নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম (সর্বোচ্চ বোনাস সহ)-2022

বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম : আজকের আর্টিকেলটি পড়ার পর আপনি মাত্র 5 মিনিটে ঘরে বসে আপনার মোবাইলে একটি নতুন বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। এবং একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে আপনি বিকাশে সর্বোচ্চ বোনাস টাকা ফ্রি পাবেন। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক বিকাশ খোলার নিয়ম।

Post-সব সিমের ইন্টারনেট ব্যালেন্স চেক।সব সিমের ইমারজেন্সি ব্যালেন্স 

2022 4 1794161031

নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কারণে বিকাশ, জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম খুবই সহজ। একজন গ্রাহক বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে একটি নতুন বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এছাড়াও আপনি বিকাশ ওয়েবসাইট থেকে ঘরে বসে একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন ,আপনি বিকাশ এজেন্ট বা কাস্টমার কেয়ারে গিয়েও বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।
বিকাশ ব্যালেন্স চেক কোড-2022

  • ·        একটি সক্রিয় মোবাইল নম্বর প্রয়োজন হবে।
  • ·        বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে আপনার একটি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন এবং একটি ইন্টারনেট সংযোগ প্রয়োজন।
  • ·        একাউন্ট খোলার সময় যে ব্যক্তি এনআইডি কার্ড দিয়ে একাউন্ট তৈরি করবেন তা সাথে রাখতে হবে।
  • ·        এজেন্ট হতে ইচ্ছুক ব্যক্তির 2টি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • ·        জাতীয় পরিচয়পত্র/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স।
  • ·        ট্রেড লাইসেন্স (বাধ্যতামূলক)
  • ·        ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিকানা।
  • ·        যোগাযোগের নম্বর এবং ঠিকানা।

বিকাশ আসলে কি?

বিকাশ বাংলাদেশের একটি মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবা। বিকাশের মাধ্যমে আপনি একজন গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট থেকে অন্য গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে বা গ্রহণ করতে পারেন। তাছাড়া বিকাশের মাধ্যমে গ্রাহকরা বিদ্যুৎ বিল, ডিসকো বিল এবং কেনাকাটাসহ বিভিন্ন সুবিধা পেয়ে থাকেন। এটি একটি ব্র্যাক ব্যাংক, বিশ্বব্যাংকের অধীনে একটি আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক মানি ইন মোশন, বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন, বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন এবং অ্যান্ট ফাইন্যান্সিয়ালের মধ্যে একটি যৌথ উদ্যোগ। 2011 সাল থেকে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক একটি নিয়ন্ত্রিত পেমেন্ট সেবা প্রদানকারী হিসেবে বিভিন্ন ধরনের মোবাইল/ডিজিটাল আর্থিক সেবা নিয়ে আসছে।

আরও পড়ুন

টেলিটক সিম অফার I Last Update

বিকাশ একাউন্ট খোলা একটি সহজ ব্যাপার। কীভাবে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলবেন তা জানতে এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার নিজের বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এর জন্য প্রয়োজন হবে

 ·        আপনার একটি NID কার্ড লাগবে। (এছাড়াও অনলাইন কপি দিয়ে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন)

 বিকাশ একাউন্ট খোলার সুবিধা

 বর্তমানে একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট থাকার অনেক সুবিধা রয়েছে। আপনি ঘরে বসে একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন এবং বিকাশের সমস্ত সুবিধা উপভোগ করতে পারেন। বিকাশ একাউন্ট খোলার সুবিধা হলঃ

 সুবিধা -1

টাকা জমা: বিকাশ একটি ডিজিটাল ওয়ালেট হিসাবে কাজ করে। ব্যাংকবিহীন নগদ ব্যবস্থা হওয়ায় উন্নয়নে অর্থ জমা করার প্রক্রিয়া খুবই সহজ।

সুবিধা -2

টাকা পাঠানো: অবশ্যই বিকাশ ব্যবহার করে টাকা বিনিময় করা যায়। বিকাশ ব্যবহার করে যেকোনো স্থান থেকে দেশের অন্য যেকোনো স্থানে টাকা পাঠানো খুবই সহজ।

সুবিধা -3

টাকা উত্তোলন: বিকাশ অ্যাকাউন্টে থাকা টাকা যে কোনো সময়ে এজেন্টের কাছ থেকে ক্যাশআউট করা যেতে পারে। বিকাশে ব্রাচ ব্যাংকের এটিএম থেকেও টাকা তোলা যাবে।

সুবিধা -4

বিকাশ অ্যাপ ওয়েলকাম অফারপ্রতি সপ্তাহে বোনাস!

প্রথমবার অ্যাপে লগ ইন করলে 20 টাকা বোনাস

·        ১ম সপ্তাহে বার অ্যাপে লগ ইন করলে ১০ টাকা বোনাস।

·        2য় সপ্তাহে আপনার মোবাইল রিচার্জ করলে 15 টাকা পর্যন্ত বোনাস।

·        3য় সপ্তাহে কুইজের উত্তর দিলে আপনি 10 টাকা বোনাস পাবেন।

·        4র্থ সপ্তাহে 15 টাকা পাঠানোর জন্য 15 টাকা বোনাস।

·        5 সপ্তাহে যেকোনো লেনদেনে 25 টাকা বোনাস।

·        6ষ্ঠ সপ্তাহে দেওয়া হলে 30 টাকা বোনাস।

·        ৮ম সপ্তাহে বিল পরিশোধ করলে ৩৫ টাকা বোনাস পাবেন।

·        ক্যাম্পেইনের বিস্তারিত

সুবিধা -5

মোবাইল রিচার্জঃ বিকাশ একাউন্ট থেকে সহজেই আপনার মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন। মোবাইল রিচার্জের জন্য কোন ফি প্রযোজ্য নয়। অর্থাৎ বিকাশ থেকে মোবাইল রিচার্জ করা যাবে কোনো অতিরিক্ত ফি ছাড়াই।

সুবিধা -6

কেনাকাটা: বিভিন্ন পণ্য এবং পরিষেবা ক্রয়ের খরচ সহজেই বিকাশের জন্য পরিশোধ করা যেতে পারে। এছাড়াও, ইন্টারনেট থেকে যেকোন ক্রয়ের জন্য বিকাশের জন্য অর্থ প্রদান করা যেতে পারে।

সুবিধা -7

অন্যান্য: বিকাশ ব্যবহার করে, আপনি বিদেশ থেকে রেমিট্যান্স গ্রহণ, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ, গাড়ির টিকিট কেনার মতো আরও অনেক সুবিধা উপভোগ করতে পারেন।

সুবিধা -8

বিকাশ অফার: বিকাশে সবসময় বিভিন্ন অফার, বোনাস এবং ক্যাশব্যাক ক্যাম্পেইন থাকে।


বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম how to Open Bkash account

আপনি যদি ঘরে বসে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে চান তবে প্রথমে লিঙ্ক থেকে বিকাশ অ্যাপটি ডাউনলোড করুন। বিকাশ অ্যাপস ডাউনলোড করুন: Click Here

তারপর নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন। ঘরে বসে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম:

Step-1: আপনার ফোনে অ্যাপস ইন্সটল করার পর বিকাশ অ্যাপটি খুলুন। তার আগে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ইন্টারনেট সংযোগ দিন। এখন আপনি নীচের ধাপগুলি অনুসরণ করে একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।

Step-2: বিকাশ অ্যাপটি খুলুন এবংলগইন/রেজিস্ট্রেশনবোতামে ক্লিক করুন

Step-3: লগইন/রেজিস্ট্রেশন বাটনে ক্লিক করার পর পরের পেজে, যে নম্বর দিয়ে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে চান সেটি লিখুন, তারপর পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন।

Step-4: তারপর আপনার মোবাইল নম্বরের অপারেটর নির্বাচন করুন এবং পরবর্তী বোতামে ক্লিক করুন।

Step-5: আপনার মোবাইল নম্বর যাচাই করার জন্য আপনার প্রদত্ত নম্বরে একটি OTP কোড পাঠানো হবে। উল্লেখ্য, বিকাশ যে ফোনে খুলছে সেই ফোনে সিমটি সক্রিয় থাকতে হবে।

Step-6: OTP কোড বার্তা আসার সাথে সাথে বিকাশ অ্যাপটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে কোডটি গ্রহণ করবে ,OTP CODE চলে গেলে, “Confirm করুন Click করুন।

Step-7: তারপর জাতীয় পরিচয়পত্র অর্থাৎ NID কার্ডের উপরের পৃষ্ঠার একটি ছবি তুলুন এবং সাবমিট করুন এবংজমা দিন ক্লিক করুন।

Step-8: তারপর অন্য পৃষ্ঠার একটি ছবি তুলুন এবং আবারজমা দিন ক্লিক করুন।

Step-9:তারপর জমা দেওয়া এনআইডি কার্ডে যার ছবি আছে তাকে ফোনে একটি সেলফি তুলতে হবে যা পরিচয় যাচাইয়ের জন্য ব্যবহার করা হবে।

Step-10:মুখের ছবি তুলে জমা দিলেই বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা হবে।

বিকাশ একাউন্টের নিরাপত্তা রক্ষায় করণীয়

বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার সময় কিছু নিয়ম মেনে চলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি বিকাশ অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা রক্ষা করা সম্ভব করে তোলে। আসুন জেনে নিই বিকাশ অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা রক্ষায় অনুসরণীয় নিয়মগুলো।

নির্ভুল রেজিস্ট্রেশন ফরম-বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলার তাড়ায় আমরা প্রায় সবাই অ্যাকাউন্ট খোলার সময় দেওয়া তথ্য সঠিক না ভুল তা বিবেচনা করতে ভুলে যাই। কিন্তু বিকাশ অ্যাকাউন্টের মালিকানা নিশ্চিত করতে হলে এই তথ্য সঠিকভাবে প্রদান করা প্রয়োজন। পিন ভুলে যাওয়া, সিম হারানো বা উন্নয়ন সংক্রান্ত কোনো তথ্য সংশোধনের ক্ষেত্রে উন্নয়নে দেওয়া তথ্যই একমাত্র নির্ভরতা। তাই নতুন বিকাশ অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করার সময় রেজিস্ট্রেশন ফর্মে সঠিকভাবে সব তথ্য দিন।

নিজস্ব একাউন্ট ব্যবহার করুন

আপনার লেনদেনের উপর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ রাখতে আপনার নিজস্ব বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করুন। অন্য ব্যক্তির বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে লেনদেনের চেয়ে নিজের নামে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা বেশি নিরাপদ।

প্রতিটি লেনদেন ভেরিফাই করুন-প্রতিটি লেনদেনের জন্য সঠিক ব্যক্তি এবং সঠিক পরিমাণ সঠিক হচ্ছে কিনা তা যাচাই করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে লেনদেনের সময় পাঠানো টাকার পরিমাণ, পিন কোড, নিরাপত্তা কোড বা অন্য কোনো তথ্য দেওয়ার আগে সর্বদা যাচাই করুন। প্রতিটি লেনদেনের পরে, বিকাশ থেকে প্রাপ্ত এসএমএস যাচাই করে নিশ্চিত করুন যে সমস্ত তথ্য সঠিক। এছাড়াও লেনদেনের আগে এবং পরে বিকাশ অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স চেক করুন।

এজেন্ট থেকে ক্যাশ আউট করুন-ক্যাশ আউট করার সময়, ডেভেলপমেন্ট এজেন্ট থেকেক্যাশ আউট ফ্রম এজেন্টবিকল্পটি ব্যবহার করুন। অনেক ধূর্ত উন্নয়ন এজেন্ট টাকা পাঠিয়ে নগদ টাকা হাতিয়ে নেয়। এটা ঠিক কাজ নয়। তাই উপযুক্ত উপায়ে এজেন্টের কাছ থেকে ক্যাশ আউট করুন।

বাটন ফোনে ইনবক্স খালি রাখুন-বেশিরভাগ সময় আমাদের ইনবক্সে বোতাম মোবাইল এসএমএস পূর্ণ থাকে। যদিও এই ধারায় একটি যুগান্তকারী অবদান নয়, বিকাশ একটি মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবা। ফোনের এসএমএস ইনবক্স সবসময় খালি রাখুন যাতে বিকাশ থেকে প্রয়োজনীয় এসএমএস আপনার মোবাইলে আসতে পারে।

বিকাশ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার সময় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কিছু কাজ করা উচিত নয়। আসুন জেনে নেই বিকাশ অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যে কাজগুলো করা উচিত নয়।

কোড শেয়ার করা বিকাশ এর পিন কোড আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্টের মূল নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। তাই কখনোই আপনার ডেভেলপমেন্ট পিন, সিক্রেট কোড, সিকিউরিটি কোড ইত্যাদি কারো সাথে শেয়ার করবেন না।

লোভে পড়া লটারি, পুরস্কার বা উন্নয়নের প্রতিযোগিতার নামে কেউ আপনার সাথে যোগাযোগ করলে তারা এটিকে প্রতারণা হিসেবে নেবে। যদি কেউ আপনাকে কল করে জানায় যে আপনি বিকাশ অ্যাকাউন্টে লটারি বা পুরস্কার জিতেছেন, তথ্য যাচাই করতে অবিলম্বে বিকাশ হেল্পলাইন নম্বরে যোগাযোগ করুন।

অন্যকে ফোন দেওয়াআপনি জানেন না বা বিশ্বাস করেন না এমন লোকেদের আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্ট সহ ফোন দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, আপনার ফোনে অ্যাক্সেস আছে এমন যে কেউ আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

মনে রাখবেন, বিকাশ একটি অর্থ লেনদেনের প্ল্যাটফর্ম মাত্র। কোনো গ্রাহক যদি কোনো ভুল করে বা অর্থ লেনদেনে জালিয়াতির কথা স্বীকার করে, তার দায় মূলত ব্যবহারকারীর ওপরই বর্তায়। ব্যবহারকারীর ভুলের কারণে কোনো ক্ষতি হলে বিকাশ দায়ী থাকবে না।

তাই লেনদেন ব্যবহার বা বিকাশ করার সময় সর্বদা সতর্ক থাকুন। প্রতারণার ফাঁদে না পড়ে সর্বদা একটি সচেতন সিদ্ধান্ত নিন। আপনার সতর্কতা আপনার বিকাশ অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারে।

বিকাশ এজেন্ট কি?

বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের প্রতিনিধিদের বিকাশ এজেন্ট বলা হয়। বিকাশ এজেন্ট স্থানীয়ভাবে সমস্ত বিকাশ পরিষেবা প্রদান করে। এজেন্ট গ্রাহকদের উন্নয়ন পরিষেবা প্রদান করে যেমন ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট বা বিল পেমেন্ট। উন্নয়ন এজেন্টরা কমিশনের একটি শতাংশ উপার্জন করে।

বিকাশ এজেন্টের কাছ থেকে কোন সুনির্দিষ্ট অর্থের কথা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করেনি। এর মানে হল যে ট্রেড লাইসেন্স আছে এমন যে কেউ ডেভেলপমেন্ট বিকাশ হতে পারে।

মার্চেন্ট একাউন্ট কি?

বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টটি ব্যবসায়িক লেনদেন পরিচালনা করতে ব্যবহৃত হয়। বিকাশ পার্সোনাল অ্যাকাউন্টের চেয়ে বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টে বেশ কিছু অনন্য সুবিধা রয়েছে।

মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য আবেদন করা যাবে। আবেদনের পর, আপনাকে ফর্মে উল্লেখিত ফোন নম্বরে কল করে বিকাশ মার্চেন্ট অফিসে আসতে বলা হবে। অফিসে প্রয়োজনীয় তথ্য কাগজপত্র জমা দেওয়ার পর বিকাশ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হবে।

সাধারণ প্রশ্নসমুহ

কে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে?

উত্তর: বাংলাদেশের 18 বছর বা তার বেশি বয়সী নাগরিকরা একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন যদি তাদের কাছে প্রয়োজনীয় জাতীয় পরিচয়পত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্ট থাকে।

বিকাশ একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে?

উত্তর: বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে কোনো খরচ নেই, যে কেউ বিনামূল্যে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।

বিকাশ একাউন্ট খুলতে কি ব্যাংক একাউন্ট লাগে?

উত্তরঃ না, বিকাশ একাউন্ট খুলতে ব্যাংক একাউন্ট থাকা জরুরী নয়।

একটি NID দিয়ে কয়টি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা যায়?

উত্তর: একটি জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে আপনি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।

অ্যাপ ছাড়া কি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে?

উত্তর: Yes. তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে বিকাশ Agent বা Bkash কাস্টমার কেয়ারে যেতে হবে।

বিকাশ অ্যাপ দিয়ে কি টাকা আয় করা সম্ভব?

উত্তর: হ্যাঁ, বিকাশ অ্যাপ আপনার বন্ধুদের রেফার করে অর্থ উপার্জন করতে পারে।

বিকাশ হেল্প লাইন নাম্বার:

বিকাশ হেল্পলাইন নম্বর হল 16247 যেটি 24 ঘন্টা সক্রিয় থাকে। এটি একটি শর্টকোড নম্বর যা শুধুমাত্র বাংলাদেশের ভিতর থেকে কল করা যায়।

আপনি 16247 নম্বরে কল করে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এই নম্বরে কল করে আপনি বিকাশ সংক্রান্ত সকল সমস্যার সমাধান পাবেন। মূলত, উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিকাশ সম্পর্কিত যেকোনো প্রশ্ন বা সহায়তার জন্য 16247 নম্বরে কল করার পরামর্শ দিয়েছে।

বিকাশ হেল্পলাইনের টেলিফোন নম্বর 02-55663001

pp

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম

Leave a Reply

Your email address will not be published.