ফেসবুক মার্কেটিং কি? ফেসবুক মার্কেটিং করে অনলাইনে আয় করুন

আমরা সাধারণত ফেসবুক সময় কাটানোর জন্য ব্যবহার করি। কিন্তু আপনি কি জানেন? ফেসবুকের মাধ্যমেও আপনার পন্যের মার্কেটিং করতে পারবেন।

হ্যাঁ আপনি ঠিকই শুনেছেন। ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার পন্য বিক্রি করতে পারবেন। কিন্তু কিভাবে? আমাদের আজকের পোস্টে আমরা সেটি নিয়েই আলোচনা করবো।

 

ফেসবুক মার্কেটিং কি?

ফেসবুকের মাধ্যমে কোনো পন্য বা সেবার মার্কেটিং করাই হলো ফেসবুক মার্কেটিং। বর্তমানে বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া হলো ফেসবুক।

একারনে বর্তমানে ফেসবুকে বিলিয়ন বিলিয়ন ইউজার রয়েছে। ফেসবুকে প্রায় প্রতিটি শ্রেণির মানুষ পাওয়া যায়। অতএব আপনার ব্যবসার জন্য এখানে আপনি অনেক কাস্টমার পেয়ে যাবেন।

বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে ফেসবুক মার্কেটিং একটি আলাদা জায়গা করে নিয়েছে। এর কারন বর্তমানে ফেসবুক মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে খুব বেশি খরচ করতে হয় না।

অপর দিকে কম খরচে বেশি কাস্টমার পাওয়া যায়। মুলত একারণেই ফেসবুক মার্কেটিং বর্তমানে অনেক জনপ্রিয়।

 

কেন ফেসবুক মার্কেটিং করবেন?

আপনি যদি কম টাকায় প্রচুর কাস্টমার পেতে চান তাহলে ফেসবুক মার্কেটিং একটি সেরা অপশন হতে পারে। তাছাড়া নতুন কোম্পানির জন্য এটি অবশ্যই একটি সেরা অপশন।

ফেসবুকে যেহেতু বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ থাকে তাই আপনার ব্যবসার জন্য একটি নির্দিষ্ট ক্যাটাগরির কাস্টমার সহজেই পেয়ে যাবেন যা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়াতে সাধারণত পাওয়া যায়না।

এছাড়াও অন্যান্য ডিজিটাল মার্কেটিং অপশন গুলোর থেকে ফেসবুক মার্কেটিং অনেক সহজ।

 

ফেসবুক মার্কেটিং কত প্রকার?

সাধারণত ফেসবুক মার্কেটিং দুই প্রকার:

  • ফ্রি মার্কেটিং
  • পেইড মার্কেটিং

নিম্নে এই দুইটি প্রকারভেদ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

 

১. ফ্রি মার্কেটিং

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি চাইলে ফ্রিতে মার্কেটিং করতে পারবেন। ফেসবুক পেজ, গ্রুপ, পার্সোনাল আইডি ইত্যাদির মাধ্যমে ফ্রিতে মার্কেটিং করতে পারবেন।

তবে এটি অনেক সময় সাপেক্ষ একটি বিষয়। কারন একটি ফেসবুক পেজ জনপ্রিয় করা অনেক কষ্টের।

ফেসবুক আ্যাললগারিদমের কারনে নিউজ ফিডে পেজের পোস্ট খুবই কম আসে। অপরদিকে ফেসবুক গ্রুপের পোস্ট গুলোকে বেশি প্রাধান্য দেয়।

তবে একটি গ্রুপ দাড় করানোও অনেক কষ্টের। কিন্তু আপনি যদি কোনোভাবে একটি ফেসবুক গ্রুপ দাড় করাতে পারেন তাহলে ফেসবুক মার্কেটিং আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে উঠবে।

 

২. পেইড মার্কেটিং

আপনার যদি বাজেট অনেক বেশি থাকে এব‍ং কম সময়ের মধ্যে প্রচুর কাস্টমার পেতে চান তাহলে ফেসবুকে আপনি পেইড মার্কেটিং করতে পারেন। আপনারা ফেসবুকের নিউজ ফিডে অনেক বিজ্ঞাপন হয়তো দেখে থাকবেন।

এ গুলো আসলে ফেসবুকে কিছু কোম্পানি বিজ্ঞাপন দেয় সেগুলো। এক্ষেত্রে উক্ত কোম্পানি ফেসবুককে টাকা দিয়ে বিজ্ঞাপন দেখায়।

আপনিও এভাবে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। তবে এর জন্য অবশ্যই একটি ফেসবুক পেজ থাকা লাগবে। এছাড়া ফেসবুকে কোনো ইনফ্লুয়েন্সারকে দিয়ে পেইড প্রমোট করাতে পারেন।

এক্ষেত্রে উক্ত ইনফ্লুয়েন্সারকে কিছু টাকা দিতে হবে এবং টাকার বিনিময়ে সেই ইনফ্লুয়েন্সার আপনার পন্য প্রচার করে দেবে।

 

ফেসবুক মার্কেটিং করে আয়

আপনি কি জানেন? ফেসবুক মার্কেটিং করেও আপনি আয় করতে পারবেন। বর্তমানে ফেসবুক মার্কেটিংকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ভাবে আয় করা যায়। নিচে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হলো।

 

১. ডলার বিক্রি করে আয়

আপনার কাছে যদি একটি ডুয়াল কারেন্সি কার্ড থাকে তাহলে আপনি ডলার বিক্রি করে আয় করতে পারবেন। অনেকে নতুন কোম্পানি খুলে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে চায় কিন্তু ডলারের জন্য তা দিতে পারেনা।

কারন বর্তমানে একটি ডুয়াল কারেন্সি কার্ড পাওয়া অনেক কষ্টের। এখন আপনার যদি এমন কার্ড থাকে তাহলে তাদের কাছে ডলার বেশি দামে বিক্রি করে মুনাফা আয় করতে পারবেন। বর্তমানে অনেকে এভাবে ডলার বিক্রি করে আয় করছে।

 

২. পেইড প্রমোশন করে আয়

আপনার যদি একটি জনপ্রিয় ফেসবুক পেজ বা গ্রুপ থাকে তাহলে পেইড প্রমোশন করার মাধ্যমে আপনি আয় করতে পারবেন। ফেসবুক মার্কেটিং এর মধ্যে পেইড প্রমোট অন্তর্ভুক্ত তাই অনেকে কোনো জনপ্রিয় পেজ বা গ্রুপের মাধ্যমে পন্য প্রচার করায়।

এক্ষেত্রে সেই পেজ বা গ্রুপের মালিককে আলোচনা সাপেক্ষে কিছু টাকা দিতে হয়। আপনার যদি এমন জনপ্রিয় পেজ বা গ্রুপ থাকে তাহলে এভাবে অন্যের পন্য প্রচার করে দেওয়ার মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

 

৩. ফেসবুক মার্কেটিং এ সাহায্য করে আয়

অনেকে বেশি সময় না পাওয়ার কারনে কোনো কর্মি নিয়োগ দেয় যে সকল মার্কেটিং এর বিষয় দেখাশোনা করে। আপনিও এমন কোম্পানির মার্কেটিং এর বিষয় গুলো দেখাশোনা করে আয় করতে পারবেন।

তবে এক্ষেত্রে বেশিরভাগ কোম্পানি দক্ষ মার্কেটার খোঁজে তাই ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে আপনার প্রচুর জ্ঞান থাকা লাগবে।

অপরদিকে প্রচুর সময় থাকা লাগবে। কারন উক্ত কোম্পানিটি আপনার উপর সম্পুর্ন দায়ভার দেবে।

 

৪. ফেসবুক মার্কেটিং সার্ভিস দিয়ে আয়

আপনি কি ভালো ফেসবুক মার্কেটিং পারেন? তাহলে অন্য কোম্পানির মার্কেটিং করে দিয়ে আয় করতে পারবেন। বর্তমানে অনেকে দক্ষ ফেসবুক মার্কেটার খোঁজে।

কারন ভালোভাবে মার্কেটিং করতে পারলে কম টাকায় বেশি কাস্টমার পাওয়া যায়। এছাড়া দক্ষ মার্কেটিং ব্র্যান্ড ভ্যালু বাড়াতে অনেক সাহায্য করে।

তাই অনেক কোম্পানি কোনো দক্ষ ফেসবুক মার্কেটারকে মোটা অংকের টাকা দিতেও রাজি থাকে। অতএব আপনি যদি ভালো ফেসবুক মার্কেটিং করেন তাহলে অনায়াসে অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

 

৫. ডিজিটাল পন্য বিক্রি করে আয়

আপনি য‍দি একটি কোম্পানি খুলতে চান তাহলে ফেসবুক মার্কেটিং আপনার জন্য সেরা অপশন হবে। বর্তমানে ফেসবুকে অনেক পন্য ক্রয় বিক্রয় চলে।

এর মধ্যে কিছু পন্য ডিজিটাল এবং কিছু ফিজিক্যাল। ডিজিটাল পন্য গুলো সাধারণত অনলাইনে ব্যবহার করা যায় এব‍ং এগুলো লেনদেন করা অনেক সহজ।

তাই আপনি ফেসবুকে কম পুজি দিয়েই ডিজিটাল পন্য বিক্রি শুরু করতে পারেন। ফেসবুক মার্কেটিং এর জ্ঞান সেই পন্য প্রচার করার কাজে লাগাতে পারেন।

অনেকে প্রিমিয়াম থিম, ডোমেইন, হোস্টিং, প্রিমিয়াম ভিপিএন, কোর্স ইত্যাদি ডিজিটাল পন্য ফেসবুকের মাধ্যমে বিক্রি করে আয় করছে।

 

আমাদের শেষ কথা

আপনি যদি একটি নতুন কোম্পানি খুলতে চান এবং আপনার হাতে যদি পুজি কম থাকে তাহলে অন্যান্য মার্কেটিং এর থেকে ফেসবুক মার্কেটিং আপনার জন্য সেরা হবে।

এছাড়া আপনি ফেসবুক মার্কেটিং শিখে অনলাইনে আয় করতে পারবেন। বর্তমানে ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি অনেক বড় ডিজিটাল মার্কেটপ্লেসে পরিণত হয়েছে।

তাই প্রচুর কোম্পানি ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। অতএব দিন দিন ফেসবুকে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই তাড়াতাড়ি ফেসবুক মার্কেটিং শিখে কাজে লেগে পড়ুন।

আজকের আর্টিকেল এই পর্যন্তই। আশাকরি এই আর্টিকেলটি আপনাকে ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে ধারণা দিয়েছে। এরকম আরও শিক্ষামুলক আর্টিকেল পড়তে আমাদের ওয়েবসাইট প্রতিনিয়ত ভিজিট করুন।

ধন্যবাদ সবাইকে।

SANAUL BARI

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আমি মো:সানাউল বারী।পেশায় আমি একজন চাকুরীজীবী এবং এই ওয়েবসাইটের এডমিন। চাকুরীর পাশাপাশি গত ১৪ বছর থেকে এখন পর্যন্ত নিজের ওয়েবসাইটে লেখালেখি করছি এবং নিজের ইউটিউব এবং ফেসবুকে কনটেন্ট তৈরি করি।
বিশেষ দ্রষ্টব্য -লেখার মধ্যে যদি কোন ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে অবশ্যই ক্ষমার চোখে দেখবেন। ধন্যবাদ।