোন?

সিটিব্যাংক প্রদত্ত বিকাশ মাধ্যমে প্রদত্ত এই ঋণের সুবিধা কিছু গ্রাহক পাবেন। বিকাশ অ্যাপের লোন সেকশনে প্রবেশ করে একজন ব্যবহারকারী লোন পেয়েছেন কিনা তা জানতে পারবেন।

ঋণ সেবা এখন সীমিত সংখ্যক গ্রাহকের জন্য উপলব্ধ। আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্টে লোন পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়ানোর জন্য, অ্যাকাউন্টটি সক্রিয় রাখুন এবং অ্যাকাউন্টের সাথে নিয়মিত লেনদেন করুন। যাইহোক, অ্যাকাউন্টের অতিরিক্ত ব্যবহার সবসময় ঋণের নিশ্চয়তা দেয় না। অর্থাৎ বিকাশের কাছ থেকে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট গ্রাহকরাই ঋণ পাবেন।

আমি অনেক দিন ধরে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করছি, বিকাশ আমাকে লোন দেয় না কেন?

অনেক ব্যবহারকারী অভিযোগ করেছেন যে তাদের বিকাশ অ্যাপ দেখায় ,যে তারা এই ঋণ পাবেন না। প্রথমত, সিটি ব্যাংক এবং বিকাশ কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে একজন বিকাশ গ্রাহক এই ডিজিটাল ঋণ পাবেন কিনা। এখানে গ্রাহকদের আসলে বলার কিছু নেই।

অন্যদিকে, প্রথম আলোর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিকাশ কর্তৃপক্ষ তাদের জানিয়েছে যেযারা বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করছেন এবং নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের লেনদেন করছেন তারাই ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাচ্ছেন।ফলে যারা জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে প্রচলিত পদ্ধতিতে গ্রাহক হয়েছেন, তারা এখন ঋণ পাচ্ছেন না। এছাড়া যারা অ্যাপ ব্যবহার করছেন না তারা ঋণ পাবেন না। অন্যদিকে, প্রথম আলোর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিকাশ কর্তৃপক্ষ তাদের জানিয়েছে যেযারা বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করছেন এবং নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের লেনদেন করছেন তারাই ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাচ্ছেন।ফলে যারা জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে প্রচলিত পদ্ধতিতে গ্রাহক হয়েছেন, তারা এখন ঋণ পাচ্ছেন না। এছাড়া যারা অ্যাপ ব্যবহার করছেন না তারা ঋণ পাবেন না।

কিন্তু অ্যাপ দিয়ে অ্যাকাউন্ট খোলা মানে আপনি ঋণ পাবেন তাও অনিশ্চিত। তবে বিকাশ লোন পেতে হলে একজন ব্যবহারকারীকে অবশ্যই বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করতে হবে।

বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে আপনি সহজেই ঘরে বসে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। সেক্ষেত্রে ন্যাশনাল আইডি কার্ডে (এনআইডি) থাকা তথ্য দেওয়া থাকে। আপনি যত বেশি বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করবেন, তত বেশি বিকাশ পুরস্কার পাবেন।

যারা বর্তমানে সিটি ব্যাংক থেকে এই ডিজিটাল ঋণ পাচ্ছেন না তাদের কাছ থেকে যোগ্য গ্রাহকদের ঋণের আওতায় আনতে বিকাশ সিটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কাজ করবে।

অন্য কথায়, যদি পুরানো পদ্ধতিতে এজেন্টের কাছে গিয়ে আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা হয়ে থাকে, তবে আপনি এখন ডিজিটাল ঋণ নাও পেতে পারেন। যাইহোক, ভবিষ্যতে, বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক আপনার মত ম্যানুয়ালি নিবন্ধন করা যোগ্য গ্রাহকদের এই ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করবে। এজন্য তারা কাজ করছে, প্রথম আলোর প্রতিবেদনে অন্তত তেমনটাই বলা হয়েছে। আরও জানতে আপনি বিকাশ হেল্পলাইনে কথা বলতে পারেন বা লাইভ চ্যাট করতেপারেন।

বিকাশ থেকে লোন পেতে কি করতে হবে?

উপরোক্ত আলোচনা থেকে আমরা ইতিমধ্যেই উন্নয়ন ঋণ কারা পাবে সে সম্পর্কে সমন্বিত ধারণা পেয়েছি। এই ডিজিটাল লোনটি শুধুমাত্র বিকাশ এবং সিটি ব্যাংক কর্তৃক নির্বাচিত বিকাশ গ্রাহকদের জন্য উপলব্ধ হবে। তবে, কেওয়াইসি ব্যবহার করে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা/হালনাগাদ করলে উপযুক্ত গ্রাহকের সংখ্যা বাড়তে পারে। এছাড়াও, আপনি যদি একটি উন্নয়ন ঋণ পেতে চান তবে আপনার অ্যাকাউন্টে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ নিয়মিত লেনদেন থাকতে হবে। তবে বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানাননি বিকাশ।

কত টাকা পর্যন্ত Bkash Loan?

সিটি ব্যাংকের সহায়তায় বিকাশ তার গ্রাহকদের ঋণ সুবিধা দেবে। প্রাথমিকভাবে একটি পাইলট প্রকল্পের অধীনে, বিকাশ গ্রাহকরা সিটি ব্যাংক থেকে সর্বাধিক 10,000 টাকা পর্যন্ত এই ডিজিটাল ঋণ নিতে পারবেন। তবে পর্যায়ক্রমে তা বাড়ানো হতে পারে। Read More

?বিকাশ থেকে 250 টাকায় ইনস্ট্যান্ট বোনাস

?বিকাশ অ্যাপ এ আসলেই 150 টাকা পর্যন্ত বোনাস।

?বিকাশ একাউন্ট কার আইডি দিয়ে খোলা

 

?বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

pp

তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক লেখালিখি করি। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, SS IT BARI-আমার হাতেখড়ি। তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিশ্লেষণ বাংলায় জানতে ভিজিট করুন http://ssitbari.com

৩ comments

  1. AntonioreutT Reply

    বিকাশ থেকে লোন পাওয়া যায়। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সিটি ব্যাংক দ্বারা চালু হয়েছে সমান্তরাল-ফ্রী ডিজিটাল লোন। পাওয়া যাবে শুধুমাত্র বিকাশ থেকে। বিকাশ গ্রাহকরা বাংলাদেশের যে কোন জায়গা থেকে, যেকোনো সময় বিকাশ থেকে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত লোন নিতে পারবে। এটি একটি পাইলট উদ্যোগ, যা শুধুমাত্র বিকাশ ব্যবহারকারীর সীমিত গোষ্ঠী লক্ষ্য করে, চালু করা হয়েছে। এই উদ্যোগে, বিকাশ ব্যবহারকারীর যে কোন ব্যক্তি সিটি ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারবে, বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে। সেই লোনের অর্থ সরাসরি বিকাশ একাউন্টে চলে আসবে এবং বিকাশ একাউন্ট থেকে সরাসরি লোন পরিশোধ করা যাবে। বিকাশ থেকে লোন মূলত কারা পাবে? বিকাশ সাধারণত এই লোনটি দিয়ে থাকবে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর এবং যারা খুব বেশি পরিমাণ বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে। এছাড়া, যাদের লেনদেন বিকাশ দিয়ে খুব বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। কিভাবে বিকাশ থেকে লোন পাবেন?

  2. AntonioreutT Reply

    চালু হয়েছে বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার সুযোগ। যোগ্য ব্যবহারকারীগণ খুব সহজে বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে সিটি ব্যাংকের বিকাশ লোন এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। বিকাশ ও সিটি ব্যাংকের এই ক্ষুদ্র ঝণ ব্যবস্থা দ্বারা ডিজিটাল লোনের যুগে প্রবেশ করলো বাংলাদেশ। চলুন জেনে নেওয়া যাক বিকাশ ও সিটি ব্যাংকের লোন সম্পর্কে বিস্তারিত। এই পোস্টে জানবেনঃ কে দিচ্ছে এই লোন? বিকাশ লোন এর সুবিধাসমূহ লোনের সুদের হার কত? লোন কতদিনের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published.