বাত ব্যাথির কারণ এবং ঝুঁকি সমূহ (বিস্তারিত তথ্য)-Bangla Healthy Tips

বাত ব্যাথির কারণ-বাত রোগ নিয়ে অনেকের মধ্যেই অনেক ধরনের আতঙ্ক রয়েছে। বাথ রোগ অতি পরিচিত একটি রোগ যা বিভিন্ন কারণে হয়ে বিভিন্ন ধরনের জটিলতা সৃষ্টি করে থাকে। বাতের ব্যাধি নিয়ে নতুন করে পরিচিত করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। এই রোগের আক্রান্ত সংখ্যা অনেক বেশি বিশেষ করে বাংলাদেশে অনেক রোগী রয়েছে বাত রোগে আক্রান্ত।

আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা বাতের ব্যাধির কারণ এবং এই রোগে আক্রান্ত হলে ঝুঁকি সমূহ কি হতে পারে সেই সম্পর্কে আলোচনা করব এবং এই বিষয়গুলি আপনাদের মাঝে স্পষ্ট ভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব। তাই সমস্ত বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানতে হলে আজকের আর্টিকেলটি অবশ্যই মনোযোগ দিয়ে পড়বেন এবং আমাদের সাথে থাকবেন।বাত ব্যাথির কারণ এবং ঝুঁকি সমূহ

বাত ব্যাধি কি

বাত হল মূলত অস্থি সন্ধির প্রদাহ যা একবার একাধিক অস্থির সন্ধিকে আক্রান্ত করে। এটা শিল্পোন্নত দেশে ৫০ থেকে ৫৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের মানুষের অক্ষমতার মূল কারণ। বাত কথাটি ব্যাপক অর্থবহ এবং বহুদূর পর্যন্ত প্রসারিত এটি একটিমাত্র রোগ নয় বরং একই পরিবারভুক্ত অনেকগুলো রোগের সমষ্টি। প্রায় ১০০ টি বিভিন্ন ধরনের রোগ নিয়ে হয়। এই রোগে প্রধানত অস্থি সন্ধি আক্রান্ত হলেও হাড়ের প্রদাহ, ক্ষয় রোগ, লিগামেন্ট ও টেন্ডনের ব্যথা, মাংসপেশির ব্যথা মেরুদন্ডের প্রদাহ হয় আরষ্টতা এগুলো বাত রোগেরর পর্যায়ে পড়ে।

বাত রোগের প্রকারভেদ

বাত রোগে কতগুলো রোগ একত্রিত হয়ে এই রোগের সৃষ্টি করে। তাই জানতে হবে অবশ্যই বাত রোগে কোন রোগগুলো একত্রিত হয়ে সৃষ্টি হয়।

১) সন্ধি বাত/ গাট -ফোলানো বাত।

২) অস্টিওআর্থ্রাইটিস অস্থি সংযোগ গ্রন্থি প্রদাহ।

৩) গেটে বাত।

৪) কুটি বাত বা কোমর প্রদাহ।

৫) মেরুদন্ড প্রদাহ বা স্পন্ডিলাইটিস।

৬) ছায়াটিকা বা কুটিস্নায়ুশুল।

৭) আম বাত /আর্টিকেরিয়া/ এলার্জি।

৮) বাতজ্বর।

৯) সংক্রামক বাত /সেপটিক আর্থ্রাইটিস।

এছাড়াও ঘাড়ের বাত‌ স্কন্ধ বাত পার্শ্ববাত এগুলো বাথরুমের আওতার মধ্যে পড়ে।

বাত ব্যাধির কারণ ঝুঁকি সমূহ

বাত ব্যাধির প্রকৃত কারণ উদঘাটন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কষ্টসাধ্য। কেননা অনেকগুলো কারণে এই রোগ সমূহের উদ্ভব ও হতে পারে। তবে নিম্মুক্ত কারণসমূহ বাত রোগের ঝুঁকি বাড়ায়;

আঘাত

পূর্ববর্তী বড় ধরনের কোন আঘাত বাতিল কারণের অংশ হতে পারে।

অপুষ্টি

প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজের অভাবে বিশেষত্ব ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকলে এই রোগের সৃষ্টি হতে পারে।

বয়স

বয়স বাড়ার সাথে সাথেতরুণাস্থি ভঙ্গুর হয়ে পড়ে এবং এর পুনর্গঠন এর ক্ষমতাও কমে যায়। তাই বয়স বাড়ার সাথে বাত‌‌ রোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বাড়ে।

অতিরিক্ত ওজন

অস্থিসন্ধি ক্ষয় খানেরটা শরীরের বাড়তি ওজনের সাথে সম্পৃক্ত। অতিরিক্ত ওজন জয়েন্ট গুলোর উপর অতিরিক্ত চাপ স্থাপন করে। তাই স্থূলকায় ব্যক্তিরা সাধারণত বাত রোগে বেশি ভোগেন।

ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ

কতিপয় ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ যেমন ক্লিবোসিলা ও এলার্জি স্বল্পমেয়াদি বাত ব্যথার উদ্ভব ঘটাতে পারে। সংক্রমণের কারণে সংঘটিত বাত‌ রোগকে রিএক্টিভ আর্থ্রাইটিস বলে।

এলার্জির লক্ষণ ও প্রতিকার- এলার্জি রোগের কারণ (স্বাস্থ্য টিপস)

বংশগতি

বাত রোগের বংশগতির প্রকৃত ভূমিকা কি তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। তবে এতে বংশগতির যে সুস্পষ্ট প্রভাব আছে সে বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা একমত।

বাত‌ রোগের লক্ষন উপসর্গ

যদিও বাত বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। সব বাত রোগের সাধারণ উপসর্গ হলো বিভিন্ন মাত্রার ব্যথা, অস্থি সন্ধির ফোলা, শক্ত হয়ে যাওয়া, আরোষ্ঠতা এবং গিঠের চারপাশের স্থায়ী যন্ত্রণা অন্যান্য উপসর্গসমূহ হলো-

১) হাত ব্যবহারে অক্ষমতা।

২) হাটতে অক্ষমতা।

৩) অসাচ্ছন্দ্য ছন্দ এবং গ্লানি বোধ।

৪) ওজন কমে যাওয়া।

৫) পেশির ব্যথা ও দুর্বলতা।

৬) পরিমিত ঘুম না হওয়া।

বাত‌ রোগ তত্ত্ব

অস্থির সন্ধি হলো দুটো হাড়ের যুগ্ম অবস্থান। এটি দুই ধরনের হতে পারে।

১) অচল বা সামান্য সঞ্চালনক্ষম অস্থি সন্ধি গহ্বরশুন্য অস্থি সন্ধি।

২) সঞ্চালন ক্ষম অস্থি সন্ধি/ সাইনোভিয়াল অস্থি সন্ধি/ গহ্বর যুক্ত অস্থি সন্ধি।

শরীরের ভেতরের সচল অস্থি সন্ধি সমূহে যেমন হাত পায়ের আঙ্গুল হাটু কব্জি, গোড়ালি ইত্যাদিতে যে হাড়দ্বয় যুক্ত থাকে তাদের যুক্ত প্রান্তে তরুণাস্থি থাকে। এই তরুণাস্থি হাড়দ্বয়ের সঞ্চালনজনিত ঘর্ষণ প্রতিহত করে। ফলে দৈনন্দিন জীবনে স্বাভাবিক অস্থির সন্ধি সঞ্চালন হয় বেদনাহীন। কোন কারণে তরুণাস্থির অবক্ষয় হলে তা অস্থি সন্ধির সঞ্চালনের যন্ত্রণা সৃষ্টি করে।

এই অস্থি সন্ধি গুলো আবার এক বিশেষ ধরনের ঝিল্লি দ্বারা আবৃত থাকে এবং অন্তঃস্থ অংশটি ঝিল্লির রস বা সাইনোভিয়াতে পরিপূর্ণ থাকে।এই রস অস্থি তরোনাস্থির পুষ্টি যোগায়। আর লিগামেন্ট মাংসপেশির সাথে অস্থিগুলোকে সংযুক্ত করে। বাত‌ রোগে এই ঝিল্লি ঝিল্লির রস লিগামেন্ট ও বিভিন্নভাবে যেমন শরীরের প্রতিরক্ষা উপাদান ভাইরাস ব্যাকটেরিয়া ইত্যাদি দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে।

বাত রোগের চিকিৎসা

অস্থি সংযোগ গ্রন্থি প্রদাহ সন্ধি বাক ও অ্যাঙ্কা‌ইলোজিং স্পন্ডাইলাইটিসএর কোনো প্রতিকার নেই অন্যান্য বাথরুমে চিকিৎসা নির্ভর করে রোগের ধরণের উপর যার মধ্যে আছে ফিজিওথেরাপি জীবনধারণ পদ্ধতির পরিবর্তন ব্যায়াম ওষুধ প্রয়োগ ইত্যাদি।

এ সকল চিকিৎসা রোগের লক্ষণ ও উপসর্গের উন্নতির সাধনের সাথে সাথে রোগের বিস্তার কেউ সীমিত করে।

বাত রোগের চিকিৎসা নির্ভর করে রোগের ধরনের ওপর যার মধ্য আছে

১) ফিজিওথেরাপি।

২) জীবন ধারণ পদ্ধতি পরিবর্তন।

৩) ব্যায়াম।

৪) ওষুধ প্রয়োগ ইত্যাদি।

ড্রাগ থেরাপি

১) ব্যাথা নাশক ঔষধ।

২) প্রদাহ বিরোধী ঔষধ।

৩) অ্যান্টি রিউমেটিক ড্রাগস।

ব্যাথা নাশক ওষুধের মধ্যে রয়েছে

১) অ্যাসপিরিন।

২) আইবো প্রফেন।

৩) কিটো প্রোফেন।

৪) ডাই ক্লোফেনাক সোডিয়াম।

৫) ন্যাপ্রোক্সেন।

৬) পাইরক্সিকাম ইত্যাদি।

D M A R D জাতীয় ঔষধ গুলোর মধ্যে সচরাচর রোগীদের দেওয়া হয়:

১) গোল্ড (সোডিয়াম আর্থিওম্যালেট)।

২) পেনিসিলামাইন।

৩) সালফাস্যালাজিন।

৪) ক্লোরো কুইন।

৫) ড্যাপশন ও লিভামিসল।

সচরাচর জিজ্ঞাসা

বাত রোগের সাথে অন্যান্য রোগের সম্পৃক্ততা আছে কি?

উত্তর: একটিমাত্র রোগ নয় বরং একই পরিবারভুক্ত অনেকগুলো রোগের সমষ্টি হল বাত রোগ। প্রায় ১০০ টি বিভিন্ন ধরনের রোগ নিয়ে এই বাত রোগ।

বংশগত কারণ কি বা রোগের জন্য দায়ী?

উত্তর: বাথরুমে বংশগতির প্রকৃত ভূমিকা কি তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। তবে এতে বংশগতির যে সুস্পষ্ট প্রভাব আছে সে বিষয়ে জানা গেছে।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন

বাতের ব্যথা দূর করতে ব্যায়াম কতটুকু দরকার?

উত্তর: ব্যায়াম বা নিয়মিত শরীর চর্চার শরীরকে ফিট রাখে। বাতের ব্যথা প্রতিরোধ করতে ব্যায়াম খুবই জরুরী।

শেষ কথা

সম্মানিত পাঠক পাঠিকা বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি বাত রোগের লক্ষণ এবং ঝুঁকি সমূহ সম্পর্কে। আপনারা এতক্ষণ আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ে নিশ্চয়ই এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। আমাদের ওয়েবসাইটে আরও বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল পেতে অবশ্যই নিয়মিত ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন।

কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। আর অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন এবং আমাদের সাথে থাকবেন। আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি। সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।

পোস্ট ট্যাগ-

কি খেলে বাতের ব্যথা বাড়ে,বাত ব্যথা থেকে মুক্তির উপায়,বাতের ব্যথার লক্ষণ,বাত ব্যাথার লতাপাতা ঔষধের নাম,বাত ব্যাথার ঔষধের নাম বাংলাদেশ,রস বাতের লক্ষণ,বাত হলে কি কি খাওয়া উচিত নয়,রস বাতের ঔষধ।

আপনার জন্য আরো 

আপনার জন্য-

অ্যাজমা রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা 

থাইরয়েড রোগ থেকে মুক্তি পেতে করণীয়

চর্মরোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার কার্যকারী চিকিৎসা

যক্ষা বা টিবি রোগের লক্ষণ

ক্যান্সার রোগের যেসব লক্ষণ এড়িয়ে যাবেন না

শ্বেতী রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা সম্পর্কে জেনে নিন

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

 

প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এখানে ক্লিক করুন।
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে :এখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।

SS IT BARI- টুইটার থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- লিংকদিন থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- ইনস্টাগ্রাম থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুম্বলার (Tumblr)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে :এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- পিন্টারেস্ট (Pinterest)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম