কদরের নামাজের নিয়ম-লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব ও ফজিলত

রমজান মাসের শেষ দশ দিনের যে কোনো বেজোড় রাত হলো শবেকদর। তবে শবেকদর সাধারণত ২৭ রমজানের রাতে পালিত হয়। রাতের কোন এক সময় পৃথিবীর সকল জড় বস্তু, গাছপালা ইত্যাদি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য সিজদা করে।

More Post:একদিনের মধ্যে ঘুরে আসার জন্য ঢাকার পাশের দর্শনীয় স্থান

কদরের নামাজের নিয়ম

কদরের নামাজের নিয়ম

রাতে ফেরেশতারা পৃথিবীতে আসেন মানুষের ইবাদতবন্দেগি পালন করতে এবং তাদের শান্তি কামনা করেন। তাই রাতে জেগে থেকে কুরআন তিলাওয়াত, নফল নামাজ, দোয়াদুরুদ, জিকির ইত্যাদি করা প্রত্যেক মুসলমানের একমাত্র কর্তব্য।

শবে কদরের নামাজের নিয়ত

নাওয়াইতু আন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা রাকাতাই ছালাতিল লাইলাতিল কাদরি নফলে মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কাবাতিশ শরিফতিআল্লাহু আকবার।

অর্থ: আমি কাবামুখী হয়ে আল্লাহর (সন্তুষ্টির) জন্য শবে কদরের দুই রাকআত নফল নামাজ পড়ার নিয়ত করলামআল্লাহু আকবর।

শবেকদরের নামাজ পড়ার নিয়ম

শবেকদরের নামাজ দুই রাকাত চার রাকাত করে আদায় করতে হয়। তারপর যত খুশি নফল নামাজ পড়তে পারবেন। এই নামাজের প্রতিটি রাকাতে সূরা ফাতিহার পর সূরা কদর একবার এবং সূরা ইখলাস তিনবার পড়তে হবে।

নামাজের পর নিম্নোক্ত দোয়াটি কমপক্ষে ১০০ বার পাঠ করা উত্তম

সুবহানাল্লাহি ওয়াল হামদু লিল্লাহি ওয়া লাইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়ালাহু আকবার, লা হাওলা কুয়াতা ইল্লাবিল্লাহিল্লাহ আলিয়িল আজিম।

লাইলতুল কদরএকটি আরবি শব্দ। শবে কদর লাইলাতুল কদরের ফারসি শব্দ। কয়েক শতাব্দীর মুঘল শাসন এবং উপমহাদেশে ফারসি রাজকীয় ভাষার উপস্থিতির কারণে ধর্ম, সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং ন্যায়বিচারের অনেক ফার্সি শব্দ আমাদের সংস্কৃতির সমার্থক হয়ে উঠেছে। লায়লাতুল কদরের ফার্সি পরিভাষা, যেমনসালাত‘-এর পরিবর্তে নামাজ এবংসাওম‘-এর পরিবর্তে রোজা, সাধারণ মানুষের কাছে এতটাই পরিচিত।

শব মানে রাত, আর আরবি লাইলাতুন শব্দের অর্থও রাত বা রাত। কদর মানে সম্মানিত, মহিমান্বিত। তাই লাইলাতুল কদর মানে সম্মানিত রাত বা মহিমান্বিত রাত।

লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব ফজিলত

লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব পবিত্র কুরআন সহীহহাদিস দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। লাইলাতুল কদরের ব্যাপারে শবে বরাত এবং শববরাতের হাদিস বর্ণনার ব্যাপারে হাদীস বিশারদ ফকীহদের মধ্যে যে সংশয় রয়েছে, তার কোনো অবকাশ নেই। পবিত্র কুরআন, নির্ভরযোগ্য হাদিস এবং লাইলাতুল কদরের জন্য রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর গৃহীত পদক্ষেপের মাধ্যমে লাইলাতুল কদরের গুরুত্ব বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

এই মর্যাদাপূর্ণ রাতের গুরুত্ব সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন, ‘আমি এটি (কুরআন) কদরের রাতে নাজিল করেছি। আপনি কি জানেন কদরের রাত কি? কদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম‘ (সূরা কদর : ) এই রাত কোন মাসের?

প্রসঙ্গে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, ‘রমজান মাস যে মাসে কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে’ (বাকারা : ১৮৫) রমজানের এই রাতটি কোন তারিখে? রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রহস্যজনক কারণে তারিখটি উল্লেখ করেননি। ইমাম বুখারী, ইমাম মুসলিম, ইমাম আহমাদ ইমাম তিরমিযী কর্তৃক বর্ণিত হাদীসে হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন:

হজরত আবু বকর হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসেও অনুরূপ তথ্য পাওয়া যায়। যাইহোক, কিছু ইসলামী পন্ডিত, তাদের নিজস্ব ইজতিহাদ, গবেষণা, গাণিতিক বিশ্লেষণ ইত্যাদির মাধ্যমে, 27 রমজানের রাতে (অর্থাৎ রমজানের 27 তারিখের দিবাগত রাত) শবকদরের উজ্জ্বল সম্ভাবনার উপর জোর দিয়েছেন। কিন্তু নবী (সাল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়া সাল্লাম) তা নির্দিষ্ট করেননি বরং কষ্ট করে খুঁজে বের করতে বলেছেন।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন: “ফেরেশতাগণ এবং রূহ (জিব্রাইল) তাদের পালনকর্তার অনুমতিক্রমে সমস্ত আদেশ সহ সম্পূর্ণ শান্তি ও নিরাপত্তার ভোর পর্যন্ত অবতরণ করেন।” (সূরা কদর: 4-5)

লাইলাতুল কদরের ফজিলত নিম্নরূপ:

এই রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তমউত্তম (কুরআন)

রাতে পবিত্র কোরআন নাজিল হয়েছে। (কুরআন)

সেই রাতে একজন ফেরেশতা নেমে আসেন এবং আবেদ ক্রীতদাসদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন।

এই রাতে ফজর পর্যন্ত সম্পূর্ণ শান্তি নিরাপত্তা (কুরআন)

রাতে প্রতিটি বিষয়ে অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত দৃঢ় রায় জারি করা হয়। (কুরআন)

রাতে অবতীর্ণ ফেরেশতারা ইবাদতে নিয়োজিত বান্দাদের জন্য দোয়া করেন। (হাদিস)

গুনাহ মাফ: ‘যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং আল্লাহর কাছে মহান কল্যাণ লাভের আশায় লাইলাতুল কদরে ইবাদতের জন্য দাঁড়ায়, তার পেছনের সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে।’ (বুখারিমুসলিম)

রাতে হতভাগ্য ব্যক্তি ছাড়া কেউ কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হয় না। (ইবনে মাজাহমিশকাত)

 কিয়ামুল লাইল

কিয়ামুল লাইলঅর্থ রাত জাগরণ। মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য স্বেচ্ছায় বিশ্রামের ঘুম হারাম করে রাতে ইবাদত করা আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের অন্যতম ফজিলত। মহান আল্লাহ তাঁর প্রিয় বান্দাদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন এভাবে: “তারা তাদের পালনকর্তার সামনে সিজদা দাঁড়িয়ে রাত কাটায়।” (সূরা ফুরকান : ৭৪)

মুসনাদে আহমদ তার কিতাবে হযরত ওবায়দা ইবনে সামেত থেকে বর্ণিত একটি হাদিস উদ্ধৃত করেছেন– ‘হুজুর পাক (সাঃ) বলেছেনকদরের রাত রমজান মাসের শেষ দশ রাতে। যে ব্যক্তি তার সৌভাগ্যের জন্য ইবাদতের জন্য দাঁড়ায়, আল্লাহ তার অতীত বর্তমান গুনাহ মাফ করে দেন।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমজানের শেষ দশ দিন মসজিদে অবস্থান করতেন এবং ইবাদতে মনোনিবেশ করতেন। তাই আমরা কোনো বিশেষ রাত নির্দিষ্ট করি না, তবে হাদিস অনুযায়ী অন্তত রমজানের শেষ দশদিনে আমরা লাইলাতুল কদরের সৌভাগ্য লাভের আশায় ইবাদতে মগ্ন থাকি। নবী (সাল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃযে ব্যক্তি রাত থেকে বঞ্চিত হবে সে সকল কল্যাণ বরকত থেকে বঞ্চিত হবে। একমাত্র দুর্ভাগা ব্যক্তিই এর কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হয় না। ‘(মিশকাত)

আজ রাতে আমাদের যা করতে হবে

কুরআন অধ্যয়ন: এই রাতে পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে। মানব জাতির এই মহান নেয়ামতের কারণে রাতের এত মর্যাদা ফজিলত রয়েছে। এই কুরআন ধারণ করলেই মানুষ সম্মানিত হবে, দেশ জাতি মর্যাদাবান হবে; বদলে যাবে পুরো জাতির ভাগ্য। তাই রাতে অর্থ বুঝে কুরআন পাঠ করতে হবে। ব্যক্তি সমাজের জীবনে কুরআনের শিক্ষাকে প্রতিষ্ঠিত করার শপথ নিতে হবে। নির্বাচিত আয়াত আজ রাতে মুখস্থ করা যাবে. যাদের কুরআনের প্রয়োজনীয় জ্ঞান আছে তারাও রাতে দরস প্রস্তুত করতে পারেন।

তিলাওয়াতের নিয়মঃ কমপক্ষে রাকাত যথাসম্ভব পড়া যাবে। তাই সাধারণ সুন্নতের নিয়ম অনুযায়ী দুই রাকাত নফল পড়ার নিয়তে নামাজ শুরু শেষ করতে হয়। জন্য আপনার জানা যেকোনো সূরাকে সূরা ফাতিহার সাথে মিলিয়ে নিতে হবে। বাজারের জনপ্রিয় কিছু বইয়ে সূরা কদর ৩৩ বার, ইখলাস ৩৩ বার ইত্যাদি উল্লেখ করে অপ্রয়োজনীয় জটিলতা সৃষ্টি করা হয়েছে।

সালাতুল তওবা, সালাতুল হাজত, সালাতুল তাসবিহ নামাজও পড়তে পারেন। এগুলোর নিয়ম আপনি মাসআলার কিতাবে পাবেন। রাতের শেষভাগে অন্তত রাকাত তাহাজ্জুদ পড়ার চেষ্টা করতে হবে। কেননা এই নামায হল সর্বশ্রেষ্ঠ উর্ধ্বতন প্রার্থনা। আর এই অংশে রাতের দোয়া কবুল হয়। উচ্চতর প্রার্থনার সংখ্যার চেয়ে আমাদের প্রার্থনার গুণমানের দিকে বেশি মনোযোগ দিতে হবে।

জিকির দোয়াঃ হাদীসে বর্ণিত কিছু দো জিকির অধিক ফযীলতপূর্ণ এবং অর্থ নির্বাচন করে বারবার পাঠ করা যায়। ইস্তেগফার (ক্ষমা প্রার্থনা) দরুদ আল্লাহর কাছে অত্যন্ত প্রিয়। ইসতেগফার কমপক্ষে 100 বার এবং 100 বার দরুদ পড়া যায়। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে বললাম, হে আল্লাহর রাসূল!

উত্তরে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “এই সালাত পাঠ করা হবে। অর্থাৎ, ‘হে আল্লাহ, আপনি পরম ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। আপনি ক্ষমা করতে পছন্দ করেন। তাই আমাদের গুনাহ মাফ করে দিন।

প্রার্থনা: ইবাদত বান্দার ইবাদত এবং আল্লাহর দেবত্ব প্রকাশ করে। গোলাম তার প্রভুকে খোঁজে। প্রভু খুব খুশি হলেন। মহান আল্লাহ তাঁর বান্দার প্রতি এতটাই দয়ালু যে তিনি তাঁর কাছে না চাইলে তিনি তাঁর প্রতি অসন্তুষ্ট হন।যে আল্লাহর কাছে কিছু চায় না আল্লাহ তার প্রতি রাগান্বিত হন’ (তিরমিযী)দোআ ইবাদতের মূল’- (আলহাদিস) অতএব, আমরা সর্বদা আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করব, আমরা ক্ষমা চাইব, আমরা রহমত চাইব, আমরা জাহান্নাম থেকে মুক্তি চাইব।

উপরোক্ত সময়ের মাধ্যমে আমরা এই পবিত্র রাতগুলো কাটাতে পারি। লাইলাতুল কদর পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা যদি আমরা আন্তরিকভাবে অনুসন্ধান করি তাহলে আল্লাহ আমাদের বঞ্চিত করবেন না ইনশাআল্লাহ। অবশ্য ঘরের মধ্যে নীরবে ইবাদত করা মাসনুন। এভাবে আমাদের ইবাদত রিয়া (দেখানো ইচ্ছা) অনিষ্ট থেকে রক্ষা পাবে। এই পবিত্র রাতে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত কাজ হতে দেখা যায়। এগুলো বন্ধে গঠনমূলক পদক্ষেপ নিতে হবে।

মহিমান্বিত লাইলাতুল কদর: আজ হাজার মাসের শ্রেষ্ঠ পবিত্র লাইলাতুল কদর। লাইলাতুল কদর শবে কদর নামেই বেশি পরিচিত। প্রকৃতপক্ষে, শবে কদর আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে বান্দাদের জন্য একটি বড় নেয়ামত। শবে কদর প্রাপ্তি একজন মুমিন জীবনের অন্যতম শ্রেষ্ঠ অর্জন। রাতের রয়েছে অপরিসীম গুরুত্ব, অমূল্য মর্যাদা অনেক বৈশিষ্ট্য।

মহান আল্লাহ এই মহিমান্বিত রাতে পবিত্র কোরআন নাজিল করেছেন; হেরা পাহাড়ের গুহায় ধ্যানরত মুহাম্মাদ (সাঃ) এর কাছে প্রথম শব্দটি ছিলইকরা বিসমি রাব্বিকাল্লাজি খালাক

রাতের মাহাত্ম্য বর্ণনা করে আল্লাহ পাক পবিত্র কোরআনের সূরা কদরে বলেছেন, ‘লাইলাতুল কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহর অর্থাৎ রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম। রাতের শেষভাগে আল্লাহতায়ালা আসমানে এসে বান্দাদের উদ্দেশে বললেন, ‘তোমাদের মধ্যে এমন কে আছে যে আমার নাজাত চায়? কল্যাণ চান? তোমাদের মধ্যে কারা মুক্তি চায়? ‘

রাতের কোরআন তেলাওয়াতের বিশেষ ফজিলত রয়েছে। এই পবিত্র রাতে মহাগ্রন্থ আলকুরআন অবতীর্ণ হয়। কারণেই কোরআনের সঙ্গে রাতের সম্পর্ক নিবিড়। অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে তেলাওয়াতের ফজিলত হলো রাতে আত্মসমালোচনা বা আত্মবিচারের বিশেষ সময়। আমরা নিজেদেরকে পর্যালোচনা করি যে আমরা কতবার পিছনে ফেলে আসা দিনগুলিতে ঈশ্বরের আদেশ অমান্য করেছি।

pp

তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক লেখালিখি করি। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, SS IT BARI-আমার হাতেখড়ি। তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক বিশ্লেষণ বাংলায় জানতে ভিজিট করুন http://ssitbari.com

০ comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.