মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ (আরবি নাম সুন্দর অর্থসহ)

মেয়েদের ইসলামিক নাম-মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। মানুষকে আল্লাহ তাআলা আশরাফুল মাখলুকাত হিসেবে দুনিয়ায় প্রেরণ করেছেন। জন্মের পর একটি সুন্দর নামের মাধ্যমে মানুষ তার নিজের পরিচয় বহন করে জীবনের শেষ পর্যায় পর্যন্ত। মা বাবা আত্মীয়-স্বজন এই নাম নির্ধারণ করে। ছেলে ও মেয়েদের নামের ক্ষেত্রে তফাৎ রয়েছে। একটি বাচ্চাকে না দেখে তার নাম শুনে ছেলে না মেয়ে তা বোঝা যায়। ইসলামে মেয়েদের সুন্দর সুন্দর নাম রয়েছে অর্থসহ।

মেয়েদের ইসলামিক নাম

প্রিয় মুসলমান ভাই-বোনেরা যারা তার অনাগত কন্যা সন্তানের ইসলামিক নাম রাখার জন্য বিভিন্ন ওয়েবসাইট সার্চ করে থাকেন তাদের জন্য আজকে নিয়ে এসেছি মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ। ইসলামী শরিয়া অনুযায়ী যারা নাম রাখতে যাচ্ছে না আপনার কন্যা শিশুর তা অবশ্যই আজকের পোস্টটি শেষ পর্যন্ত দেখে আপনার কন্যার জন্য পছন্দের নামটি বেছে নেবেন।

মেয়েদের ইসলামিক নাম

কন্যা সন্তান আল্লাহ তাআলার এক অশেষ নিয়ামত। আল্লাহ অত্যন্ত খুশি হয়ে দুনিয়ায় কন্যা সন্তান প্রেরণ করেন। তাই আল্লাহ তায়ালার এই খুশির নিয়ামত কন্যা সন্তানের নাম ইসলামিক শরিয়া অনুযায়ী রাখা উচিত। ইসলামিক কন্যা সন্তানের অনেক সুন্দর সুন্দর নাম রয়েছে যে নামে রয়েছে সুন্দর অর্থ। মেয়েদের ইসলামিক নাম রাখা হলে তার নাম শুনলেই বোঝা যাবে সে কোন ধর্মের অনুসারী। ইসলামিক নাম গুলো সাধারনত আরবি শব্দ দিয়ে হয়ে থাকে।তবে বাংলা উর্দু ফার্সি কিংবা অন্যান্য ভাষাতেও ইসলামিক নাম হতে পারে।

মেয়েদের ইসলামিক নাম রাখার কারণ

শান্তির ধর্ম ইসলাম। মানুষের জীবনের সার্বিক দিক নির্দেশনা প্রদানকারী ধর্ম ইসলাম। ইসলামে মেয়েদের নাম রাখার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেওয়া আছে।

স দিয়ে মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ

সন্তানের সুন্দর নাম রাখা ও তার উত্তম তারবিয়াতের ব্যবস্থা করা বাবার উপর সন্তানের হক।-মুসনাদের বাযযার (আলবাহরুয যাখখার), হাদিস ৮৫৪০।

মেয়েদের ইসলামিক নাম রাখার সম্পর্কে আরো অনেক হাদিস রয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার আগ্রহ থাকলে আপনি আপনার নিকটস্থ একজন মাওলানা সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ

মেয়েদের বহু ইসলামিক নাম রয়েছে যার অর্থ অত্যন্ত সুন্দর। মেয়েদের ইসলামিক নাম গুলো হলো:

আমিনা-নিরাপদ।

আসিয়া-শান্তি স্থাপনকারী।

আদিবা- মহিলা সাহিত্যিক।

আসমা-অতুলনীয়।

আলিয়া-মহত্ব, উদারতা, মাননীয়।

আয়েশা-সমৃদ্ধশালী।

ফারিহা -সুখী।

লাইজু-বিনয়ী।

রামিজা-জ্ঞানবতি।

আরিফা-রূপসী।

আসিলা-নিখুঁত, নির্ভেজাল।

আরিফা-মহিলা সাধক।

আফিয়া-পুণ্যবতী।

আয়েদা-প্রত্যাবর্তনকারিনী।

তাবিয়া-প্রকৃতি।

আজিফা- মজুরি বা ভাতা।

অজেদা-প্রাপ্ত সংবেদনশীল।

অনিশা-রহস্যময়ী।

আইদা-বাড়ি ফিরে আসার পুরস্কার।

আকলিমা-দেশ।

আদিবা-শিষ্টাচার।

আতিকা-সুন্দরী।

আদিলা-ন্যায়বিচারক।

ইনায়া-সকলের মঙ্গল প্রত্যাশী।

ইফাত-উত্তম/বাছাই করা।

ইবসার-সংবাদপ্রাপ্ত হওয়া।

ইফফাত-পবিত্র নারী।

ইবসার-সুসংবাদপ্রাপ্ত হওয়া।

ইবা-শ্রদ্ধা সম্মান গর্ব।

জাকিয়া-বুদ্ধিমতি।

সানজিদা-চিন্তাশীল

হাসিনা-সুন্দরী।

ইনিভির-বুদ্ধিমতী, মেহেবৎসল।

তাইয়িবা-পবিত্র।

জারিন-জেসমিন ফুল।

ইয়াসিরা-আরাম/ স্বাচ্ছন্দ্য।

ইয়ামিনা-একজন মহিলা যাকে সঠিক পথে আনা হয়েছে ‌।

ইয়ারা-প্রজাপতির মতো সুন্দর এবং নমনীয়।

ইরতিজা-অনুমতি।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

ইরফানা-বিশ্বাসী।

ইলহাম-সবার জন্য অনুপ্রেরণা।

ইরাম-স্বর্গের দরজা।

ইলিজা-বহুমূল্য, মূল্যবান।

ইশফাক-করুনা।

ইশাত-বসবাস।

ঈশানা-সমৃদ্ধশালিনী।

ইসরাত-সদ্য ব্যবহার।

জামিলা-সুন্দরী।

ইসমত-প্রতিরোধ।

সাবিহা-সুন্দরী।

আফিয়া- পূর্ণবতী।

আবিয়াত-সুন্দুরী স্ত্রীলোক।

ইশায়াত-আলোক রশ্মীর বিকিরণ।

ওয়াসিমা-যথার্থ সুন্দর।

জোফিরা-উটের পিঠের ওপর।

জয়নব-সুদর্শনী।

জয়া-স্বাধীন।

জরিফা-বুদ্ধিমতী।

জাইফা-অতিথিনি।

তাসকিনা-সান্তনা।

তাবাসসুম-মুচকি হাসি।

তাসমিয়া- নামকরণ।

তাসনিম-বেহেস্তের ঝর্ণা।

তাসলিমা-সম্পূর্ণ।

তাখমিমা-অনুমান।

তোহফা-উপহার।

তোহুরা-পবিত্র।

তানজিম-সুবিন্যাস্ত।

তাহিরা-পবিত্র।

তাশবীহ-উপমা।

তাকিয়া-চরিত্রবান।

তাশফিয়া-পবিত্র।

তুবা-সুসংবাদ।

তামান্না-ইচ্ছা।

নাফিসা-মূল্যবান।

নদীরা-বিরল।

নাইমা-সুখ।

নিবাল-তীর।

নায়লা-অর্জন কারিনি।

ফাতিমা-নিষ্পাপ।

ফাতিহা-আরম্ভ।

ফাহিমা-বুদ্ধিমতী।

ফাইজা-বিজয়িনী।

ফারাহ-আনন্দ।

ফারহা-অত্যন্ত ভালো।

নাজিফা-পবিত্র।

মালিহা- রূপসী।

মুর্শিদা-পথপ্রদর্শিকা।

হামিদা-প্রশংসা কারিনী।

হামিনা-বান্ধবী।

মাইমুনা- ভাগ্যবতী।

হুমায়রা-সুন্দরী।

আতিয়া- দানশীল।

মাসিয়া-আল্লাহর কিছু ইচ্ছা কে বোঝানো।

মারজিয়া-সহজে গ্রহণযোগ্য।

মারিয়া- শিক্ষিত মহিলা।

মারওয়া-চকচকে পাথর।

মাইশা-সুখী।

মানসুরা- আল্লাহর সমার্থক এবং বিজয়ী।

মাঞ্জুরা-মনজুর হওয়া।

পুষ্প-ফুল।

নুরা- উপযুক্ত মনোযোগী, স্বাভাবিক,আধুনিক,ভাগ্যবান।

নূর-আল্লাহর কাছ থেকে পাঠানো জ্বলন্ত আলো।

নুসাইফা- ইনসাফ।

নাজিফা-পবিত্র।

দাইশা-জীবিত থাকার সারাংশ।

দিবা-সোনালী।

দিনা- বিশ্বাস।

সামিহা-যথার্থ দানশীল।

জোয়া-সত্যিকারের জীবিত।

রামিসা-নিরাপদ।

জারা-ফুলের মত প্রকৃতি।

ওয়াহিদা-তুলনাহীন।

জারিন- স্বর্ণ।

কায়দা-নেত্রী,প্রধানলিডার।

কারিমা-অত্যন্ত উদার।

কালিমা-কথোপকথনকারীনি।

ওয়ালিয়া- বান্ধবী।

ওয়াসিফা-প্রশংসা কারিনী।

ওয়াদিফা-সবুজ ঘন বাগান।

ওয়ামিয়া-বৃষ্টি।

ওয়াফিয়া-অনুগত,যথেষ্ট।

ওয়ালিজা-প্রকৃত বন্ধু।

ওয়ালিয়া বান্ধবী।

এরিশা-বক্তৃতা বা ভাষণ।

এরিনা-রঙ্গভূমি,কর্মক্ষেত্র, শান্তি।

জন্মের পর শিশুর নাম রাখাটা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। শিশুর নাম তার সম্পর্কে অনেক কিছুই বহন করে। এছাড়াও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ক্ষেত্রে ইসলামিক নাম শিশুর জন্য মঙ্গল বয়ে আনতে পারে। তাই সর্বদা চেষ্টা করবেন মুসলমান হয়ে শিশুর নাম যেন ইসলামী তরিকা মোতাবেক রাখা হয়। নামের গুনে অনেক সময় বরকত বয়ে আনে। ইসলামে অনেক নাম আছে এই নাম দ্বারা বারবার ডাকার ফলে আমলনামায় নেকী যুক্ত হতে পারে।

মেয়েদের ইসলামিক নাম

সচরাচর জিজ্ঞাসা

প্রশ্ন: মেয়েদের ইসলামিক নাম রাখা প্রয়োজন কেন?

উত্তর:শুধুমাত্র মেয়েদের ইসলামিক নাম রাখা জরুরি তা নয়। মেয়ে শিশু ছাড়া সে ছেলে শিশুদের ইসলামিক নাম রাখাটাও অতীব জরুরী। শিশুদের ইসলামিক নাম রাখলে সেই নাম শুনলেই বোঝা যায় সে কোন ধর্মের অনুসারী। ইসলামিক নামের সুন্দর অর্থ বহন করে থাকে।

প্রশ্ন: আল্লাহতালার অন্যতম একটি রহমত কি?

উত্তর: আল্লাহতালার অশেষ নিয়ামতের মধ্যে অন্যতম একটি নিয়ামত হলো কন্যা সন্তান। তাহলে খুশি হয়ে কন্যার সন্তান রহমত হিসেবে দুনিয়ায় প্রেরণ করেন।

প্রশ্ন: ইসলামিক নাম রাখার সুফল কি?

উত্তর: আমরা যারা মুসলমান আছি আমাদের শান্তির ধর্ম হচ্ছে ইসলাম। আমাদের জীবন পরিচালনা ইসলামী তরিকায় হওয়া উচিত। অনেক সময় নামের গুনে বরকত আসে।তাই মুসলমান হিসেবে ইসলামী নাম রাখাই উত্তম।

শেষ কথা-

আমাদের পরিবারে অনেকেই একটি শিশুর জন্মের পরে নাম নিয়ে ভাবতে শুরু করেন। হয়তো নাম রাখার ক্ষেত্রে একেক জন একেক নাম পছন্দ করেন বা বাছাই করেন। তাই আজকের আর্টিকেলটি থেকে পরিবারের সম্মিলিত সিদ্ধান্তে নাম বাছাই করতে পারে। আজকে আর্টিকেলটিতে ইসলামী নামগুলো সুন্দর অর্থসহ তুলে ধরা হয়েছে। আশা করছি এই আর্টিকেল থেকে আপনার সোনামনির নামটি বাছাই করতে পেরেছেন। আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি।

পোস্ট ট্যাগ-

মেয়েদের ইসলামিক নাম,সৌদি মেয়েদের ইসলামিক নাম,পাকিস্তানি মেয়েদের ইসলামিক নাম,মেয়েদের ইসলামিক পূর্ণাঙ্গ নাম,স দিয়ে মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ ২০২১,স দিয়ে মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ,মিশরের মেয়েদের ইসলামিক নাম,দুই অক্ষরের মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থসহ,মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থ সহ।

স্বাস্থ্যকর খাবার সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন –  www.usitbari.com

অনলাইনে স্বপ্নপূরণ এবং টাকা আয় করতে ভিজিট করুন –  www.workupplace.com

ব্লগিং থেকে আর্নিং সম্পর্কিত টিপস পেতে ভিজিট করুন  https://www.youtube.com/@ssitbari283

আরও পড়ুন –

শবে বরাতের রোজা নিয়ত বাংলায় এবং শবে বরাতের নামায

মহরমের রোজা কয়টি?মহরমের রোজার নিয়ত?রোজার ফজিলত

শাওয়াল মাসের রোজা রাখার নিয়ম সহকারে বিস্থারিত

রোজার নিয়ত ও ইফতারের দোয়া সহ রোজা সম্পর্কিত সকল বিষয়

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এখানে ক্লিক করুন।
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে :এএখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে :এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন :< strong>এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুইটার থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- লিংকদিন থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- ইনস্টাগ্রাম থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুম্বলার (Tumblr)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে :এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- পিন্টারেস্ট (Pinterest)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চাইলে সাথেই থকুন : এখানে ক্লিক করুন।

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম