পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রজ্ঞা এবং পাসপোর্ট সংশোধন করার সঠিক নিয়ম

পাসপোর্ট সংশোধন-আজকের পোষ্টে আমি আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে আপনাদেরকে জানাবো পাসপোর্ট সংক্রান্ত যেকোন ধরনের তথ্য অর্থাৎ প্রজ্ঞা এবং পাসপোর্ট কিভাবে সংশোধন করবেন এবং পাসপোর্ট সংশোধন করতে কত টাকা লাগে এবং পাসপোর্ট সংশোধন করতে কি কি প্রয়োজন এ কাগজ লাগে এছাড়াও আপনি জানতে পারবেন পাসপোর্ট সংশোধনের যে আবেদন ফরম আছে সে আবেদন ফরম সম্পর্কে।

             সৌদি আরবের ভিসা চেক                                 

পাসপোর্ট আমাদের এখন সবারই কম বেশি প্রয়োজন পড়ে থাকে কারণ পাসপোর্ট দিয়ে এখন বাহিরের দেশে ভ্রমণ করা থেকে শুরু করে অনলাইনে ডলার এনডোর্সমেন্ট এর কাজেই পাসপোর্ট এর মাধ্যমে করা যায়।পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রজ্ঞা

তবে আপনার পাসপোর্টে যদি কোনো ধরনের কোন ভুল থেকে থাকে সেটি সংশোধন না করা পর্যন্ত আপনি সব ধরনের বিপদের সম্মুখীন হতে পারেন।

এজন্য অবশ্যই আপনার পাসপোর্টে কোন ভুল থেকে থাকলে সেই ভুলগুলি সঠিকভাবে সংশোধন করে নিতে হবে, তাই আজকে আপনাদেরকে আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে পাসপোর্ট এর সংশোধন সম্পর্কিত সকল তথ্য জানাবো।

পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম

বাংলাদেশ এমআরপি পাসপোট হোক অথবা ই-পাসপোর্ট হোক যে কোনো ধরনের পাসপোর্ট এর তথ্য সংশোধন বা পরিবর্তন করতে চাইলে। আপনাকে অবশ্যই পাসপোর্টের আবেদন করতে হবে।

পাসপোর্টে আসলে কি কি সংশোধন করতে পারবেন?

আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যারা পাসপোর্টে কি কি ধরনের সমস্যা সংশোধন করতে পারবেন সেই বিষয়টি জানা নেই, তাই আজকে নিচে এগুলি থেকে জেনে নিন পাসপোর্টে কি ধরনের পরিবর্তন বা সংশোধন করা যায়।

আপনি আপনার পাসপোর্ট এর জন্ম তারিখ বাবার মায়ের নাম পেশার নাম পাসপোর্ট এর মধ্যে আপনার ঠিকানা এবং আপনার নামের বানান ভুল এই সকল তথ্য আপনি সংশোধন করতে পারবেন।

পাসপোর্ট সংশোধন করতে কি কি প্রয়োজন

  • পাসপোর্ট এর জন্ম তারিখ সংশোধন করার জন্য ভোটার আইডি কার্ড, এসএসসি পরীক্ষার সার্টিফিকেট অথবা জেএসসি পরীক্ষার সার্টিফিকেট অথবা যেকোনো ধরনের পড়াশুনার সনদপত্র এবং ভোটার আইডি কার্ডের সাথে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি আপনাকে জমা দিতে হবে।
  • এছাড়াও আপনি যদি বিবাহিত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার নিকা নামা এগুলো প্রয়োজন পড়বে।
  • পাসপোর্টে যদি আপনার বাবা মায়ের নাম সংশোধন করতে চান- তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড এবং আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার যেকোনো একটি সার্টিফিকেট এবং আপনার বাবা-মা আর ভোটার আইডি কার্ড অবশ্যই জমা দিতে হবে।
  • আপনি আপনার পাসপোর্টে যদি পেশা সংশোধন বা পরিবর্তন করতে চান তাহলে আপনার কর্মক্ষেত্রের প্রত্যয়ন পত্র দিতে হবে আর এর সাথে আপনাকে জমা দিতে হবে প্রাতিষ্ঠানিক পরিচয় পত্রের ফটোকপি।
  • পাসপোর্টে স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন করতে চাইলে এক্ষেত্রে আপনার নতুন করে পুলিশ ভেরিফিকেশন প্রতিবেদন লাগবে তবে বর্তমান ঠিকানা পরিবর্তন করার জন্য সংশোধন করার ক্ষেত্রে এ ধরনের কোনো নিয়ম নেই।
  • আপনি আপনার পাসপোর্টে যদি বৈবাহিক অবস্থা পরিবর্তন করতে চান তাহলে আবেদনপত্রের সঙ্গে অবশ্যই আপনার বৈবাহিক প্রমাণস্বরূপ নিকাহনামা জমা দিতে হবে।

উপরের দেওয়া এই সকল পরিবর্তনের ক্ষেত্রে যে গুলি আলোচনা করা হয়েছে সেগুলো অবশ্যই আপনার প্রয়োজন পড়বে।

পাসপোর্ট সংশোধনের জন্য আবেদন

পাসপোর্ট এর সংশোধন আবেদন করার জন্য সর্বপ্রথম আপনি আপনার মোবাইলে অথবা কম্পিউটারে যে কোন ডিভাইসে গিয়ে আপনি এই লিংকে ক্লিক করবেন অর্থাৎ আমার দেওয়া এই লিংকটি উপরে যখনই ক্লিক করবেন তখনই আপনাকে বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইটে আপনাকে নিয়ে চলে যাবে।

সেখান থেকে আপনি পাসপোর্ট সংশোধনের আবেদন ফরম টি ডাউনলোড করে নিবেন। ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

পাসপোর্ট সংশোধন ফরম

পাসপোর্ট সংশোধন ফরম ডাউনলোড করা হয়ে গেলে নিচের মত এইরকম ফরমটি আপনি আপনার ডিভাইসে পেয়ে যাবেন।পাসপোর্ট সংশোধন সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রজ্ঞা

এই ফরমটি যখনই ডাউনলোড করা হয়ে যাবে তখন আবেদন ফরমে দেওয়া তাদের রিকোয়ারমেন্ট অনুযায়ী সবকিছু আপনি সঠিকভাবে আপনার ভোটার আইডি কার্ড অনুসারে পূরণ করে দিবেন।

পাসপোর্ট সংশোধন আবেদন ফরমের এই বক্সের মধ্যে আপনি যে ব্যাংকে ফি জমা দিবেন। সেই ব্যাংক থেকে একটি চালান বা  রিসিট নিয়ে আসবেন এবং এখানে ফ্রি তথ্য বসিয়ে দিবেন।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

তারপর আপনি এই আবেদন ফরম এবং অন্যান্য সব ডকুমেন্ট একসাথে নিয়ে আপনার পাসপোর্ট অফিসে জমা দিয়ে দিবেন 21 দিনের মধ্যে আপনার পাসপোর্ট আবেদন ফরমে দেওয়া নাম্বারে মেসেজ আসলে, আপনি পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে পারবেন।

ই পাসপোর্ট করার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

বর্তমানে আপনি পাসপোর্ট করতে গেলেই ই-পাসপোর্টের এ-কথাটি আপনার সামনে চলে আসে তো ই-পাসপোর্ট করার জন্য যদি আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সম্পর্কে জানা না থাকে তাহলে আপনি আঞ্চলিক অফিসে গিয়ে আবার আপনাকে ফেরত আসতে হতে পারে।এখানে পড়ুন

পাসপোর্ট তথ্য যাচাই করবেন যেভাবে

দেখুন আপনি আপনার পাসপোর্ট তথ্য কেন যাচাই করবেন এবং পাসপোর্ট চেক কেন এতো জরুরি, তার কারণ হচ্ছে আপনি যখন আপনার নতুন পাসপোর্ট করার জন্য আঞ্চলিক অফিসে পাসপোর্ট এর সকল তথ্যাদি জমা দেবেন।

তখন আপনি চাইলে ঘরে বসেই আপনার পাসপোর্ট এর সকল তথ্য এবং পাসপোর্ট এর স্ট্যাটাস গুলো আপনি দেখতে পাবেন। কারণ কখনো কখনো পাসপোর্ট আসতে অনেক সময় লাগে আবার কখনও ২১ দিনের মধ্য আসে।বিস্থারিত এখানে দেখুন

পাসপোর্ট তথ্য যাচাই করার নিয়ম

পাসপোর্ট তথ্য যাচাই করার জন্য বা পাসপোর্ট চেক করার জন্য প্রথমে আপনাকে যে কাজটি করতে হবে তা হচ্ছে প্রথমে আপনি আপনার মোবাইলের ব্রাউজার বা কম্পিউটার ব্রাউজার থেকে এই লিংকে প্রবেশ করবেন অথবা গুগোল এ গিয়ে টাইপ করবেন www.passport.gov.bd  এটি বাংলাদেশের পাসপোর্ট এর ওয়েবসাইট প্রথমে এই সাইটে প্রবেশ করতে হবে।এরপরে

ই পাসপোর্ট কত দিনে পাওয়া যায় ২০২২

ই পাসপোর্ট কতদিনে হয়ে থাকে বা ই পাসপোর্ট কত দিনে পাওয়া যায় এ সম্পর্কে আমরা যখনই গুগলে সার্চ করি বা বিভিন্ন দালাল চক্রের সঙ্গে কথা বলি, তখন বিভিন্ন বিভিন্ন রকম তথ্য দিয়ে থাকেন।

তবে আমি আজকে আপনাদেরকে একদম সরকারি নিয়মে ই পাসপোর্ট কত দিনে পাওয়া যায় সেটি সম্পর্কে আপনাদেরকে বিস্তারিত জানিয়ে দিচ্ছি

পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ২০২২

পাসপোর্ট করতে যাওয়ার আগে পাসপোর্ট অফিসে, আপনার পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে এবং পাসপোর্ট করতে কত টাকা প্রয়োজন হয়ে থাকে। এই সকল বিষয় যদি আপনি না জেনে পাসপোর্ট অফিসে যেয়ে থাকেন।তাহলে আপনাকে অর্ধেক কাজ করে আবারো আপনার এই পাসপোর্ট করার জন্য কি কি লাগে সেই বিষয়টি জেনে আবার আপনার ব্যাক করে বাসায় এসে এই কাগজপত্রগুলো রেডি করে আবার আপনাকে পাসপোর্ট অফিসে যেতে হবে।এখানে দেখুন

পাসপোর্ট নবায়ন করার নিয়ম

পাসপোর্ট নবায়ন আবেদন করার পূর্বে যদি পাসপোর্ট নবায়ন করার ধাপ গুলি সম্পর্কে আপনি জানেন, তাহলে আপনারই উপকারে আসবে। আমি নিচে পাসপোর্ট নবায়ন করার যে সকল ধাপ পূর্ণ করতে হয় সেই সকল বিষয় লিখে দিচ্ছি –

পাসপোর্ট নবায়ন আবেদন করার জন্য যে সকল কাগজপত্র প্রয়োজন পড়ে থাকবে সেগুলো আগে থেকেই রেডি করে নেয়া। কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন হবে নিচে আমি তা বিস্তারিত জানিয়ে দিব।

  • পাসপোর্ট নবায়ন ফরম পিডিএফ(pdf) এটি ফিলাপ করা।
  • পাসপোর্ট নবায়ন ফি কত টাকা? এই বিষয়ে আমি নিচে আলোচনা করছি সেটি আপনাকে অবশ্যই প্রদান করতে হবে অর্থাৎ পাসপোর্ট নবায়নের ফি টাকা জমা দিতে হবে।
  • আপনার পাসপোর্ট নবায়নের আবেদন ফরমটি পাসপোর্ট অফিসে জমা দেওয়া ও বায়োমেট্রিক এনরোলমেন্ট সম্পন্ন করা।

এরপরে সবকিছু ঠিক থাকলে পাসপোর্ট স্ট্যাটাস চেক করা এবং পাসপোর্ট সংগ্রহ করা।

বিস্থারিত এখানে দেখুন

আপনার জন্য-

পাসপোর্ট দিয়ে ভ্যাকসিন নিবন্ধন করার সঠিক নিয়ম

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪২৮ other subscribers

pp

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম