কোন কোন খাবারে পটাশিয়াম পাওয়া যায়?

পটাশিয়াম আমাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য অতি প্রয়োজনীয় একটি খনিজ।আমাদের দেহে যেমন ক্যালসিয়াম এবং সোডিয়ামের প্রয়োজন রয়েছে তেমনি পটাশিয়ামেরও প্রয়োজন রয়েছে। আপনার খাবার তালিকায় পটাশিয়ামযুক্ত খাবার রাখলে তা আপনাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে। সকল বয়সের মানুষের জন্য পটাশিয়ামের প্রয়োজন একই রকম নয়। বয়স ভেদে পটাশিয়াম এর চাহিদা ও ভিন্ন ভিন্ন।

সম্মানিত পাঠক পাঠিকা বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেল আপনাদের সকলকে স্বাগতম। পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবারগুলো সম্পর্কে আপনাদের জানাতে আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করব পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার সম্পর্কে। আশা করছি শেষ পর্যন্ত সাথে থাকবেন।কোন কোন খাবারে পটাশিয়াম পাওয়া যায়

পটাশিয়াম কি?

পটাশিয়াম মানবদেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ। এই খনিজ লবণ আমাদের শরীরে ইলেকট্রোলাইট হিসেবে কাজ করে থাকে।ইলেক্ট্রোলাইট পানিতে মিশে দেহের বিভিন্ন শরীর বৃত্তীয় কাজ পরিচালনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। পটাশিয়াম দেহের ভেতরে পানির ভারসাম্য রক্ষা করে, দেহের কোষে পুষ্টি উপাদান প্রেরণ করে এবং কোষ থেকে বজ্র পদার্থ অপসারণ করে। এছাড়াও পটাশিয়াম দেহের ক্ষার ও এসিড এর মাত্রা ঠিক রাখে,মস্তিষ্কের নার্ভ বা স্নায়ুর বার্তা আদান-প্রদানেও পটাশিয়াম সাহায্য করে। পটাশিয়াম পেশী সংকোচন নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

থাইরয়েড রোগীর খাদ্য তালিকা

যার কারণে শরীরে ইলেকট্রোলাইটের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে কমে অথবা বেড়ে গেলে দেহের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজে বাধা সৃষ্টি হয়।ইলেক্ট্রোলাইট এর ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য সঠিক পরিমাণে পটাশিয়াম গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

পটাশিয়াম যুক্ত খাবার কোনগুলো?

পটাশিয়াম রয়েছে এমন অনেক ফল ও শাকসবজি আছে যেগুলো থেকে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়। সবুজ শাক বীণস বাদাম ও দুগ্ধজাত খাবার পটাশিয়ামের খুব ভালো উৎস। পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার গুলোর মধ্যে রয়েছে-

পটাশিয়ামযুক্ত ফল

পটাশিয়াম রয়েছে এমন কতগুলো ফল হলো কলা, অ্যাভাকাডো, কমলা, ডালিম, আঙ্গুর, ডাবের পানি, খেজুর, তরমুজ, মিষ্টি কুমড়া ইত্যাদি। এছাড়াও কিছু শুকনো ফলেও প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যাবে। যেমন কিসমিস ,শুকনো এপ্রিকট ইত্যাদি।

পটাশিয়াম যুক্ত শাকসবজি

পটাশিয়াম যুক্ত শাকসবজির মধ্য রয়েছে বিন ও সিম জাতীয় খাবার যেমন মটরশুটি, বরবটি, কিডনিবিন, পিনটু বিন, সয়াবিন। এছাড়াও আরো রয়েছে সবুজ বিট জাতীয় খাবার, শাক, ব্রকলি, মাশরুম, আলু, মিষ্টি আলু, টমেটো, শসা ইত্যাদি।

দগ্ধজাত খাবার

যে সমস্ত দগ্ধজাত খাবার থেকে পটাশিয়াম পাওয়া যায় সেগুলো হলো, দই বা ইয়োগার্ট, উদ্ভিজ্জ দুধ যেমন সয়, আলমন্ড, কাজুবাদাম।

মাছ মাংস

মুরগির মাংস স্যামন মাছ ও অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়।

একজন মানুষের শরীরে কতটুকু পটাশিয়াম থাকা দরকার?

বয়স লিঙ্গ ভেদে পটাশিয়াম এর চাহিদারও ভিন্নতা রয়েছে।এছাড়াও যারা কিডনি বা অন্যান্য শারীরিক সমস্যায় ভুগছে তারা পটাশিয়াম গ্রহণের ব্যাপারে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। একজন মানুষের দেহে কতটুকু পরিমাণে পটাশিয়ামের চাহিদা রয়েছে দেখে নিন:

*শূন্য থেকে ছয় মাস বয়সী শিশুর 400 মিলিগ্রাম পটাশিয়ামের চাহিদা রয়েছে।

*সাত থেকে বারো মাস বয়স্ক একটি শিশুর ৮৬০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*এক থেকে তিন বছর বয়সী শিশুর দুই হাজার মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*চার থেকে আট বছর বয়সী একটি বাচ্চার ২৩০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*9 থেকে 13 বছর বয়সী মেয়ে বাচ্চার ২৫০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়ামের প্রয়োজন। এবং ছেলের ক্ষেত্রে ২৩০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*১৪ থেকে ১৮ বছর বয়সী মেয়েদের ক্ষেত্রে ৩ হাজার মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন এবং ছেলেদের ক্ষেত্রে ২৩০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

*১৯ থেকে ৫০ বছর বয়সী মেয়েদের ক্ষেত্রে 3400 মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন এবং পুরুষদের ক্ষেত্রে ২৬০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন। গর্ভবতী নারীর ক্ষেত্রে ২৯০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*৫০ ঊর্ধ্ব বয়স্ক নারীদের ক্ষেত্রে 3400 মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন এবং পুরুষদের ক্ষেত্রে ২৬০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম প্রয়োজন।

মানবদেহে পটাশিয়ামের গুরুত্ব

দেহের অন্যান্য খনিজের মতো পটাশিয়াম ও একটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ।আমাদের দৈনন্দিন জীবনের খাবার থেকেই পটাশিয়ামের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব এজন্য কোন সাপ্লিমেন্ট গ্রহণের প্রয়োজন নেই। মানবদেহের পটাশিয়ামের উপকারিতা গুলো হলো:

*রক্তের শর্করার মাত্রা ঠিক রাখতে পটাশিয়াম সাহায্য করে।

*মানবদেহের মাংসপেশী সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে পর্যাপ্ত পরিমাণ পটাশিয়াম প্রয়োজন।

*পটাশিয়াম মানবদেহের স্নায়ুর কার্যকারিতা কে বৃদ্ধি করে।

*পটাশিয়াম শরীরে এসিডের মাত্রা কমায় যার ফলে ক্যালসিয়াম সঠিকভাবে কাজ করতে পারে এবং দেহের হাড় শক্ত হয়।

*মানব মস্তিষ্কের কার্যকারিতার জন্য পটাশিয়াম গুরুত্বপূর্ণ।

*পটাশিয়াম কিডনিতে পাথর হওয়াকে প্রতিরোধ করে।

পটাশিয়ামের মাত্রা বেড়ে গেলে কি হতে পারে?

শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণ পটাশিয়াম প্রয়োজন সুস্থ থাকতে।সাধারণত মানব দেহের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা প্রতি লিটারে ৩.৫ থেকে ৫.০ মিলিমিটার হওয়া উচিত। তবে পটাশিয়ামের মাত্রা যদি এর চেয়ে কম বা বেশি হয় তাহলে শরীরের নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। অতিরিক্ত পটাশিয়ামের কারণে হার্ট অ্যাটাক হার্ট ফেইলোর এর মত গুরুতর সমস্যা তৈরি হতে পারে। এছাড়াও যে সমস্যাগুলো হতে পারে তা হলো:

*শরীর দুর্বল অনুভূত হওয়া।

*বুকে তীব্র ব্যথা অনুভব করা।

*মাংসপেশি দুর্বল হয়ে পড়া।

*বমি বমি ভাব হওয়া।

*পেটে ব্যথা এবং শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

*মানসিক ভারসাম্য বিঘ্নিত হতে পারে।

শরীরে পটাশিয়ামের মাত্রা কমে গেলে কি হতে পারে?

শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণ পটাশিয়াম থাকাটা জরুরি। তবে যদি এর পরিমাণ কমে যায় তাহলে বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা তৈরি হতে পারে। পটাশিয়ামের মাত্রা কমে গেলে দুর্বলতা, ক্লান্তি, পেশীতে খিচুনি, হজমের সমস্যা, স্নায়ু দুর্বলতা, শরীরের শিহরণ, আসারতা এবং শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাসা

পটাশিয়াম যুক্ত খাবার কি কি?

বিভিন্ন ধরনের ফল শাকসবজিতে পটাশিয়াম পাওয়া যায়। এগুলোর মধ্য রয়েছে সবুজ শাকসবজি, বিনস, বাদাম, দুগ্ধজাত খাবার, সামুদ্রিক মাছ ইত্যাদি।

পটাশিয়াম বেশি হলে কি হয়?

শরীরে উচ্চমাত্রার পটাশিয়াম শরীরের জন্য উত্তম নয়। এতে করে শরীরে দুর্বলতা মাথা ঘোরা রক্তচাপ কমে যাওয়া নিয়মিত হৃদস্পন্দন তৈরি হতে পারে।

সবচেয়ে বেশি পটাশিয়াম পাওয়া যায় কোন ফলে?

পটাশিয়াম যুক্ত ফল গুলোর মধ্য ডাবের পানিতে সবচেয়ে বেশি খনিজ লবণ ক্যালসিয়াম ম্যাগনেসিয়াম ও ফসফরাসের উপস্থিতি থাকে।

আমাদের শেষ কথা-

আমাদের আজকের আর্টিকেলটিতে আলোচনা করা হয়েছে পটাশিয়াম যুক্ত খাবার সম্পর্কে। ইতোমধ্যেই আপনারা আজকের আর্টিকেলটি পড়ে বিষয়গুলো সম্পর্কে অবগত হয়েছেন। এ বিষয়ে কারো কোন জিজ্ঞাসা থাকলে অবশ্যই আমাদের কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। আপনাদের যদি আমাদের ওয়েবসাইটের আর্টিকেল গুলো ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন আমাদের ওয়েবসাইটের কথা।

আরো নতুন নতুন আর্টিকেল পেতে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করবেন। আজকের মতো এ পর্যন্তই। সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন।

পোস্ট ট্যাগ-

পটাশিয়াম কমানোর উপায়, সবচেয়ে বেশি পটাশিয়াম আছে কোন খাবারে, পটাশিয়াম বেশি হলে কি হয়, পটাশিয়ামের অভাবজনিত লক্ষণ,সোডিয়াম ও পটাশিয়াম যুক্ত খাবার,কম পটাশিয়াম যুক্ত খাবার,পটাশিয়াম এর উপকারিতা,পটাশিয়াম কম হলে কি হয়।

আপনার জন্য আরো 

আপনার জন্য-

ওয়ালটন ফ্রিজ প্রাইজ ইন বাংলাদেশ ২০২৩.

ওয়ালটন ডিপ ফ্রিজের দাম ২০২৩

ফ্রিজের পাওয়ার কত রাখবেন? 

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

 

প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এখানে ক্লিক করুন।
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে :এখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।

SS IT BARI- টুইটার থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- লিংকদিন থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- ইনস্টাগ্রাম থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুম্বলার (Tumblr)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে :এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- পিন্টারেস্ট (Pinterest)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম