তালেবান শব্দের অর্থ কি?তালেবানের ইতিহাস সম্পর্কে বিস্থারিত

তালেবানের ইতিহাস-কখনো কখনো ইতিহাস এমনভাবে উন্মোচিত হয়, যা আমাদের চিন্তা জগতকে ছাড়িয়ে যায়।তালেবানের এমন উত্থান ভবিষ্যতের জন্য কি বার্তা বয়ে আনতে পারে, সে বিষয়ে আলোকপাতের পূর্বে তালেবানের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও তাদের কর্মকাণ্ড বিষয়ে জানাটা জরুরি।

যেসকল বিষয় যানতে পারবেন-তালেবানের ইতিহাস,তালেবান কি সন্ত্রাসী,বর্তমান তালেবান প্রধান,তালেবানের ইতিহাস pdf,তালেবান পতাকা,তালেবান শব্দের অর্থ কি,তালেবান সৃষ্টির ইতিহাস,তালেবান মুজাহিদ,ওসামা বিন লাদেন তালেবান ও আমেরিকা pdf।

ইসরায়েলের ইতিহাস সম্পর্কে বিস্থারিত যেনে নিন

তালেবানের ইতিহাস,

তালেবান শব্দের অর্থ কি

পশতু ভাষায় তালেবান মানে ‘ছাত্র’। 1990-এর দশকের গোড়ার দিকে উত্তর পাকিস্তানে তালেবান আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল, যখন সোভিয়েত সৈন্যরা আফগানিস্তান থেকে প্রত্যাহার করেছিল।

1995 সালের সেপ্টেম্বরে, তারা ইরানের সীমান্তবর্তী আফগান প্রদেশ হেরাত দখল করে। ঠিক এক বছর পরে, তারা আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে।

বর্তমান তালেবান প্রধান

তালেবান তাদের সরকার প্রধান হিসেবে মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দের নাম ঘোষণা করে।

আফগানিস্তানের নতুন নেতা মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দের জন্ম কান্দাহারে। সেখানে একটি মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেন।

তার প্রকৃত বয়স নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে। তার বয়স 60 থেকে 70 বছরের মধ্যে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে ইইউ-এর নিষেধাজ্ঞার তালিকা অনুযায়ী তার বয়স ৩৫ বছর। যাইহোক, বয়সের পার্থক্য সত্ত্বেও, মোল্লা আখুন্দ তালেবানের বর্তমান শীর্ষ নেতাদের মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক।

২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসের ইতিহাস

1994 সালে আফগান গৃহযুদ্ধের সময় মোল্লা মোহাম্মদ ওমরের নেতৃত্বে কান্দাহারে তালেবান আন্দোলনের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য মোল্লা হাসান আখুন্দ ছিলেন কয়েকজন মাদ্রাসা-শিক্ষিত জাতিগত পশতুন যুবকদের একজন।

সবচেয়ে আলোচিত সম্ভাব্য সরকারপ্রধান হলেন তালেবানের রাজনৈতিক শাখার প্রধান মোল্লা আব্দুল গণি বারাদার, যিনি গত দুই বছর কাতারের রাজধানী দোহায় কাটিয়েছেন, আমেরিকানদের সাথে একটি সমঝোতার নেতৃত্ব দিয়েছেন।

মোল্লাহ হাসান আখুন্দ তালেবানের মূল নেতৃত্বের অত্যন্ত প্রভাবশালী একজন সদস্য এবং তালেবানের মধ্যে নেতৃত্ব এবং মাঠ পর্যায়ে তার গ্রহণযোগ্যতা, মর্যাদা-সম্মান অদ্বিতীয়।তালেবানের ইতিহাস,

তালেবানের ইতিহাস

তালেবান বা তালিবান (পশতু: طالبان, অনুবাদ ‘ছাত্র’) আফগানিস্তানের একটি দেওবন্দি ইসলামি আন্দোলন এবং সামরিক সংগঠন। ২০১৬ সাল থেকে মৌলভি হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা তালেবান নেতা।‌ ২০২১ সালের হিসাবে তালেবানের আনুমানিক ২,০০,০০০ যোদ্ধা রয়েছে।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানের প্রায় তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চল তালেবানের নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং তারা সেখানে ইসলামি আইন (শরিয়ত) প্রণয়ন করেছিলো।১৯৯৪ সালে আফগান গৃহযুদ্ধের অন্যতম প্রধান দল হিসেবে তালেবানের আবির্ভাব ঘটে।

এই দলটি মূলত পূর্ব ও দক্ষিণ আফগানিস্তানের পশতুন এলাকার ছাত্রদের (তালিব) নিয়ে গঠিত হয় যারা ঐতিহ্যবাহী ইসলামি বিদ্যালয়ে শিক্ষা লাভ করেছিলো এবং সোভিয়েত–আফগান যুদ্ধের সময় যুদ্ধ করেছিলো।

মোহাম্মদ ওমরের নেতৃত্বে, এই আন্দোলন আফগানিস্তানের বেশিরভাগ অংশে ছড়িয়ে পড়ে। ১৯৯৬ সালে আফগানিস্তান ইসলামি আমিরাত প্রতিষ্ঠিত হয় এবং আফগান রাজধানী কান্দাহারে স্থানান্তরিত হয়।

১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর ২০০১ সালের ডিসেম্বরে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে আক্রমণের পর ক্ষমতাচ্যুত না হওয়া পর্যন্ত দেশের বেশিরভাগ অংশ তালেবানের নিয়ন্ত্রণে ছিল। তালেবান সরকারকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছিলো মাত্র তিনটি দেশ: পাকিস্তান, সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত।

পরে এই দলটি আফগানিস্তান যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কারজাই প্রশাসন এবং ন্যাটো নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সহায়তা বাহিনীর (আইএসএএফ) বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য একটি বিদ্রোহ আন্দোলন হিসেবে পুনরায় একত্রিত হয়।তালেবানের ইতিহাস,

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও আফগান সরকার ব্যাপকভাবে অভিযোগ করে, তালেবানের প্রতিষ্ঠা ও ক্ষমতায় থাকাকালীন পাকিস্তান ইন্টার-সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্স ও সামরিক বাহিনী তাদের সহায়তা প্রদান করেছে এবং বিদ্রোহের সময় তালেবানদের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখেছে।

?? গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন ??

পাকিস্তান জানায়, ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর তারা এই দলকে আর সমর্থন করছে না। জানা যায়, ২০০১ সালে আল-কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনের অধীনে থাকা ২,৫০০ আরব তালেবানের পক্ষে যুদ্ধ করে।

২০২১ সালের ১৫ আগস্ট কাবুলের পতনের পর তালেবান আফগানিস্তানের শাসনব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণ ফিরে পায়।

তালেবানদের ইতিহাসঃ১৯৯৪”

তালেবান পূর্ব ও দক্ষিণ আফগানিস্তানের পশতুন এলাকার ধর্মীয় শিক্ষার্থীদের (তালিব) একটি আন্দোলন যারা পাকিস্তানের ঐতিহ্যবাহী ইসলামি বিদ্যালয়ে শিক্ষা লাভ করেছিলো। এদের সাথে তাজিক এবং উজবেক ছাত্ররাও যোগদান করে।

তাই অন্যান্য নৃ-গোষ্ঠীভিত্তিক মুজাহিদী দলগুলো হতে এর বৈশিষ্ট্যগত পার্থক্য রয়েছে “যা তালেবানের দ্রুত বৃদ্ধি এবং সাফল্যে মূল ভূমিকা পালন করেছিলো।”

শিক্ষা ও অনুপ্রেরণা

১৯৯৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মোল্লা মোহাম্মদ ওমর তার শহর কান্দাহারে ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে এই দলটি প্রতিষ্ঠা করেন।১৯৯২ সাল থেকে তিনি মাইওয়ান্দ (উত্তর কান্দাহার প্রদেশ) এর সাং-ই-হিসারে মাদ্রাসাতে অধ্যয়নরত ছিলেন।

রক্তাক্ত কারবালার ইতিহাস-সত্যের দিশারি

কমিউনিস্ট শাসন উৎখাতের পর আফগানিস্তানে ইসলামি আইন প্রতিষ্ঠিত না হওয়ায় তিনি অসন্তুষ্ট ছিলেন এবং তার দলের সাথে আফগানিস্তানকে যুদ্ধবাজ ও অপরাধীদের হাত থেকে মুক্ত করার অঙ্গীকার করেন।

কয়েক মাসের মধ্যে, মাদ্রাসার ১৫,০০০ শিক্ষার্থী (একটি সূত্র মাদ্রাসাগুলোকে “জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কর্তৃক পরিচালিত মাদ্রাসা” বলে অভিহিত করে) পাকিস্তানে এই দলে যোগ দেয়।

কান্দাহার বিজয়

১৯৯৪ সালের ৩ নভেম্বর তালেবান এক আকস্মিক হামলায় কান্দাহার শহর জয় করে। ১৯৯৫ সালের ৪ জানুয়ারির পূর্বে ১২টি আফগান প্রদেশ তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন।  বিভিন্ন এলাকা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীরা প্রায়ই বিনা যুদ্ধে আত্মসমর্পণ করতো।

মোহাম্মদ ওমরের কমান্ডাররা ছিল প্রাক্তন ছোট-ইউনিটের সামরিক কমান্ডার এবং মাদ্রাসা শিক্ষক। তালেবানরা সেসময় জনপ্রিয় ছিল কারণ তারা দুর্নীতি ও অনাচার দমন করেছিলো এবং রাস্তা ও এলাকাগুলো নিরাপদ করে তুলেছিলো।

তালেবানদের লক্ষ্য

তালেবান বলেছে, আফগানিস্তানে শান্তি ও নিরাপত্তা ফিরিয়ে আনাই তাদের লক্ষ্য,পশ্চিমা সৈন্যদের চলে যাওয়া, এবং ক্ষমতায় থাকাকালীন তাদের নিজস্ব ব্যাখ্যায় শরিয়ত আইন বা ইসলামি আইন প্রনয়ণ।

তালেবানদের নিন্দিত কর্মকাণ্ড

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তাদের শাসনামলে, তালেবান এবং তাদের সহযোগীরা আফগান নাগরিকদের বিরুদ্ধে গণহত্যা করেছে, ১৬০,০০০ অনাহারী নাগরিকের জন্য জাতিসংঘের খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করেছে, উর্বর ভূমির বিস্তীর্ণ এলাকা পুড়িয়ে দিয়েছে এবং হাজার হাজার ঘরবাড়ি ধ্বংস করেছে।

তালেবানদের গণহত্যা         

জাতিসংঘের ৫৫ পৃষ্ঠার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তালেবানরা উত্তর ও পশ্চিম আফগানিস্তানে নিয়ন্ত্রণ সুসংহত করার চেষ্টা করার সময় বেসামরিক লোকদের বিরুদ্ধে পদ্ধতিগতভাবে গণহত্যা করেছে। জাতিসংঘের কর্মকর্তারা বলেছেন যে ১৯৯৬ এবং ২০০১ এর মধ্যে “১৫ টি গণহত্যা” হয়েছিল। প্রতিবেদনটি এই হত্যাকাণ্ডে আরব ও পাকিস্তানি সহায়তাকারী সৈন্যদের ভূমিকাও প্রকাশ করে।তালেবানের ইতিহাস,

জাতিসংঘের প্রতিবেদনে উদ্ধৃত করা হয়েছে “অনেক গ্রামে প্রত্যক্ষদর্শীরা বর্ণনা করেছেন যে আরব যোদ্ধারা গলা কাটা এবং চামড়া কাটার জন্য ব্যবহৃত দীর্ঘ ছুরি বহন করে”। পাকিস্তানে তালেবানের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত মোল্লা আবদুল সালাম জাইফ ২০১১ সালের শেষের দিকে বলেছিলেন যে তালেবানদের অধীনে এবং তাদের দ্বারা নিষ্ঠুর আচরণ “প্রয়োজনীয়” ছিল।

তালেবানদের মানব পাচার   

বেশ কয়েকজন তালেবান ও আল-কায়েদা কমান্ডার মানব পাচারের একটি নেটওয়ার্ক চালায়, জাতিগত সংখ্যালঘু নারীদের অপহরণ করে এবং আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে যৌন দাসী হিসাবে বিক্রি করে।টাইম ম্যাগাজিনে লিখা হয়:”তালেবানরা প্রায়ই যুক্তি দিত যে তারা নারীদের উপর যে বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল তা আসলে নারীদের রক্ষা করার একটি উপায়”।

মানব পাচারের টার্গেট হয় বিশেষ করে তাজিক, উজবেক, হাজারা এবং আফগানিস্তানের অন্যান্য অ-পশতুন জাতিগোষ্ঠীর নারীরা। কিছু নারী দাসত্বের চেয়ে আত্মহত্যা করতে বেছে নিয়ে, আত্মহত্যা করে।

১৯৯৯ সালে শুধুমাত্র শোমালি সমভূমিতেই তালেবান ও আল-কায়েদার আক্রমণে ৬০০ এরও বেশি নারীকে অপহরণ করা হয়েছিল। স্থানীয় তালেবান বাহিনীর সঙ্গে আরব ও পাকিস্তানি আল-কায়েদার জঙ্গিরা তাদের ট্রাক ও বাসে জোর করে নিয়ে যায়।তালেবানের ইতিহাস,

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে,তাদের মধ্যে সুন্দরীদের বাছাই করা হয়েছিল এবং নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। ত্রাণ সংস্থার কর্মকর্তারা বলছেন, নিখোঁজ নারীদের অনেকেরেই পাকিস্তানের যৌনপল্লী ও বাসাবাড়িতে দাসী হিসাবে থাকার সন্ধান মিলেছে।তবে সব তালেবান কমান্ডার মানব পাচারের সাথে জড়িত নয়।

অনেক তালেবান আল-কায়েদা এবং অন্যান্য তালেবান কমান্ডারদের দ্বারা পরিচালিত মানব পাচার অভিযানের বিরোধী ছিল। জালালাবাদে, স্থানীয় তালেবান কমান্ডাররা আল-কায়েদার আরব সদস্যদের দ্বারা একটি ক্যাম্পে আটকে রাখা মহিলাদের মুক্ত করে দেয়।

তালেবানদের অধীনে নারীদের উপর নিষ্ঠুর আচরণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে এবং প্রচুর আন্তর্জাতিক নিন্দার সম্মুখীন হয়। তালেবানরা নারীদের শিক্ষিত হতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে, মেয়েদের স্কুল -কলেজ ছাড়তে বাধ্য করে।ঘর থেকে বের হওয়া মহিলাদের বোরকা পড়া ও সাথে একজন পুরুষ আত্মীয় থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়।

নিয়ম অমান্য করলে প্রকাশ্যে মারধর করা হয়। একটি ঘটনায়, সোহাইলা নামক এক মেয়েকে আত্মীয় নয় এমন একজন পুরুষের সাথে হাটার কারণে ব্যভিচারের অভিযোগে তাকে গাজী স্টেডিয়ামে প্রকাশ্যে ১০০ বেত্রাঘাত করা হয়।

নারীর কর্মসংস্থান মেডিকেল সেক্টরে সীমাবদ্ধ করা হয়, যেখানে পুরুষ চিকিৎসা কর্মীদের নারী ও মেয়েদের চিকিৎসা করা নিষিদ্ধ হয়। মহিলাদের কর্মসংস্থানের উপর এই ব্যাপক নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলি ব্যাপকভাবে বন্ধ হয়ে যায়, কারণ তালেবানের উত্থানের পূর্বে প্রায় সব শিক্ষকই ছিলেন নারী।

নাগরিকদের বিরুদ্ধে সহিংসতা

জাতিসংঘের মতে, তালেবান ও তাদের মিত্ররা ২০০৯ সালে আফগানিস্তানে ৭৬% বেসামরিক হতাহতের জন্য দায়ী যা ২০১০ সালে ৭৫% এবং ২০১১ সালে ৮০%।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে, তালেবানের বোমা হামলা এবং অন্যান্য হামলায় বেসামরিক মানুষ হতাহত হওয়া “২০০৬ সালে ব্যপকভাবে বৃদ্ধি পায়” যখন “কমপক্ষে ৬৬৯ জন আফগান বেসামরিক নাগরিক, প্রায় ৩৫০ টি সশস্ত্র হামলায় নিহত হয়, যার অধিকাংশই ইচ্ছাকৃতভাবে সাধারন মানুষের উপর চালানো হয়েছে বলে মনে হয়।”

হিন্দু, শিখ ও বৌদ্ধদের প্রতি বৈষম্য

আফগানিস্তানে তালেবান শাসন দখলের পর, তারা একটি কঠোর শরিয়া আইন জারি করে এবং তারপরে তাদের বিরুদ্ধে বৈষম্য শুরু হয় এবং হিন্দু, বৌদ্ধ এবং শিখদের জনসংখ্যা খুব দ্রুত হারে হ্রাস পায়। তালেবানরা আদেশ জারি, যা অমুসলিমদের উপাসনালয় নির্মাণ করতে নিষেধজ্ঞা প্রদান করে।

কিন্তু তাদেরকে বিদ্যমান পবিত্র স্থানে পূজা করার অনুমতি দেওয়া হয়।, অমুসলিমদের মুসলমানদের সমালোচনা করতে নিষেধজ্ঞা প্রদান করা হয়, অমুসলিমদের তাদের ছাদে হলুদ কাপড় লাগিয়ে তাদের বাড়ি চিহ্নিত করার নির্দেশ দেয়া হয়,

অমুসলিমদের মুসলমানদের একই সাথে বসবাস করতে নিষেধজ্ঞা দেওয়া হয়, এবং অমুসলিম মহিলাদের একটি বিশেষ চিহ্ন দিয়ে হলুদ পোশাক পরতে বলা হয় যাতে মুসলমানরা তাদের দূরত্ব বজায় রাখতে পারে। (মূলত হিন্দু, বৌদ্ধ ও শিখদের বলা হয়েছিলো)

সাহায্য কর্মী এবং খ্রিস্টানদের বিরুদ্ধে সহিংসতা

২০০৮ সালে ২৯ জন ত্রান/সাহায্য কর্মীকে হত্যা করা হয় যাদের মধ্যে ৫ জন বিদেশীও ছিলো। ২০১০ সালে ১০ জন চিকিৎসা সাহায্য কর্মীকেও খ্রীষ্টান ধর্ম প্রচার করছে দাবি করে হত্যা করা হয়।তালেবানের ইতিহাস,

২০১২ সালে, পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানে পাকিস্তানি তালেবান কমান্ডার পোলিও টিকা নিষিদ্ধ করা হয়। তালেবানের ধারণা টিকাকর্মীরা গুপ্তচর এবং খ্রিস্টান ধর্ম প্রচার করে।

তালেবান আধুনিক শিক্ষাকে সীমাবদ্ধ করা

আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক স্কুল ধ্বংস করা হয়।তালেবানরা শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর নৃশংস হামলা চালায় এবং অভিভাবক ও শিক্ষকদের হুমকি দেয়।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে, জাতিসংঘের মানবিক বিষয়ক সমন্বয় কার্যালয় (ওসিএইচএ) রিপোর্ট মতে তালেবানরা এক হাজারেরও বেশি স্কুল ধ্বংস, ক্ষতিগ্রস্ত বা দখল করেছে এবং শত শত শিক্ষক ও শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে।

তালেবান সাংস্কৃতি নষ্ট        

১১ আগস্ট ১৯৯৮, তালেবান পুলি খুমরি পাবলিক লাইব্রেরি ধ্বংস করে। লাইব্রেরিতে ৫৫,০০০ এরও বেশি বই এবং পুরাতন পাণ্ডুলিপি ছিল এবং এটি আফগানদের জাতি এবং তাদের সংস্কৃতির সবচেয়ে মূল্যবান এবং সুন্দর সংগ্রহ হিসাবে বিবেচত ছিলো।

২০০১ সালের অক্টোবরে, তালেবান আফগানিস্তানের জাতীয় জাদুঘরের অন্তত ২৭৫০ টি শিল্পকর্ম ধ্বংস করে।  ক্ষমতায় আসার পর থেকে এবং ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পরও, তালেবানরা সাংস্কৃতিক লোকসংগীত সহ সমস্ত সঙ্গীত নিষিদ্ধ করে এবং বেশ কয়েকজন সংগীতশিল্পীকে আক্রমণ ও হত্যাও করেছে।

বিনোদন এবং বিনোদনমূলক কার্যক্রম নিষিদ্ধ

১৯৯৬-২০০১ -এর তালেবান শাসনামলে, তারা ফুটবল, ঘুড়ি ওড়ানো এবং দাবা সহ অনেক বিনোদনমূলক কাজকর্ম এবং খেলা নিষিদ্ধ করেছিল। টেলিভিশন, চলচ্চিত্র, গান এবং স্যাটেলাইট ডিশের মতো সাধারণ বিনোদনও নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

বাচ্ছাদের ঘুড়ি ওড়ানো সময় ধরতে পারলে মারধোর করা হত। নিষিদ্ধ জিনিসের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল বাদ্যযন্ত্র এবং জীবন্ত প্রাণীর ছবি বা শোপিস।

তালেবান পতাকা

আফগান গৃহযুদ্ধের সময় তালেবানরা শুধুমাত্র সাদা পতাকা ব্যবহার করতো। ১৯৯৬ সালে কাবুলের ওপর নিয়ন্ত্রণভার গ্রহণ করে ও আফগানিস্তানকে ইসলামিক আমিরাত ঘোষণা করে।

সাদা পতাকাকে জাতীয় পতাকা হিসেবে চিত্রিত করে। ‘তাদের বিশ্বাসবোধ এবং সরকারের বিশুদ্ধতার প্রতীক’রূপে তুলে ধরা হয়। ১৯৯৭ সালের পর ঐ পতাকায় শাহাদাহ চিহ্ন যুক্ত করা হয়।

তালেবানের ইতিহাস pdf

তালেবান সম্পর্কে অনেকেই জানতে চাই এবং গুগলে ইন্টারনেটে বিভিন্ন বিষয়ে তালেবান নিয়ে সার্চ করে থাকে। তাই আজকে আমি আপনাদেরকে তালেবানের পুরোপুরি ইতিহাসের পিডিএফ ফাইলটি ডাউনলোড লিংক দিয়ে দিচ্ছি, এখান থেকে আপনার তালেবানের ইতিহাস বই ডাউনলোড করে নিন

ওসামা বিন লাদেন তালেবান ও আমেরিকা pdf

ওসামা বিন লাদেন তালেবান সম্পর্কিত বই অনেকেই ইন্টারনেটে বা গুগলে সার্চ করে থাকেন এবং ওসামা বিন লাদেন সম্পর্কে এবং তার মৃত্যু সম্পর্কে জানতে চায় তাদের জন্য আমি ওসামা বিন লাদেনের বইটি ডাউনলোড লিংক নিচে দিয়ে দিচ্ছি আপনারা খুব সহজেই এখান থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

আরও পড়ুন-

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস

বঙ্গবন্ধুর জীবনী ইতিহাস- বঙ্গবন্ধু কে ছিলেন? কোথাই থেকে এসেছেন? কেমন ছিলেন?

ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারণা থাকা প্রতিটি বাঙ্গালির জন্য কর্তব্য

ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

মিয়া খলিফা সম্পর্কে  অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ২৬৩ other subscribers

 

এছাড়াও আমাদের প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এএখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন এই লিংকে

স্বাস্থ্যকর খাবার সম্পর্কিত ইংলিশে সকল সঠিক তথ্য জানতে আমাদের SS IT BARI- ভালোবাসার টেক ব্লকের আরেকটি সংস্করণ, US IT BARI- All About Healthy Foods ওয়েব সাইট টি ভিজিট করতে পারেন।
বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন –www.usitbari.com

WhatsApp Image 2022 02 01 at 9.56.07 AM

SS IT BARI- ভালবাসার টেক ব্লগ এ হেলথ/স্বাস্থ্য/স্কিন কেয়ার  এবং ইতিহাস বিষয়ক লেখালিখি করি। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, SS IT BARI-আমার হাতেখড়ি। হেলথ/স্বাস্থ্য/স্কিন কেয়ার বিষয়ক বিশ্লেষণ বাংলায় জানতে ভিজিট করুন http://ssitbari.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.