Blogging Tips। এসইও টুলস এর সঠিক ব্যবহার এবং গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়-2022

বরাবরের মতো আজকের আলোচনা ব্লগিং নিয়ে। ব্লগিং এ আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা আপনাদেরকে প্রতিটি ধাপে ধাপে জানানোর চেষ্টা করতেছি। যাতে যারা নতুনভাবে ব্লগিং শুরু করতেছে, তারা আমার এই বাস্তব ধারণা থেকে হয়তো অনেক ভুল থেকে বেঁচে যাবে এবং অনেক সময় নষ্ট থেকে বেচে যাবে এবং সঠিক নিয়মে সঠিকভাবে একটি ব্লগ সাইড কে গুগল এডসেন্স করাবে। তার নিমিত্তেই আমার এই লেখা এবং পরিশ্রম।

আজকে আমি আপনাদেরকে জানাবো ব্লগিং টিপস 2022 এর ব্লগিং এর সবচাইতে আপডেট কিছু টুলস এবং এই টুলসের কি ব্যবহার এবং কিভাবে এই টুলস গুলি আপনার ব্লগ সাইট কে গুগল এডসেন্স করাতে সাহায্য করে সেই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত নিচে আলোচনা করার চেষ্টা করছি।

অন্য পোস্ট:সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস এর শাখা সমূহ।

    Blogging Tips। এসইও টুলস এর সঠিক ব্যবহার এবং গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়-2022

    Blogging Tips। এসইও টুলস এর সঠিক ব্যবহার এবং গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়-2022


    Blogging Tipsএসইও টুলস এর সঠিক ব্যবহার এবং গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়।

    সচরাচর আমরা যারা ব্লগিং করি এবং ব্লগিং শুরু করতে যাচ্ছে তারা সকলেই এসইও টুলস সম্পর্কে অথবা এই নামটি শুনে থাকি।

    তবে আমি আজকে যে কয়টি এসইও টুলস এর নাম এবং কিভাবে ব্যবহার করবেন সেটি আলোচনা করব। আপনারাও যদি আপনার ব্লগ সাইটে প্রাথমিকভাবে এই এসইও টুলস গুলি ,এই নিয়ম সঠিকভাবে ব্যবহার করেন তাহলে হান্ডেট পার্সেন্ট গুগলের এডসেন্স পাবেন।

    ব্লগ পোস্টের কিওয়ার্ড রিসার্চ করার জন্য সঠিক টুলস:Keyword SEO Tools

    কিওয়ার্ড রিসার্চ এসইও টুলস এর কাজ হচ্ছে আপনি যখন একটি পোষ্ট লিখবেন তার আগে আপনার পোষ্টের হেডলাইন।

    এই হেডলাইনটা যদি আপনার সঠিক কিওয়ার্ড না হয় তাহলে আপনার পোস্টটি কখনোই গুগলের অ্যাড করবে না, এজন্য আপনার হেডলাইন টি অবশ্যই কিওয়ার্ড রিসার্চ টুলস থেকে রিচার্জ করে বা দেখে তারপর আপনার পোষ্টের হেডলাইন বাছাই করুন।

    তবে সঠিক কিওয়ার্ড রিচার্জ করার ক্ষেত্রে আমার দেওয়া নিচের লিঙ্ক থেকে আপনারা আপনাদের পোষ্টের কী-ওয়ার্ডটি রিচার্জ করে নিতে পারেন। কারণ কিওয়ার্ড রিসার্চ করা টুলস গুলোর মধ্যে অনেক ভালো মন্দ আছে আমার অভিজ্ঞতায় নিচের দেওয়া লিংক থেকে সুন্দর ভাবে আপনি আপনার পোষ্টের কিওয়ার্ড রিসার্চ করে নিতে পারবেন। যার ফলে আপনার পোস্টটি গুগলে খুব দ্রুত রেংক হবে।

    এই লিংক থেকে কিওয়ার্ড রিচার্স করুন।

    Sitemap for blogger:

    সাইট ম্যাপ ফর ব্লগার টুলসঃ এই টুলসের মাধ্যমে আপনারা আপনার সাইট গুগল সার্চ কনসোলে(Google search consol) আপনার সাইট ম্যাপ সেট করে নিতে পারবেন  ।এই টুলস এর দ্বারা আপনার সাইটের সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করা, কতটি পোস্ট গুগোলে ইন্ডেক্স হয়েছে  এবং কতটি পোস্ট ইনডেক্স হয়নি সেটি দেখতে পাবেন। এটি যদি আপনার সাইটে সেটাপ না করা থাকে তাহলে আপনার সাইটটি কখনোই গুগল এডসেন্স পাবেনা।

    সাইটম্যাপ সেটআপ করার জন্য প্রথমে আপনি এই লিংকে ক্লিক করে গুগল সার্চ কনসোলের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। এরপরে আপনি এই লিংকে ক্লিক করে আপনার সাইটের ডোমেইন ইউআরএল দিয়ে “জেনারেটর সাইট ম্যাপ “এ ক্লিক করুন তাহলে নিচে আপনার সাইটম্যাপের এক্স এম এল (XML)সাইটম্যাপ কোড চলে আসবে। এই কোডটি কপি করে আপনার “গুগল সার্চ কনসোলের” সাইট ম্যাপে গিয়ে পেস্ট করে সাবমিট করুন। তাহলেই আপনার সাইটটি গুগল সার্চ কনসোলে সাইটম্যাপ সাকসেসফুলি হবে।

    Robots.Txt Generator Tools:

    robot.txt জেনারেটর টুলস হচ্ছে আপনার পোস্টটি কে গুগলের রোবট এর মাধ্যমে পাঠকের কাছে রেংকিং করা বা বারবার তাদের সার্চ কনসোলে রেংক অবস্থায় শো করানো, এজন্য আপনার সাইটে অবশ্যই robot.txt জেনারেটর টুলসটি সেটাপ করে নিতে হবে।

    robot.txt টি কোড জেনারেট করতে এই লিংকে ক্লিক করুন, পরে ফিল্ডটি ওপেন হওয়ার পর, এখানে গিয়ে আপনি আপনার ডোমেইন নেমটি দিয়ে এন্টার প্রেস করুন। তাহলেই আপনি নিচে robot.txt জেনারেট কোডটি দেখতে পাবেন। এই কোডটি প্রথমে আপনি কপি করে আপনার সাইটের সেটিং অপশনে গিয়ে robot.txt বলে একটি অপশন রয়েছে সেখানে পেস্ট করুন। তাহলেই আপনার সাইটে robot.txt কোডটি সেটআপ হয়ে যাবে।robot.txt টি জেনারেট কোড সেটআপ করা ছাড়া, আপনি আপনার সাইটে কখনোই গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভে পাবেন না।

    FAQ Schema Generator Tools:

    FAQ স্কিমা হচ্ছে, আপনি যখন কোন কিছু নিয়ে” গুগলে সার্চ” করেন তখন আপনারা ওই পেজের নিচে দিকে আসলে দেখতে পাবেন যে, অনেক সময়ই সার্চকৃত প্রশ্নের অনেক আনসার এবং প্রশ্ন সেখানে শো করে, যেটার নাম গুগোল দিয়েছে “People also ask” আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের প্রতিটি পোস্টে আপনি FAQ পেজ সেটআপ করে নেন, তাহলে আপনি অর্ধেক ভিজিটর পাবেন এই FAQ Page থেকে ।এই জন্য এটি আমাদের জন্য বা ব্লগারদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি টুলস।

    এফএকিউ পেজ আপনার প্রতিটি পোস্টে সেট করার জন্য, প্রথমে আপনি এই লিংকে গিয়ে আপনার পোষ্টে দেওয়া কিছু টপিক এর প্রশ্ন এবং অ্যানসার রিপ্লাই করে নিচে দেওয়া Add Question অপশানে ক্লিক করুন এবং নিচে আসলে দেখতে পাবেন “কপি কোড “বলে একটি অপশন রয়েছে, এখান থেকে আপনি আপনার কোডটি কপি করে নেন এবং আপনার পোষ্টের এইচটিএমএল(HTML) কোড এর  সবার নিচের ঘরে গিয়ে এই কোডটি পেস্ট করুন  । তাহলেই আপনার FAQ পেজ আপনার পোস্টে অটোমেটিকলি তৈরি হয়ে যাবে।

    FAQ পেজ আপনার পোস্টে সঠিকভাবে সাবমিট হয়েছে কিনা, এটা চেক করার জন্য, এই লিংকে ক্লিক করুন এবং নতুন ফিল্ড আসার পরে সেখানে আপনার যে পোস্টটিতে faq পেজ সেটআপ করেছেন, সেই লিংকটি কপি করে পেস্ট করুন ।তাহলেই আপনি দেখতে পাবেন আপনার faq এ আপনার এই পোষ্টটিতে সাকসেসফুলি হয়েছে কিনা।

     Word Count Tools:

    ওয়ার্ড কাউন্ট টুলস এই টুলসের মাধ্যমে আপনি যে আর্টিকেলটির লিখে পোস্ট করবেন, সে আর্টিকেলটিতে কতটি ওয়ার্ড রয়েছে, সেটি চেক করে নিন।  কারন গুগল কখনোই 500 অথবা 1000 ওয়াডের নিচে ফাস্ট টাইম পোস্ট করলে সেটা গুগল এডসেন্স হয়না। এজন্য আপনি পোস্ট করার পূর্বে আপনার আর্টিকাল কত ওয়াটের সেটি এই লিংক থেকে চেক করে নিন।

    Plagiarism Checker SEO Tools:

    এই টুলসের মাধ্যমে আপনি আপনার আর্টিকেলটি কত পার্সেন্ট ইউনিক তা জানতে পারবেন। এজন্য আপনি আপনার আর্টিকেলটি লিখার পর কপি করে এই লিংকে ক্লিক করে পেস্ট করে আপনি আপনার আর্টিকেলটি যাচাই-বাছাই করে নিতে পারেন আপনার আর্টিকেলটি কত পার্সেন্ট ইউনিক।

    কারণ আপনার সাইটে যদি পোস্টগুলো হানডেট পারসেন অথবা 80 থেকে 90 শতাংশ ইউনিক না হয়ে থাকে তাহলে আপনি কখনোই গুগল এডসেন্স পাবেন না।

    অন্য পোস্ট:অনলাইনে ঘরে বসে নতুন ভোটার হওয়ার সহজ নিয়ম-২০২২

    Spell Checker Tools:

    এই টলুস টির মাধ্যমে, আপনার লেখা আর্টিকেলটি আপনি প্রথমেই Spelling Check  করে নিন। কারন আপনার পোস্ট ওয়ার্ডের মধ্যে কোন বানান ভুল আছে কিনা তা খুব সহজেই identify করতে পারবেন। কারণ আপনি যে আর্টিকেলটি লিখছেন তার ভিতরে অনেক রকম spelling error থাকতে পারে। সেজন্য আপনি এই টুলসটি ব্যবহার।টুলস লিংক

     

    Grammar Checker Tools:

    এই টুলসের মাধ্যমে আপনি আপনার আর্টিকেলটির পূর্ণাঙ্গ সবকিছু গ্রামার ঠিক আছে কিনা, তা সহজেই দেখে নিতে পারবেন। যদি আপনারা আর্টিকালের  ভিতরে কোন ভুল থাকে, তাহলে আপনি সহজেই এই টুলসের মাধ্যমে জানতে পারবেন এবং সমাধান করতে পারবেন, কারণ গুগোল আপনার আর্টিকালটি চেক দিয়ে থাকেন।এই লিংকে ক্লিক করুন

     

    আমি উপরে চেষ্টা করেছি একজন নতুন ব্লগার হিসাবে ব্লগিং শুরু করলে কোন কোন ধরনের টুলসের  নিয়ে আমাদের ব্যবহার করা দরকার।তাই আশা করছি উপরে উল্লেখিত টুলস গুলির যদি কেউ বাস্তব অর্থে ব্লগিং শুরু করার আগে এবং ব্লগিং শুরু করে ব্যবহার করে, তাহলে অবশ্যই সে এক মাসের মধ্যে গুগল অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবে এটা আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা।

    এছাড়াও যদি উপরের টুলসগুলো আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ সাইটে ব্যবহার করতে কোন সমস্যা হয় তাহলে আমাদের এই পোষ্টের কমেন্ট সে কমেন্টস করুন আমরা খুব দ্রুত আপনাকে লাইভ চ্যাটের মাধ্যমে ফ্রি সার্ভিস দিব ইনশাল্লাহ।

    pp

    তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক লেখালিখি করি। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, SS IT BARI-আমার হাতেখড়ি। তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিশ্লেষণ বাংলায় জানতে ভিজিট করুন http://ssitbari.com

    ৩ comments

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.