লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম ২০২৩

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম –ড্রাইভিং লাইসেন্স করার পূর্ব শর্ত হচ্ছে লার্নার বা শিক্ষানও বেশ ড্রাইভিং লাইসেন্স। কেউ যদি ড্রাইভিং লাইসেন্স আবেদন করতে চায় সেক্ষেত্রে অবশ্যই আগে লার্নার বা শিক্ষানবেশ ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হয়। বর্তমান সময়ে বেশিরভাগই পেশাদার এবং ব্যক্তিগত পর্যায়ে গাড়ি চালানোর জন্য একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা আবশ্যক।লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

লাইসেন্স না থাকার কারণে অনেকেই নিজের গাড়ি চালাতে পারেন না। তাই ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।দেশে এবং দেশের বাইরে পেশাদার ড্রাইভার এর যেমন চাহিদা রয়েছে তেমনি ব্যক্তিগত গাড়ি কিংবা মোটরসাইকেল চালানোর জন্য একটি আবশ্যক ডকুমেন্টেরও প্রয়োজন রয়েছে। পূর্বে লাইসেন্স ছাড়া অনেকেই গাড়ি চালাতে পারলেও বর্তমানে তা তুলনামূলক কমে গেছে। কারণ বর্তমানে বাংলাদেশ বিআরটিএ কঠোর আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

অনলাইনে ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করার নিয়ম

সুপ্রিয় পাঠক পাঠিকা বন্ধুরা আজকে আমরা এই কনটেন্টের আলোচনা করব লার্নার বা শিখানো বেশ ড্রাইভিং লাইসেন্স এর সম্পর্কে। যারা নতুন গাড়ি চালক এখনো লাইসেন্স তৈরি করেননি এবং লাইসেন্স তৈরির প্রক্রিয়া সম্পর্কে যারা অবগত না তারা অবশ্যই আজকের কনটেন্টটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়বেন এবং কিভাবে লার্নার বা শিক্ষানবেশ ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি করা যায় সেই সম্পর্কে জানতে পারবেন বিস্তারিত এই কন্টেন্টের মাধ্যমে।

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স

সাধারণত লার্নার কার্ড দেওয়া হয় মাঠে কিংবা জনশূন্য জায়গায় প্র্যাকটিস করার জন্য এবং এই প্র্যাকটিসের সময়ও একজন লাইসেন্স হোল্ডার সাথে ইনস্ট্রাক্টর হিসেবে থাকতে হয়।লার্নার লাইসেন্স দিয়ে কোনভাবেই রাস্তায় গাড়ি চালানো যাবে না এই নিয়ম ভঙ্গ করলে ট্রাফিক সার্জেন্ট যে কোন সময় লাইসেন্সের মামলা দিতে পারবে।

লার্নার ফরম পূরণ করে লার্নার কার্ড বা শিক্ষানবেশ অনুমতি পত্র নিয়ে আপনি ড্রাইভিং প্র্যাকটিস করতে পারবেন এই আবেদন পত্রেই সাধারণত দুই মাস পর পরীক্ষার তারিখ দেওয়া হবে সেই তারিখে নির্ধারিত পরীক্ষা কেন্দ্রে গিয়ে লিখিত মৌখিক এবং ব্যবহারিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেই আপনি স্থায়ী লাইসেন্স পাবেন।

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

লানার বার শিক্ষানো বেশ ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি করার জন্য যেসব প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের প্রয়োজন হয়;

১. নির্ধারিত ফর্মে আবেদন।

২. আবেদনকারীর ছবি [সর্বোচ্চ ১৫০ KB (300*300 pixel 0) size]

৩. একজন নিবন্ধিত ডাক্তার দ্বারা মেডিকেল সার্টিফিকেট (সর্বোচ্চ 600 KB)

৪. কপি স্ক্যান ইউটিলিটি বিলের (সর্বোচ্চ 600 KB)

৫. ন্যাশনাল আইডির স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ 600 KB)

৬. বর্তমান ড্রাইভিং লাইসেন্সের স্ক্যান্ড কপি (ড্রাইভিং লাইসেন্সের পুনর্ননবনীকরন এর জন্য প্রযোজ্য/বিভাগ পরিবর্তন/লাইসেন্সের ধরন পরিবর্তন) (সর্বোচ্চ 600 KB)

৭. নির্ধারিত ফি, প্রথম ক্যাটাগরি ৩৪৫ টাকা, দ্বিতীয় ক্যাটাগরি ৫১৮ টাকা অনলাইন পরিশোধ

৮. বিআরটিএ অনুমোদিত ব্যাংক শাখায় টাকা জমা রশিদ

৯. স্থায়ী অস্থায়ী ঠিকানার প্রমাণস্বরূপ বিদ্যুৎ বিলের ফটোকপি

আবেদনের সময় যদি কোন ভুল তথ্য দেওয়া হয় তবে তার ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করা হবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

অনলাইনে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য https://bsp.brta.gov.bd এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ঘরে বসে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন সহ মোটরযান সংক্রান্ত অনেক সেবা পাওয়া যাবে অনলাইনে লার্নারের জন্য আবেদন করতে হলে আপনাকে সর্বপ্রথম বিআরটিএর সার্ভিস পোর্টালে https://bsp.brta.gov.bd/register লিংকে প্রবেশ করে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে।

লাল সবুজ পরিবহনের অনলাইন টিকিট কাটার নিয়ম

রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করার জন্য এই লিংকে গিয়ে আপনার নাম জন্মতারিখ জাতীয় পরিচয় পত্র বা এনআইডির নম্বর মোবাইল নম্বর ইমেল এবং একটি পাসওয়ার্ড দিতে হবে।

তারপর রেজিস্টার অপশনে ক্লিক করলে আপনার মোবাইলের নম্বরে একটা কোড নাম্বার যাবে সে কোড দিয়ে ভেরিফিকেশন করতে হবে।

রেজিস্ট্রেশন সফলভাবে সম্পূর্ণ করার পর ড্রাইভিং লাইসেন্সের অপশনে ক্লিক করবেন এরপর শিক্ষানবেশ লাইসেন্সের জন্য “আবেদন”অপশনে ক্লিক করবেন।

এরপর আপনাকে লার্নার লাই লাইসেন্স পাওয়ার জন্য কিছু নির্দেশনা দেওয়া হবে সবকিছু চেক করে ওকে অপশনে ক্লিক করবেন।

আপনি কোন ধরনের লাইসেন্স করতে চান সেটা নির্বাচন করতে হবে।

তারপর পর্যায়ক্রমেনিজের নাম পিতার নাম মাতার নাম সহ অন্যান্য তথ্য দিয়ে ফর্মটি ঠিকঠাক পূরণ করতে হবে এই ক্ষেত্রে আপনার নাম ঠিকানা সবকিছু অবশ্যই আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে মিলিয়ে করতে হবে।

যদি শুধুমাত্র মোটরসাইকেলের জন্য লার্নার  ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে চান তাহলে আপনাকে ৩৪৫ টাকা ফি জমা দিতে হবে আর যদি মোটরসাইকেল এবং প্রাইভেট কার উভয়ের জন্য লার্নার করতে চান তাহলে আপনাকে ৫১৮ টাকা জমা দিতে হবে।

আপনি চাইলে আপনার সুবিধামতো এলাকার বিআরটিএ থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন এর জন্য আপনাকে এলাকা নির্ধারণ করে দিতে হবে।

ফরমটি পূরণ করা হয়ে গেলে মেডিকেল সার্টিফিকেট জাতীয় পরিচয় পত্র ইউটিলিটি বিলের ছবি আপলোড করতে হবে।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

মেডিকেল সার্টিফিকেটের ছবি আপলোড করার আগে তা অবশ্যই সত্যায়িত করে নিতে হবে। এরপর সংরক্ষণ অপশনে ক্লিক করুন।

সবকিছু ঠিকঠাক ভাবে সম্পন্ন করলে আপনি পেমেন্ট বা ফি পরিশোধের অপশন পেয়ে যাবেন। সেখানে ডেবিট/ ক্রেডিট কার্ড কিংবা মোবাইল ব্যাংকিং (বিকাশ) এর মাধ্যমে সহজেই পেমেন্ট জমা দেওয়া যাবে।

পেমেন্ট ঠিকভাবে করা হয়ে গেলে successful লেখা আসবে।

এরপর লার্নার কার্ড প্রিন্ট করে নিতে পারেন প্রিন্ট করার পাশাপাশি এর সফট কপি বা পিডিএফ কপি পেনড্রাইভ বা কম্পিউটার বা মেমোরি কার্ডের সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর প্রকারভেদ

১. লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স।

২. স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স।

৩. আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং পারমিট।

ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার শর্ত

একটি কার্যকারী ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে হলে অবশ্যই তার কিছু পূর্ব শর্ত মানতে হবে।

১. লার্নার বা ট্রেইনি লাইসেন্স পেতে হবে

২. শিক্ষাগত যোগ্যতা হিসেবে আবেদনকারীকে অবশ্যই অষ্টম শ্রেণী পাস হতে হবে।

৩.একজন অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদনকারীর বয়স কমপক্ষে ১৮ বছর এবং পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য আবেদনকারীর বয়স কমপক্ষে ২১ বছর বয়সী হতে হবে।

৪. চালকের লাইসেন্সের জন্য আবেদনকারীদের শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ হতে হবে।

স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

১. নির্ধারিত ফরমে আবেদন

২.একজন নিবন্ধিত ডাক্তারের কাছ থেকে মেডিকেল সার্টিফিকেট

৩.জাতীয় পরিচয় পত্রের সার্টিফাইড কপি

৪.নির্দিষ্ট ফ্রি (পেশাদারদের জন্য ১৬৭৯ টাকা এবং অপেশাদারদের জন্য ২৫৪২ টাকা)

৫.পেশাদার লাইসেন্সের জন্য পুলিশ তদন্ত প্রতিবেদন

৬.সদ্য তোলা এক কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রযোজ্য

১. পেশাদার হালকা (মোটরযান এর ওজন ২৫০০ কেজি এর নিচে) ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে 20 বছর হতে হবে

২.পেশাদার মাধ্যম (মটরযানের ওজন ২৫০০ থেকে ৬৫০০ কেজি) ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে ২৩ বছর হতে হবে এবং পেশাদার হালকা ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যবহার কমপক্ষে তিন বছর হইতে হবে

৩.পেশাদার ভারী (মোটরযানের ওজন ৬৫০০ কেজি এর বেশি) ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রার্থীর বয়স কমপক্ষে ২৬ বছর হতে হবে এবং পেশাদার মধ্যম ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ব্যবহার কমপক্ষে তিন বছর হতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্সের নবায়ন পদ্ধতি

অপেশাদার

গ্রাহককে প্রথমে নির্ধারিত ফি (মেয়াদ উত্তীনের ১৫ দিনের মধ্য হলে ২৪২৭ টাকা ও মেয়াদোত্তিনের ১৫ দিন পরে হলে প্রতিবছর ২৩০ টাকা) জরিমানা সহ জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে আবেদনপত্র ও সংযুক্ত কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেল একই দিনে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স (ডিজিটাল ছবি ডিজিটাল স্বাক্ষর ও আঙুলের ছাপ গ্রহণ করা হয় স্মার্ট কার্ড ও প্রিন্টিং) এর সমস্ত প্রক্রিয়ার সম্পূর্ণ হলে গ্রাহকের এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

পেশাদার

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সধারীদের আবার একটি ব্যবহারিক পরীক্ষার অংশগ্রহণ করতে হবে পরীক্ষায় উত্তীনের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ১৫৬৫ টাকা ও মেয়াদোদ্দিনের ১৫ দিন পরে হলে প্রতি বছর ২৩০ টাকা জরিমানা সহ জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ বিআরটিএ নির্দিষ্ট সার্কেল অফিস আবেদন করতে হবে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স ডিজিটাল ছবি (স্বাক্ষর ও আঙ্গুলের ছাপ) গ্রহণের জন্য গ্রাহকের নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে উপস্থিত হতে হবে।স্মার্ট কার্ড ও প্রিন্টিং এর সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

*নির্ধারিত ফরমে আবেদন

*রেজিস্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট

*ন্যাশনাল আইডি কার্ডের সত্যায়িত ফটোকপি

*শিক্ষাগত যোগ্যতা সনদ

*নির্ধারিত ফি জমাদানের রশিদ

*পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন

*সদ্য তোলা এক কপি পাসপোর্ট ও এক কপি স্ট্যাপ সাইজ ছবি

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর আবেদন খরচ

*শুধুমাত্র এক ধরনের যানবাহন চালানোর জন্য প্রযোজ্য লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে ৩৪৫ টাকা।

*গাড়ি ও মোটরসাইকেল উপরে লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে ৫১৮ টাকা।

স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্সের খরচ

১. পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে খরচ ১৬৭৯ টাকা (৫ বছর নবায়ন ফি সহ)

২. অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে খরচ ২৫৮২ টাকা ১ (০ বছরের নবায়ন ফি সহ)।

ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকার শাস্তি

ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে ২৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে বাংলাদেশ আইনে।নতুন আইনে বলা হয়েছে ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ছয় মাসের জেল বা অনধিক ২৫ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে।

প্রশ্ন: ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করার মাধ্যম কোনটি?

উত্তর: ড্রাইভিং লাইসেন্স টি প্রস্তুত এর কোন পর্যায়ে রয়েছে তা চেক করার জন্য DL checker app অথবা my.brta.gov.bd/DL এই ওয়েবসাইট থেকে চেক করতে পারবেন।

প্রশ্ন:লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে কি গাড়ি চালানো যাবে?

উত্তর: না লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে গাড়ি চালানো যাবে না। লার্নার কার্ড শুধুমাত্র মাঠে কিংবা জনশূন্য জায়গায় প্র্যাকটিস করার জন্য দেওয়া হয়।

প্রশ্ন: ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলে জরিমানা কত?

উত্তর: বাংলাদেশ সংবিধানের নতুন আইনে বলা হয়েছে যদি কোন পেশাদার অপেশাদার চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকে তাহলে তার ৬ মাসের জেল বা অনধিক ২৫ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হতে হবে।

শেষ কথা-

বন্ধুরা যারা আজকের পোস্টটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়েছেন তারা অবশ্যই লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্সের বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন।যদি কেউ বুঝতে না পারেন তাহলে অবশ্যই কমেন্টের মাধ্যমে আমাদের জানাবেন আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব আপনাদের কমেন্টের উত্তর দিয়ে আপনাদের সঠিক তথ্যের মাধ্যমে সহায়তা করার।

গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে ড্রাইভিং লাইসেন্স বাধ্যতামূলক আমাদের সকলেরই একথা মাথায় রাখতে হবে। নিজেরা আইন মান্য করবো এবং অন্যদেরকে আইন মান্য করার পরামর্শ দিব এটাই কাম্য। আজকের মত এ পর্যন্তই।সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকবেন।

পোস্ট ট্যাগ-

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম,ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার নিয়ম,লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক,লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে কি গাড়ি চালানো যায়,শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন ফরম,ড্রাইভিং লাইসেন্স করার খরচ,ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করার নিয়ম ২০২২

স্বাস্থ্যকর খাবার সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন -www.usitbari.com

অনলাইনে স্বপ্নপূরণ এবং টাকা আয় করতে ভিজিট করুন –www.workupplace.com

ব্লগিং থেকে আর্নিং সম্পর্কিত টিপস পেতে ভিজিট করুন-https://www.youtube.com/@ssitbari2832

আরও আপনার জন্য

পিজি হাসপাতাল অনলাইন টিকেট বুকিং করুন ঘরে বসে ২ মিনিটে

বাংলাদেশ রেলওয়ে অনলাইন টিকিট করার নতুন নিয়ম

শ্যামলী পরিবহন অনলাইন টিকেট করার নিয়ম। ২ মিনিটে

জাতীয় জাদুঘর অনলাইন টিকেট করার সঠিক নিয়ম।২ মিনিটে

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট করার সহজ নিয়ম 

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নতুন নিয়ম ২০২২।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করুন ৫ মিনিটে

নতুন উপায়ে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট করার সহজ নিয়ম

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এখানে ক্লিক করুন।
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে :এএখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে :এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন :< strong>এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুইটার থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- লিংকদিন থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- ইনস্টাগ্রাম থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুম্বলার (Tumblr)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে :এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- পিন্টারেস্ট (Pinterest)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চাইলে সাথেই থকুন : এখানে ক্লিক করুন।

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম