পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ২০২২ | bd passport

আজকের পোস্টটিতে আমি পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ২০২২ এবং ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগেবাংলাদেশ পাসপোর্ট করতে কি কি ডকুমেন্টস লাগে এবং পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২ সালের নতুন আপডেট অনুসারে এবং ই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২ সালের নতুন আপডেট অনুযায়ী এবং ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে এই সকল বিষয়ে খুটিনাটি পাসপোর্ট সম্পর্কিত আপনাদেরকে আজকের এই পোস্টটিতে ক্লিয়ার করে দিব ইনশাআল্লাহ

পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২

পাসপোর্ট করতে যাওয়ার আগে পাসপোর্ট অফিসে, আপনার পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে এবং পাসপোর্ট করতে কত টাকা প্রয়োজন হয়ে থাকে। এই সকল বিষয় যদি আপনি না জেনে পাসপোর্ট অফিসে যেয়ে থাকেন।তাহলে আপনাকে অর্ধেক কাজ করে আবারো আপনার এই পাসপোর্ট করার জন্য কি কি লাগে সেই বিষয়টি জেনে আবার আপনার ব্যাক করে বাসায় এসে এই কাগজপত্রগুলো রেডি করে আবার আপনাকে পাসপোর্ট অফিসে যেতে হবে।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

এজন্য পাসপোর্ট অফিসে বা যেকোন পাসপোর্ট করার জন্য কোন দোকানে যাওয়ার পূর্বে বা ই-পাসপোর্ট করার জন্য অনলাইনে আবেদন করার পূর্বে অবশ্যই আপনার পাসপোর্ট করার জন্য কি কি লাগে সেই বিষয়গুলো জেনে সেগুলি রেডি করে, আপনি পাসপোর্ট করার আবেদন করা বা পাসপোর্টের অফিসে যাওয়া আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

তো চলুন কথা না বাড়িয়ে পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ২০২২ তা জেনে নেই।

পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ২০২২

সরাসরি পুরাতন মেনুয়াল সিস্টেমে পাসপোর্ট আবেদন করতে কি কি লাগে তা আগে জেনে নিন

  • পাসপোর্টের আবেদন ফরম বা ডি আইপি ফরম ১ ডাউনলোড করে দুই কপি প্রিন্ট করে নিন। ফরমটি সঠিকভাবে আপনি ফর্মে থাকা নিয়ম অনুসরণ করে ফিলাপ করবেন বা পূরণ করে নিবেন।
  • পাসপোর্ট এর ফরম এর চতুর্থ পৃষ্ঠায় গেলে একজন সরকারি কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত ঘর রয়েছে। সেখানে আপনি সরকারি কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত করে নিন।
  • পূরণকৃত ফরম এ সদ্য তোলা দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি আঠা দিয়ে আপনি লাগিয়ে নিবেন। তবে আবেদনকারীর বয়স যদি 15 বছরের কম হয়ে থাকে তাহলে আপনি তার বাবা ও মায়ের স্ট্যাম্প সাইজের দুই কপি করে রঙিন ছবি আঠা দিয়ে লাগাতে হবে। ছবি লাগানোর পর তা সত্যায়িত করতে হবে।
  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র কিংবা জন্ম সনদ পত্রের 2 কপি সত্যায়িত করে নিতে হবে।
  • আবেদনকারী যদি ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, গাড়িচালক কিংবা অন্যান্য ক্যাটাগরি পেশায় জড়িত থেকে থাকে সে ক্ষেত্রে পেশাগত সনদপত্র সত্যায়িত করে সংযুক্ত করতে হবে।
  • কেউ যদি অফিসিয়াল পাসপোর্ট আবেদন করতে চায় তাহলে সরকারি আদেশ তথা গভমেন্টের অর্ডার বা জিও সংযুক্ত করতে হবে।
  • আবেদনকারী যদি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে পেনশন বুকের ফটোকপি প্রদান করলে সাধারণ শীতে জরুরি সেবা পাবেন।

উপরের এই সকল কাগজপত্র গুলি নিয়ে যদি আপনি পাসপোর্ট অফিসে যান তাহলে আপনার সরাসরি পুরাতন মেনুয়াল সিস্টেমে পাসপোর্ট আবেদন করার কাজটি সঠিকভাবে সম্পন্ন হবে আপনার কোন প্রকারের হেজিটেশন বা হয়রানির মুখে পড়তে হবে না ইনশাআল্লাহ।

ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে

চলুন এবার জেনে নিই ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে। পাসপোর্ট আবেদন করা থেকে শুরু করে পাসপোর্ট হাতে পাওয়া পর্যন্ত আমাদেরকে অনেক রকম ভোগান্তি এবং হয়রানির সম্মুখীন হতে হয়। সেই সমস্যাটা কিছুটা হলেও লাঘব করতে পেরেছে ই-পাসপোর্ট আবেদন এই সেবাটি।

ই পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে
পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২

সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো ই-পাসপোর্ট আবেদন করার জন্য আপনাকে কোন ধরনের কোনো কাগজপত্র, ছবি সত্যায়িত করতে হয় না এবং ই-পাসপোর্ট আবেদন অনলাইনে করতে পারবেন এই পাসপোর্ট বানাতে কি কি লাগে তা চলুন দেখে নিই।

  • ই-পাসপোর্ট আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র।
  • আবেদনকারী যদি অপ্রাপ্তবয়স্ক হয়ে থাকে, তাহলে পাসপোর্ট আবেদনের জন্য অনলাইন জন্ম নিবন্ধন এর পাশাপাশি বাবা ও মায়ের ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার প্রয়োজন হবে।
  • আবেদনকারী যদি কারিগরি পেশার সাথে জড়িত থাকে তাহলে তাকে অবশ্যই টেকনিক্যাল সনদ আপলোড করতে হবে।
  • আবেদনকারী যদি ছাত্র বা ছাত্রী হয়। তাহলে আপনাকে অবশ্যই স্টুডেন্ট আইডি কার্ড অথবা প্রত্যায়নপত্রের মূলকপি ও ফটোকপি পাসপোর্ট অফিসে যাওয়ার সময় সঙ্গে নিতে হবে অথবা ই-পাসপোর্ট আবেদন করার সময় আপনার কাছে রাখতে হবে।
  • আবেদনকারী ই-পাসপোর্ট আবেদন করার পর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে যাওয়ার সময় অনলাইন আবেদন পত্রের কপি পেজের দুই পাশে প্রিন্ট করবেন এবং সেই কপিটি সংরক্ষণ করবেন।
  • ই পাসপোর্ট আবেদন করার পূর্বে আবেদনকারীকে অবশ্যই ব্যাংকে পাসপোর্ট ফি জমা দিতে হবে এবং সেই রশিদ আপনার প্রয়োজন পড়বে।
  • আবেদনকারীর বর্তমান ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা ভিন্ন হলে স্থায়ী ঠিকানার নাগরিক সনদপত্র থাকতে হবে এবং বর্তমান ঠিকানা কমিশনার নাগরিক পত্র অথবা চাকরিতে প্রতিষ্ঠান প্রত্যয়ন পত্র বা আইডি কার্ড কর্মজীবীদের ক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রত্যয়নপত্র অথবা স্টুডেন্ট আইডি কার্ড ছাত্রদের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হবে।
  • আবেদনকারীর পাসপোর্ট রি-ইস্যু বা নবায়ন করার ক্ষেত্রে পূর্বের পাসপোর্ট ফটোকপি দিতে হবে এবং মূল পাসপোর্ট আঞ্চলিক অফিসে নিয়ে যেতে হবে।
  • হারানো পাসপোর্ট পুনরায় প্রিন্ট করার জন্য পাসপোর্ট ফটোকপি ও জিডিও ফটোকপি দিতে হবে এবং মূল জিডি কপি প্রদর্শন করতে হবে।
  • আবেদনকারী যদি বৈবাহিক হয়ে থাকে। তাহলে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বিবাহ স্মরণিকা নামা এবং বিবাহ বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে তালাকনামা দাখিল করতে হবে এবং পরবর্তী পাসপোর্ট বা ভোটার আইডি কার্ডের অবিবাহিত থাকলে স্বামী-স্ত্রীর ভোটার আইডি কার্ড আপলোড করতে হবে।
  • আবেদনকারী যদি সরকারি কর্মচারী হয়ে থাকেন তাহলে জিও এনওসি বা প্রত্যয়নপত্র বা PRL অর্ডার বা পেনশন বই থাকলে আপলোড করুন, এতে নিয়মিত ডেলিভারি পাসপোর্ট ফি জমা দিয়েও জরুরী সেবা এক্সপ্রেস ডেলিভারি পাবেন।

পাসপোর্ট আবেদন জমা দেওয়ার নিয়ম

উপরের এই সকল নিয়ম অনুসরণ করে অনলাইনের ই-পাসপোর্ট যখন আপনি আবেদন করে ফেলবেন, তখন আবেদনপত্রের সঙ্গে আপনাকে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে যাওয়ার পূর্বে অবশ্যই ব্যাংক রশিদ, অনলাইন আবেদন পত্রের প্রিন্ট কপি, জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম সনদ পত্র এর ফটোকপি, বাবা ও মায়ের ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি একসাথে স্ট্যাম্প দিয়ে সংযুক্ত করে বাংলাদেশ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে জমা দিবেন।

প্রয়োজনেই পাসপোর্ট জমা দেওয়ার সময় আপনি আঞ্চলিক অফিসে যাওয়ার পুর্বে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের মূল কপি নিয়ে যাবেন আপনার হয়তো তারা প্রমাণ স্বরূপ আপনার মূল কপি দেখতে পারে সেক্ষেত্রে আপনার কোন ধরনের কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না।

আশা করছি উপরের এই সকল বিষয় থেকে আপনি পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে এই সকল বিষয়ে পুরোপুরি ভাবে বুঝে গিয়েছেন।

অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে

চলুন এবার জেনে নিই আমার আপনার সন্তান অর্থাৎ অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে-

পাসপোর্ট আবেদনকারীর বয়স যদি ছয় বছরের কম হয় সে ক্ষেত্রে কি কি লাগে?

  • মাতা অথবা পিতার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে
  • ইংলিশ ভার্শন আবেদনকারীর অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রয়োজন হবে।
  • থ্রি আর সাইজের ল্যাব প্রিন্ট ব্যাকগ্রাউন্ড এর ছবি দেখেন করতে হবে।

পাসপোর্ট আবেদনকারীর বয়স যদি 18 বছরের কম হয় সে ক্ষেত্রে কি কি লাগে?

  • আবেদনকারীর অবশ্যই পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার এবং জাতীয় পরিচয় পত্র প্রয়োজন হবে।
  • আবেদনকারীর ইংলিশ ভার্সনের অনলাইন জন্ম সনদপত্র প্রয়োজন হবে।

আবেদনকারীর বয়স যদি 18 থেকে 20 বছর হয় তাহলে কি কি লাগবে?

  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন পত্র প্রয়োজন হবে। এছাড়াও পাসপোর্ট আবেদনকারীর বয়স 20 বছরের বেশি হলে ভোটার আইডি কার্ড বাধ্যতামূলক তবে বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশন বা দূতাবাসে পাসপোর্ট আবেদনের ক্ষেত্রে বিআরসি ইংলিশ ভার্শন অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ আবেদন করা যাবে।

বাংলাদেশে পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে

অনেকেই আমাদের মধ্যে রয়েছে এই বিভ্রান্তিকর প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে থাকেন এবং গুগলের প্রতিনিয়ত সার্চ করে থাকেন বাংলাদেশ পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে?আসলে দেখুন আমরা এতক্ষন উপরে যে বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করেছি এই সকল বিষয় বা পাসপোর্ট করার জন্য যে সকল বিষয় প্রয়োজন পড়ে থাকে সেই সকল বিষয়ে বাংলাদেশ পাসপোর্ট করতে প্রয়োজন পড়ে থাকে ।

অর্থাৎ আপনি বাংলাদেশ পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে এই বিষয়টি হয়তোবা আমার এই কথাটিতে ক্লিয়ারলি বুঝে গিয়েছেন। এরপরেও যদি আপনি বুঝতে অসুবিধা হয়, তাহলে পরিষ্কার ভাবে বলি উপরে পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে যে বিষয়গুলি আমি জানিয়েছি সেই সকল বিষয়ে বাংলাদেশ পাসপোর্ট করতে লেগে থাকে।

পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২

এখন চলুন জেনে নিই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে। তো পাসপোর্ট করতে আসলে কত টাকা লাগে এটি নির্ভর করে পাসপোর্ট এর মেয়াদ এবং পাসপোর্ট এর পৃঠার উপরে এবং পাসপোর্ট এর ডেলিভারির উপরে তো চলুন নিচে আমি আপনাদেরকে সম্পূর্ণ বিস্তারিত দেখে দিচ্ছি একটি পাসপোর্ট করতে কিভাবে কত টাকা আপনাকে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে জমা দিতে হয় সে বিষয়ে।

পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২
পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২

৫ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট ফি

ডেলিভারি ৫ বছর মেয়াদি ৪৮ পাতা ই পাসপোর্ট ফি ৫ বছর মেয়াদি ৬৪ পাতা ই পাসপোর্ট ফি
রেগুলার 4,025 টাকা 6,325 টাকা
এক্সপ্রেস/জরুরী 6,325 টাকা 8,625 টাকা
সুপার এক্সপ্রেস 8,625 টাকা 12,075 টাকা

 

১০ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট ফি:

ডেলিভারি ১০ বছর মেয়াদি ৪৮ পাতা ই পাসপোর্ট ফি ১০ বছর মেয়াদি ৬৪ পাতা ই পাসপোর্ট ফি
রেগুলার 5,750 টাকা 8,050 টাকা
এক্সপ্রেস/জরুরী 8,050 টাকা 10,350 টাকা
সুপার এক্সপ্রেস 10,350 টাকা 13,800 টাকা

 

ই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২২

এখন আমাদের মধ্যে আবার অনেকেই রয়েছে এই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে সে বিষয়ে জানতে চেয়ে গুগলে বিভিন্ন রকম ভাবে সার্চ করে থাকেন এবং বিভিন্ন আঞ্চলিক অফিসের হেল্পলাইন নাম্বারে ফোন দিয়ে জিজ্ঞেস করে থাকে।

তো তাদের উদ্দেশ্যে আমি বলবো ই-পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে এই বিষয়টি হচ্ছে, উপরে আমি পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে যে ফরম্যাটটি বা যে নিয়মগুলি এবং যে অ্যামাউন্ট গুলি আপনাদেরকে জানিয়েছি সেটি ই-পাসপোর্ট করার ক্ষেত্রে এটি প্রয়োজন পড়ে থাকে।

অর্থাৎ সরকারিভাবে পাসপোর্ট ফি অর্থাৎ পাসপোর্ট করার জন্য যে এমাউন্ট লেগে থাকে তার জন্য ই-পাসপোর্ট বা মেনুয়াল পাসপোর্ট এর ভিন্ন ভিন্ন কোন সিস্টেম বা অ্যামাউন্ট নেই।

10 বছর মেয়াদি পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে

আবার আমাদের মধ্যে অনেকেই 10 বছর মেয়াদি পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে সেই বিষয়ে বিভিন্ন জনের কাছে প্রশ্ন করে থাকে এবং গুগলে সার্চ করে থাকেন তাদের উদ্দেশ্যে আমি বলবো 10 বছর মেয়াদি পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে সেই বিষয়টিও আমি উপরে দেখিয়ে দিয়েছি আপনারা সেখান থেকে দেখে নিলে সঠিক আঞ্চলিক অফিসের অনুযায়ী কত টাকা পাসপোর্ট করতে প্রয়োজন হবে সে বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে বুঝে যাবেন।

শেষ কথা

পরিশেষে আমি আপনাদেরকে একটি কথাই বলবো আপনারা যারা এই পোস্টটি পড়েছেন এবং পড়ছেন তাদের উদ্দেশ্যে বলব এই পোস্টটি সম্পুর্ণ আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলা এবং লেখা কারন আমি নিজেও পাসপোর্ট করেছি সেম সিস্টেমে এজন্য আমি মনে করলাম আপনাদের মাঝে আমার নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতা টি শেয়ার করলে হয়তো বা এই পাসপোর্ট সংক্রান্ত অনেক বিষয় থেকে আপনারা উপকৃত হবেন।

এবং এই পাসপোর্ট সম্পর্কিত আরো সব ধরনের তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে থাকা পাসপোর্ট এর যে ক্যাটাগরিতে রয়েছে সে ক্যাটাগরি থেকে সব ধরনের পাসপোর্ট সম্পর্কিত তথ্য গুলি আপনি জেনে নিতে পারবেন।

আপনার জন্য-

পাসপোর্ট দিয়ে ভ্যাকসিন নিবন্ধন করার সঠিক নিয়ম

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৩৯৯ other subscribers

pp

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম