শরীরের সুস্থতায় শীতকালীন কোন শাক-সবজি খাওয়া দরকার?

আসসালামু আলাইকুম আশা করছি সকলে ভালো আছেন, প্রশ্নের হেডলাইন দেখে আবার আপনারা ভাইবেন না যে আমি কোন ডক্টর? তবে ডক্টর না হলেও ডক্টরের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে আজকের পোস্টে আপনাদেরকে জানানোর চেষ্টা করেছি শরীরের সুস্থতায় শীতকালীন কোন শাকসবজি খাওয়া আমাদের জন্য দরকার। আসছে শীতকাল আরে শীতকালে কোন শাক সবজি গুলি আমাদের শরীরের পুষ্টিগুণ বৃদ্ধি করে এবং খাওয়া উপকার সে বিষয়ে আপনাদেরকে সম্পূর্ণ ডক্টরের পরামর্শ অনুযায়ী জানানোর চেষ্টা করব ইনশাল্লাহ।শরীরের সুস্থতায় শীতকালীন কোন শাক-সবজি খাওয়া দরকার

আপনারা সকলেই জানেন যে আমাদের দেশ ছয় ঋতুতে, আর এই ছয় ঋতুর দেশের পঞ্চমতম ঋতু হচ্ছে শীতকাল। আর এই শীতকালে প্রচুর পরিমাণে আমাদের বাংলাদেশের শাকসবজি উৎপাদন হওয়ার ফলে আমাদের দৈনন্দিন খাবার তালিকায় শাক সবজির কোন না কোন খাবার আমাদের খাবার তালিকায় থাকে। আর আপনি যদি জানেন যে কোন শাক সবজিগুলি শীতকালীন সময় খেলে আপনার পুষ্টি বৃদ্ধি পাবে মা স্বাস্থ্যকর খাবার হবে?তাহলে তো মন্দ হয় না অর্থাৎ একের ভিতরে অধিক। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক শীতকালীন সময় কোন শাকসবজি গুলি আমাদের খাওয়া দরকার?

প্রথমেই আমরা জেনে নেব শীতকালীন সবজির পুষ্টিগুণ সম্পর্কে –

বাজারের শীতকালীন সবজি হলো ফুলকপি, বাঁধাকপি, মটরশুঁটি, মটরশুটি, ব্রকলি, শালগম, মুলা, পালং শাক, পেঁয়াজ এবং লাউ। এই সবজি যেমন সুস্বাদু তেমনি এর পুষ্টিগুণও বেশি। তাই শীতে পুষ্টিগুণ বাড়াতে প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি খান। চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন সবজিতে পুষ্টিগুণ বেশি।

ফুলকপি: ভিটামিন এ, বি, সি (যদিও তাপ ধ্বংস করে) এবং ভিটামিন কে সমৃদ্ধ। এ ছাড়াও রয়েছে আয়রন, সালফার, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং ফাইবার। ফুলকপির সালফারযুক্ত সালফোরাফেন উপাদান ক্যান্সার কোষকে ধ্বংস করে। রক্তচাপ কমায়। হার্ট সুস্থ রাখে। ফুলকপি, ফাইবার এবং সালফার সমৃদ্ধ, হজমে সহায়তা করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। ফুলকপির ভিটামিন এ এবং সি শীতের ঠান্ডা, জ্বর, সর্দি, কাশি এবং টনসিলের প্রদাহ থেকে রক্ষা করে।

 শিম:এটি প্রোটিনের খুব ভালো উৎস। যারা নিরামিষভোজী এবং কোনো কারণে মাছ-মাংস খেতে পারেন না, তবে শিম, মটরশুটি, মটর, শিমের বীজ থেকে তাদের আমিষ-মাংসের চাহিদা সহজেই পূরণ করতে পারেন। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেল, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পানি রয়েছে যা রক্তের কোলেস্টেরল কমায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। শিশুদের অপুষ্টি দূর করে।

তবে যারা কিডনি রোগে ভুগছেন তাদের বেশি মটরশুটি খাওয়া উচিত নয়।

শীতকালীন ফসলের তালিকা

মূলা: মূলা পাতায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে। বিটা ক্যারোটিন, আয়রন এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। মূলা বিভিন্ন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। ওজন কমায়। কিডনি ও পিত্তথলির পাথর গঠন রোধ করে।

অম্লতা কিছু প্রভাবিত করতে পারে।

পালং শাক: ফলিক অ্যাসিড, ক্যালসিয়াম এবং আয়রন সমৃদ্ধ। অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে পূর্ণ। আর্থ্রাইটিস, অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধ করে। হৃদরোগ ও কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। এর ক্যারোটিনয়েড এবং শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং ডিম্বাশয়ের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। যাঁদের ইউরিক অ্যাসিড বেশি, তাঁরা সপ্তাহে ১ দিন ৩০ গ্রাম করে খেতে পারবেন।

টমেটো: টমেটোতে লুটেইন এবং লাইকোপেন নামক কেরাটিনয়েড থাকে যা দৃষ্টিশক্তি এবং চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করে। টমেটো রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস কমাতেও সাহায্য করে। ত্বক সতেজ রাখে।

প্রচুর পরিমাণে টমেটো একসাথে খেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে কারণ এতে ম্যালিক এবং সাইট্রিক অ্যাসিড বেশি থাকে। টমেটো ভালো করে ধুয়ে খেতে হবে।

শীতকালীন ফল

ফল বিভিন্ন ভিটামিন এবং খনিজগুলির একটি সহজ এবং সস্তা উত্স। ফলটি যেমন রান্না না করেও খাওয়া যায়, তেমনি এর উপাদানগুলো শরীর থেকে অক্ষত অবস্থায় শোষিত হয়, যা আমাদের বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করে। ফলে বিভিন্ন ধরনের খনিজ পদার্থ যেমন ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস শরীরের বিপাকীয় কাজ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া ফল শরীরে অন্যান্য পুষ্টি উপাদান যেমন শর্করা, আমিষ, চর্বি, ভিটামিন, পানি সরবরাহ করে শরীরকে সুস্থ রাখে।

শীত মৌসুমে বাজারে অনেক জাতের কুল বা বরই, কমলালেবু, জলপাই, আমলকি, আপেল, সপেদা, ডালিম ইত্যাদি পাওয়া যায়। শীতকালে সবচেয়ে জনপ্রিয় বিভিন্ন জাতের কুল বা বরই। বিভিন্ন ধরনের বরই আছে যেমন নারিকেল বরই, আপেল বরই, বাউকুল ইত্যাদি।শীতের এই ফলটি খুবই উপকারী ও পুষ্টিকর।

কমলালেবুতে রয়েছে ভিটামিন-সি, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স, ফাইবার এবং মিনারেল, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। কমলালেবুকে ক্যান্সার প্রতিরোধী বলা হয়। জলপাই একটি শীতকালীন ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল। উচ্চ রক্তচাপ, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পেট ও কোলন ক্যান্সারের জন্য জলপাইয়ের কোন মিল নেই। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর, এতে রয়েছে ভিটামিন-এ এবং ভিটামিন-ই।

আমলকি ভিটামিন-সি-এর রাজা হিসেবে পরিচিত একটি শীতকালীন ফল। আমলকি ত্বকের সুরক্ষা, মাড়ি মজবুত এবং ক্যান্সার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সারা বছর পাওয়া গেলেও শীতকালে আপেল বেশি পাওয়া যায়। এতে রয়েছে ভিটামিন-সি, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি১, ভিটামিন-বি১২, ভিটামিন-বি৬ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

আপেল কোষ্ঠকাঠিন্য এবং বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকর। শীতের আরেকটি ফল হলো সফেদা। এই ফলটি একসময় আমাদের দেশে খুব একটা পরিচিত ছিল না। কিন্তু বর্তমানে এই ফলটি পুষ্টিগুণের কারণে প্রিয় ফলের তালিকায় ঢুকে পড়েছে। ক্যানসার বিরোধী, কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ, কিডনি সুরক্ষা এবং সতেজ ত্বক ছাড়াও সফেদা কোলেস্টেরল এবং রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। সফেদায় আছে ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি, ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স, পটাশিয়াম, কপার, আয়রন ও ফাইবার।

সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং রসালো শীতকালীন ফল হল বেদানা বা আনার; অনেকে একে ডালিম বলে। এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন-সি। কুষ্ঠরোগ, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ এবং হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য বেদামের রস খুবই উপকারী। তাই শরীরের পুষ্টির চাহিদা পূরণ ও নিজেকে সুস্থ রাখতে সবারই সহজলভ্য শীতকালীন শাকসবজি ও ফলমূল গ্রহণ করা উচিত। পরিশেষে একটা কথা বলতেই হয়- সুস্থ শরীরে সুস্থ মন; এটা চিরতরে হতে পারে.

আশা করছি আপনারা যারা শরীরের সুস্থতায় শীতকালীন ফল এবং শাকসবজি বিষয়ে জানতে চেয়েছিলেন উপরের এই বিষয়গুলি মেনে আপনি এই উপরের শাকসবজি এবং ফল যদি প্রতিদিনের খাবার তালিকায় রাখেন তাহলে ইনশাল্লাহ আপনি সুস্থ থাকবেন।

আপনার জন্য আরো 

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৫০৬ other subscribers

SANAUL BARI

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আমি মো:সানাউল বারী।পেশায় আমি একজন চাকুরীজীবী এবং এই ওয়েবসাইটের এডমিন। চাকুরীর পাশাপাশি গত ১৪ বছর থেকে এখন পর্যন্ত নিজের ওয়েবসাইটে লেখালেখি করছি এবং নিজের ইউটিউব এবং ফেসবুকে কনটেন্ট তৈরি করি।
বিশেষ দ্রষ্টব্য -লেখার মধ্যে যদি কোন ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে অবশ্যই ক্ষমার চোখে দেখবেন। ধন্যবাদ।