মিয়া খলিফার ইতিহাস -মিয়া খলিফা সম্পর্কে  অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

মিয়া খলিফার ইতিহাস -মিয়া খলিফা কে?বর্তমান সময়ের অন্যতম বিতর্কিত সোশ্যাল মিডিয়া ব্যক্তিত্ব। মিয়া অশ্লীল অভিনেত্রী হিসাবে স্টারডম পৌঁছেছিলেন এবং একটি ধর্মীয় পরিবারে বেড়ে ওঠার পরে তার বাবা-মা তার ক্যারিয়ারের পছন্দের কারণে তার সাথে কথা বলা বন্ধ করেছিলেন। প্রাপ্তবয়স্ক ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে মিয়ার ক্যারিয়ারটি মাত্র দু’বছর সক্রিয় ছিল, তবে যথাসময়ে তিনি বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন যা তাকে অন্যান্য প্রচেষ্টা অনুসরণ করতে সক্ষম করে।

মিয়া খলিফার ইতিহাস

মিয়া খলিফার শৈশবকাল,  পিতা-মাতা এবং শিক্ষা

খলিফা ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৩ সালে লেবাননের বৈরুতে জন্ম নেন। পরবর্তীতে দশ বছর বয়সে, দক্ষিণ লেবাননের দ্বন্দ্বের জোরে জানুয়ারি ২০০১ সালে পরিবারের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্থানান্তরিত হন। তার পরিবার ছিল ক্যাথলিক এবং তিনি সেই ধর্মের অধীনে “অত্যন্ত রক্ষণশীল” পরিবারে বেড়ে উঠলেও পরবর্তীতে তার অনুশীলন করেন নি।

তিনি বৈরেুতের একটি ফরাসি বেসরকারি বিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেন, যেখানে তিনি ইংরেজি শিখেছিলেন।পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রে চলে আসার পর তিনি মন্টগোমেরি কাউন্টি, মেরিল্যান্ডে বসবাস করেন এবং সেখানকার উচ্চ বিদ্যালয়ে ল্যাক্রোসি বাজাতেন।মিয়া খলিফার শৈশবকাল

খলিফা “সেখানকার সবচেয়ে কৃষ্ণাঙ্গ এবং অদ্ভুত মেয়ে” হিসেবে উচ্চ বিদ্যালয়ে উত্যক্তির শিকার হওয়ার কথা বলেছেন, যা ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পরে তীব্রতর হয়ে উঠেছিল।

ম্যাসানুনটেন মিলিটারি একাডেমিতে ক্ষণ্ডকালীন পড়াশোনার পর খলিফা কলেজ পড়ার জন্য টেক্সাসে চলে আসেন।কয়েক বছর পর ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস অ্যাট এল পাসো থেকে ইতিহাস বিষয়ে বিএ ডিগ্রি নেন তিনি।

মিয়া খলিফার কর্মজীবন

কলেজে অধ্যয়নের সময় খলিফা বারটেন্ডার হিসাবে কাজ করতেন এবং কিছু মডেলিংয়ের কাজও করেছিলেন। তিনি ডিল অ্যান্ড নো ডিল-এর মতোন স্থানীয় স্পেনিয় ভাষার টেলিভিশন গেম শোতে “ব্রিফকেস গার্ল” হিসাবে অভিনয় করেছিলেন।স্নাতক শেষ করার পরে, তিনি মিয়ামিতে চলে আসেন এবং নগ্ন মডেলিংয়ে কাজ করার জন্য তটস্থ ছিলেন।

?? গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন ??

২০১৪ সালের অক্টোবরে, খলিফা পর্ণোগ্রাফি চলচ্চিত্র শিল্পে প্রবেশ করেন। মিয়ামিতে হেটে বেড়ানোর সময় তাকে জিজ্ঞেস করা হয় যে, তিনি পর্নোচলচ্চিত্রে কাজ করতে আগ্রহী কি না।২০১৫ সালের হিসেবে, ১.৫ মিলিয়নেরও অধিক দর্শকসংখ্যার পাশাপাশি, ২২ বছর বয়সী খলিফা প্রাপ্তবয়স্ক ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট পর্নহাবের সর্বাধিক অনুসন্ধানকৃত মডেল হিসেবে উন্নীত হন।

সে বছর ২৮ ডিসেম্বরে পর্নহাব তাদের ওয়েবসাইটে নাম্বার ১ স্থানে খলিফার নাম প্রকাশ করে বহুদর্শী লিসা অ্যানের পরিবর্তে।মিয়া খলিফা কে

তার এ খ্যাতি মধ্যপ্রাচ্যের রক্ষণশীল জনমনে কঠোর সমালোচনার অবতারণা করে, যেখানে তার পেশাজীবন লজ্জাকর ও কলঙ্কময় বলে মনে করা হয় এবং যে কারণে নিজ দেশেও খলিফার সম্মানহানি ঘটে। পর্নহাবে শীর্ষস্থান অধিকারের পরপর তিনি অনলাইন মৃত্যুর হুমকি পান, যার মধ্যে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্টের একটি হস্তনির্মিত ছবিতে তাকে শিরচ্ছেদের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে এমন দেখানো হয়।

২০১৫ সালের জানুয়ারিতে, খলিফা প্রতি মাসে একাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ব্যাং ব্র্রসের মূল কোম্পানির সাথে দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন। যদিও, দুই সপ্তাহ পরে, তিনি মত পরিবর্তন করে এই চুক্তি ত্যাগ করেন।

২০১৬ সালের জুলাই, তিনি কেবল তিন মাসের জন্য পর্নোগ্রাফিতে অভিনয় করেছিলেন এবং এক বছরের আগেই “স্বাভাবিক কাজে” যুক্ত হতে পর্নশিল্প ছেড়ে দিয়েছিলেন।  আমি ধীরে-ধীরে নিজেকে এর থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে চেষ্টা করি।

২০১৬ সালের মে মাসের হিসাবে, খলিফা একজন ওয়েবক্যাম মডেল হিসেবে কাজ করছেন। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে, এক্সহ্যামস্টার প্রতিবেদন করেছে যে খলিফা ২০১৬ সালের সর্বাধিক অনুসন্ধানকৃত প্রাপ্তবয়স্ক অভিনেত্রী ছিলেন। ২০১৮ সালে, পর্ন শিল্প ছাড়ার তিন বছর পরেও তিনি পর্নহাবের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন।

২০১৯ সালের আগস্টে, তিনি প্রকাশ করেছিলেন যে তিনি কেবল পর্ন শিল্পে কাজ করে মার্কিন $১২,০০০ ডলার উপার্জন করেছিলেন,এবং পর্নহাব বা অন্য কোনও সাইট থেকে তিনি কখনই বাড়তি আয় গ্রহণ করেন নি।

পর্নোগ্রাফি-মিয়া খলিফার পরবর্তী কর্মজীবন

পর্নোগ্রাফি কর্মজীবন থেকে অব্যহতী নেবার পর, খলিফা মিয়ামিতে প্যারালিগাল এবং বুককিপার হিসাবে কাজ করেন।একজন সামাজিক মাধ্যম ব্যক্তিত্ব হিসাবে তিনি নিজেকে প্রকাশ করেন, পাশাপাশি ওয়েবক্যাম মডেল এবং ক্রীড়া ভাষ্যকার হিসাবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করেন; টুইচ লাইভ স্ট্রিমস এবং ওয়েবক্যাম মডেল হিসাবে পরিবেশন করেন।

সদস্যতা ওয়েবসাইট প্যাট্রিয়নে আলোকচিত্র শুট, পণ্যদ্রব্য এবং একচেটিয়া সামগ্রীতে প্রবেশাধিকার বিক্রি করেন; এবং সামাজিক মাধ্যম ওয়েবসাইট ফাইন্ড্রোতে সুব্যক্ত আলোকচিত্র শুট এবং ভিডিও বিক্রয়ে নিয়োজিত হন।তিনি এবং গিলবার্ট অ্যারেনাস কমপ্লেক্স নিউজের ইউটিউব চ্যানেলের ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দৈনিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান আউট অব বাউন্ডস সঞ্চালনের দ্বায়িত্বে ছিলেন।পর্নোগ্রাফি

টাইলার কো-এর পাশাপাশি খলিফাকে স্পোর্টসবল-এর সহ-আয়োজক হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল, যেটির দ্বিতীয় মরসুমের ২০১৮ সালের ১৬ জুলাই এককভাবে রোস্টারটিথে প্রচারিত হয়েছিল। এর চূড়ান্ত পর্বটি ২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর প্রকাশিত হয়েছিল।

মিয়া খলিফার ব্যক্তিগত জীবন

আঠারো বছর বয়সে, ২০১১ সালের ফ্রেব্রুয়ারিতে খলিফা তার বিদ্যালয়ের প্রেমিককে বিয়ে করেন,যিনি একজন মার্কিন নাগরিক।২০১৪ সালে তাদের সম্পক বিচ্ছেদ ঘটে এবং ২০১৬ সালে বিবাহবিচ্ছেদ।

পর্নোগ্রাফি পেশা শুরু করার সময় খলিফা ফ্লোরিডার মিয়ামিতে বসবাস করতেন এবং পরে টেক্সাসে চলে আসেন। তিনি ফ্লোরিডা স্টেট সেমিনোলস ফুটবলের ভক্ত এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে স্থানান্তরিত করার জন্য ওহাইও অঙ্গরাজ্যে কোয়ার্টারব্যাক ব্র্যাকসটন মিলারকে নিয়োগের চেষ্টা করেছিলেন।

পর্নোগ্রাফি কর্মজীবনের ইতি টানার পরে, তিনি ওয়াশিংটন, ডি.সি. অঞ্চল, ওয়াশিংটন রেডস্কিন্স, ওয়াশিংটন উইজার্ডস এবং ন্যাশনাল হকি লীগের ওয়াশিংটন ক্যাপিটাল সহ পেশাদার ক্রীড়া দলগুলিকে সমর্থন করার জন্য তার সামাজিক মাধ্যম টুইটারে ২.৩ মিলিয়ন এবং ইনস্টাগ্রামে ১১ মিলিয়নের অধিক অনুগামীর সৃষ্টি হয় যার মধ্যে তার প্রিয় খেলোয়াড় হলেন আন্দ্রে বুরাভস্কি।

খলিফার শরীরে লেবাননের জাতীয় সঙ্গীতের প্রথম লাইন এবং লেবানিয় ফোর্সেস ক্রুশের উল্কি রয়েছে।

খলিফা ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডের ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবের সমর্থক।২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে লন্ডন স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট হ্যাম এবং আর্সেনালের মধ্যেকার একটি প্রিমিয়ার লীগ চলাকালীন, ডাইভিংয়ের জন্য আর্সেনাল মধ্যমাঠের খেলোয়াড়, ম্যাটিও গুয়েনডোজির প্রতি খলিফার মৌখিক অপব্যবহার সামাজিক মাধ্যমের প্ল্যাটফর্মগুলিতে ব্যপক আলোচনার সৃষ্টি করেছিল।

২০১৯ সালের দিকে তিনি সুয়েডিয় রন্ধনশিল্পী রবার্ট স্যান্ডবার্গের সাথে প্রণয়ে আবদ্ধ।সে বছরের ১২ মার্চে তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়। সম্পতি তাদের বিবাহের পরিকল্পনা থাকলেও, ২০১৯-২০ করোনাভাইরাস সংকটের কারণে খলিফা স্যান্ডবার্গের সাথে বিবাহ স্থগিত করেছেন।বর্তমানে খলিফা লস অ্যানঞ্জেলেসে বাস করছেন।

মিয়া খলিফা ইন্টারনেট জনপ্রিয়তা

কয়েক বছর ধরে, মিয়া সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে, বিশেষত ইনস্টাগ্রাম এবং টুইটারে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, যখন তাকে ফেসবুকে পাওয়া যায়। তার অফিসিয়াল ইনস্টাগ্রাম পৃষ্ঠা ১৩.৫ মিলিয়নেরও বেশি ফলোয়ার রয়েছে, যার সাথে তিনি তার ব্যক্তিগত জীবন থেকে ছবি এবং ভিডিও উভয়ই ভাগ করে নিয়েছেন এবং ক্যারিয়ারের প্রচারে তার জনপ্রিয়তাও ব্যবহার করেছেন। চালু টুইটার , মিয়া যখন প্রায় 25 মিলিয়ন অনুসরণকারী রয়েছে ফেসবুক , মিয়া এর পরে 1.4 মিলিয়নেরও বেশি লোক রয়েছে।

মিয়া খলিফা শারীরিক পরিমাপ, উচ্চতা এবং ওজন

মিয়া, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য হিসাবে বিবেচিত, বেশিরভাগ তার অত্যাশ্চর্য চেহারার কারণে লক্ষ লক্ষ ভক্তকে আকর্ষণ করেছে। মিয়া 5 ফুট 2ins এ দাঁড়িয়েছে, যা 1.57 মিটার সমান, যখন তার ওজন প্রায় 120 পাউন্ড বা 55 কেজি। তার গুরুত্বপূর্ণ পরিসংখ্যান 40-26-36 ইঞ্চি, এবং তার চুল বাদামী এবং চোখ বাদামী।

আরও পরুন-

বাংলাদেশের অজানা ইতিহাস যেনে নিন

ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয়? যেনে নিন অজানা ইতিহাস

বীমাকে ইসলাম কতুটুকু সমর্থন করে – আব্দুর রহমান আল হাসান

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

স্বাস্থ্যকর খাবার সম্পর্কিত ইংলিশে সকল সঠিক তথ্য জানতে আমাদের SS IT BARI- ভালোবাসার টেক ব্লকের আরেকটি সংস্করণ, US IT BARI- All About Healthy Foods ওয়েব সাইট টি ভিজিট করতে পারেন।
বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন – www.usitbari.com 

SANAUL BARI

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আমি মো:সানাউল বারী।পেশায় আমি একজন চাকুরীজীবী এবং এই ওয়েবসাইটের এডমিন। চাকুরীর পাশাপাশি গত ১৪ বছর থেকে এখন পর্যন্ত নিজের ওয়েবসাইটে লেখালেখি করছি এবং নিজের ইউটিউব এবং ফেসবুকে কনটেন্ট তৈরি করি।
বিশেষ দ্রষ্টব্য -লেখার মধ্যে যদি কোন ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে অবশ্যই ক্ষমার চোখে দেখবেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *