হতাশ হয়ো না – আব্দুর রহমান আল হাসান

হতাশ হয়ো না –  আপনি যখন একটা কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করেন কিংবা ছোটখাটো একটা দোকান চালু করেন তাহলে আপনার সর্বপ্রথম চিন্তা আসে, আমার ব্যবসা কিভাবে অগ্রসর করবো। আপনি তখন সর্বদা নিজের লাভের কথা শতভাগ চিন্তা করেন। কখনো অন্যের ব্যাপারে বা গ্রাহকের ব্যাপারে চিন্তাবোধ করেন না। আপনার গ্রাহক কি আপনার সেবা নিয়ে শতভাগ সন্তুষ্ট নাকি সেটাও আপনি জানেন না। আপনি জানার প্রয়োজনবোধও করেন না। কারণ, গ্রাহকের নিশ্চিত থাকা আপনার উদ্দেশ্য নয়। আপনার উদ্দেশ্য মার্কেটিং।

হতাশ

তাই আপনি সর্বদা বিভোর থাকেন আপনার কোম্পানীর উৎপাদন বাড়াতে। আপনি সর্বদা নতুন নতুন মডেলের পণ্য বানিয়ে ভোক্তাদেরকে অবাক করে দেন। কিন্তু আপনার উদ্দেশ্য ব্যবসা। এভাবেই আপনার জীবনের চাকা ঘুরতে থাকে। আপনি একসময় লাখপতি থেকে হয়ে যান কোটিপতি। আপনার সম্পদ ব্যপকহারে বাড়ার কারণে আপনার পেছনে লাগে শত্রু। আপনার পেছনে লাগে সরকার। আপনার তখন ভোক্তাদের পণ্যের চাহিদা মেটাতে মেটাতে সরকারের ট্যাক্সটাও গণনা করা লাগে।

আয়াতুল কুরসীর ফজিলত জানতে পড়ুন

আপনার একসময় আরো টাকার প্রয়োজন হয়। কিন্তু এত মিলিয়ন মিলিয়ন টাকা আপনার নিকট থাকার পরও ব্যবসার দুনিয়ায় আপনি নিজেকে আবিষ্কার করেন নিঃস্ব অবস্থায়। আপনার কাছে তখন মনে হয়, দুনিয়ার সবচেয়ে গরীব ব্যবসায়ী হলেন আপনি। একটা সময় সরকারের খাতে আপনার কোটি কোটি টাকা ট্যাক্স জমা পড়ে। ভোক্তারা আপনার নিকট হতে আগের মতো সার্ভিস পায় না। আপনার কর্মচারীরা আগের মতো আর দক্ষ নয়। ফলে শুরু হয় অশান্তি।

আস্তে আস্তে আপনার কাছের মানুষগুলো দূরে সরে যেতে থাকে। তখন আপনার মনে হয় এই দুনিয়া অর্থহীন। আপনার সন্তান-স্ত্রী আপনার কাছ থেকে দূরে চলে যায়। আপনার কাছে তখন মনে হয়, এই দুনিয়ায় বেঁচে থেকে লাভ কি? আপনি তখন নিরুপায় হয়ে আত্মহত্যার পথ বেঁছে নেন। মনে করেন, আত্মহত্যার মাধ্যমেই হয়তো আপনি আপনার জীবন থেকে পরিত্রাণ পাবেন।

আল্লাহ তা’আলা কুরআনে সূরা আলে ইমরানের ১৩৯ নং আয়াতে বলছেন,

“তোমরা হীনবল হয়ো না এবং চিন্তিত হয়ো না। যদি তোমরা মুমিন হও তাহলে তোমরাই হলে বিজয়ী” আমরা ইতিহাস থেকে একটু আলোকপাত করি। মানুষ সবচেয়ে বেশি অসহায় থাকে যুদ্ধের ময়দানে। তখন সে সর্বদা নিজের জীবনের চিন্তায় থাকে। কখন জানি, তার শরীরে আঘাত লেগে যায়। এই যুদ্ধের মধ্যেও নবীজি সাহাবাদের হীনবল বাড়ানোর উপদেশ দিতেন।

কেন আপনি দান-সদকা করবেন। পড়ুন

আপনি ওহুদ যুদ্ধের কথা খেয়াল করুন। মুসলমানরা বিজয়ের ধারপ্রান্তে গিয়েও পরাজয় বরণ করার উপক্রম হয়ে পড়েছিল। সেনাপ্রধানের নির্দেশ না মানার কারণে প্রায় সত্তর জন সাহাবা নিহত হয়েছিলেন। এমনও হয়েছিল তখন যে, মুসলমানরা না চেনার কারণে নিজেদের লোকদের আঘাত করছিল। এমন মুহুর্তেই গুজব উঠলো, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইন্তিকাল করেছেন।

সাহাবারা দিশেহারা হয়ে পড়লো। কয়েকজন সাহাবা তো আশাই ছেড়ে দিলো যুদ্ধ করার।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত মুসলমানরা জয়ী হয়েছিল। তারা বিজয়ী হলো। আল্লাহর নবী সাহাবাদের নিয়ে মদীনায় ফিরে গেলেন।

খেয়াল করুন,

তারা কতটা জীবন শঙ্কার মধ্যে ছিল। আর আপনি একজন ব্যবসায়ী বা কর্মী হয়ে নিজের উপর নিজে রাগান্নিত হয়ে নিজেকে শেষ করে দেয়ার ইচ্ছা করছেন। আল্লাহ তা’আলা আমাদের এই শরীর দিয়েছেন আমানত হিসেবে। কোনো কারণ ছাড়া আপনি এই শরীরের অপব্যবহার করলে এবং নিজেকে নিজে কষ্ট দিলে কেয়ামতের দিন আল্লাহর নিকট আপনাকে জবাবদিহিতা করতে হবে।

নিজেকে ভালোবাসতে শিখুন। মানুষকে ভালোবাসতে শিখুন। আল্লাহর বিধান মান্য করুন। তাহলে আপনার জীবন শান্তিতে ভরে উঠবে। আল্লাহ আমাদের সকলকে তাওফীক দান করুন।

আমীন।

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪২৮ other subscribers

এছাড়াও আমাদের প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন।

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যে কোনো প্রশ্ন করুনঃএখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃএই পেজ ভিজিট করুন
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এএখানে ক্লিক করুনএবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতেএখানে ক্লিক করুনতারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুনএই লিংকে

 

বাংলাদেশের সবচাইতে বড় উদীয়মান প্রশ্ন এবং উত্তরের বাংলা ওয়েবসাইট এবং ইনকাম করার ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম US IT BARI। আপনি এই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম বাংলা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রশ্ন এবং উত্তর করে জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি প্রতিমাসে ঘরে বসে ভালো মানের ইনকাম করতে পারবেন। তাই এখুনি আপনি আমাদের ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট খুলুন এবং জ্ঞান চর্চার পাশাপাশি ইনকাম করুন।

এ্যাকাউন্ট করতে এবং আরও বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- www.usitbari.com

 

আব্দুর রহমান আল হাসান

আমি কওমী মাদ্রাসা থেকে উচ্চ মাধ্যমিকে পড়াশোনা করছি। এখন মেশকাত জামাতে অধ্যয়নরত আমি। লেখালেখিতে আগ্রহ আমার ছোটবেলা থেকেই। প্রায় সময়ই গল্প-উপন্যাস, বিজ্ঞান, ইতিহাস বিষয়ে লেখালেখি করি। লেখালেখির প্রাথমিক হাতেখড়ি আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক কামরুল হাসান নকীব সাহেবের হাত ধরে। তারপর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাই নি। অনলাইন ফ্লাটফর্মে লেখালেখি আমার নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে শুরু করি। এর মধ্যে দু’একটা সুনামধন্য পত্রিকায় লেখার সুযোগ পাই। বর্তমানে এসএস আইটি বারী ডট কমে ইসলামিক বিষয়ক লেখালেখিতে কর্মরত।

অবসরে তাফসীর, সীরাত গ্রন্থ, মুৃসলিম ইতিহাস, পৃথিবীর ইতিহাস, বিজ্ঞান ও বিশেষ করে জ্যোতির্বিজ্ঞান সম্পর্কিত বই পড়তে পছন্দ করি। পাশাপাশি নিজের দক্ষতা বাড়ানোর লক্ষ্যে গ্রাফিক্স, ওয়েব ডেপলপমেন্ট, এসইও, প্রোগ্রামিং ও মার্কেটিং শেখার চেষ্টা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.