ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করবে ঘরোয়া এই খাবারগুলো-Healthy Bangla Tips

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার-হাড় শক্ত মজবুত করতে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের কোন তুলনা নেই। হাড়ের ক্ষয় রোধ করতে এবং হারকে শক্তিশালী রাখতে খাদ্য তালিকায় ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার থাকা খুবই জরুরী। ক্যালসিয়াম হারকে সুস্থ রাখতে একটি প্রয়োজনীয় বা অপরিহার্য ভিটামিন। আর এই ক্যালসিয়ামের ঘাটতিতে অনেকেই বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় ভোগে যার কারণে এই ঘাটতি পূরণে ডাক্তাররা ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ ঘরোয়া কিছু খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করবে ঘরোয়া

শুধুমাত্র হাড়ের ক্ষেত্রে নয় ক্যালসিয়াম হার্ট ভালো রাখে স্নায়ুতন্ত্র মাংসপেশীকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে।সুস্থ সবল ভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির প্রতিদিন অন্তত ১০০০ মিলিগ্রাম করে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত।

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার গুলো সম্পর্কে আজকের আর্টিকেলে তুলে ধরব। যেসব খাবারে পাওয়া যাবে পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্যালসিয়াম সেই খাবারগুলো সম্পর্কে জেনে নিন আজকের আর্টিকেল থেকে।

ক্যালসিয়াম কি

আমাদের দেহের অন্যান্য ভিটামিন বা খনিজের মতো ক্যালসিয়াম অতি প্রয়োজনীয় একটি ভিটামিন। ক্যালসিয়াম শরীরকে শক্তিশালী রেখে সক্ষম হয়ে আমাদের দাঁড়িয়ে থাকতে সহায়তা করে। আমাদের শরীরের অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হাড়ের ক্ষয় রোধে পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্যালসিয়াম থাকা জরুরি। হাড়কে সুস্থ সবল রাখতে ক্যালসিয়াম অত্যন্ত প্রয়োজন।

ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবারের তালিকা 

এছাড়াও ক্যালসিয়াম স্নায়ুতন্ত্র কে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। হাড়ের সাথে সাথে ক্যালসিয়াম দাঁত কেউ মজবুত রাখে। ক্রমবর্ধমান কিশোর কিশোরী এবং শিশুদের ক্ষেত্রে একজন প্রাপ্তবয়স্কর তুলনায় বেশি পরিমাণে ক্যালসিয়াম প্রয়োজন হয়।একজন বৃদ্ধ মহিলারও অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি কোনভাবেই যাতে না হয় সেজন্য ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া অতীব জরুরি।

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার

আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় বেছে বেছে কিছু ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার রাখা অত্যন্ত প্রয়োজন।কারণ ক্যালসিয়ামের ঘাটতি দেখা দিলে আমাদের শরীর অকেজো হয়ে পড়বে। তাই হারকে মজবুত রাখতে এবং স্নায়ু পেশীকে কার্যকর রাখতে অবশ্যই ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারগুলো খাদ্য তালিকায় রাখুন। দেখে নিন ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার গুলো কি কি?

দুধ

দুধ অনেকেরই অনেক পছন্দের খাবার। এই দুধে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ভিটামিন এ ভিটামিন ডি এবং ল্যাকটোজ। ক্যালসিয়ামের অন্যতম একটি উৎস হচ্ছে দুধ। এক কাপ গরুর দুধে ২৭৬ থেকে ৩৫২ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণে দুধ খাওয়া খুবই জরুরী।

চিজ

ক্যালসিয়াম এবং প্রোটিনের অন্যতম একটি উৎস হচ্ছে চিজ। প্রতি অউন্স চিজ এ রয়েছে ৩৩১ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম। যাদের ক্যালসিয়ামের ঘাটতি রয়েছে তারা চিজ খেলে এই ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব।

টক দই

টক দই এমন একটি খাদ্য যাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম সঙ্গে রয়েছে জরুরী পুষ্টি সহ অনেক প্রোটিন।এক কাপ প্লেন টকদইতে প্রতিদিন যতটা ক্যালসিয়াম খাওয়া উচিত তারটাই শতাংশ থাকে এবং ভিটামিন বি১,ভিটামিন বি ১২ পটাশিয়াম এবং ফসফরাস থাকে।

কাঠবাদাম

প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে কাঠ বাদাম থেকে। বিভিন্ন পুষ্টিবিদদের মতে ১০০ গ্রাম কাঠ বাদামের প্রায় ২৬৬ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেটাতে প্রতিদিন খাবারের তালিকায় কাঠবাদাম রাখা উচিত।

ঢেঁড়স

ঢেঁড়স ক্যালসিয়ামে ভরপুর। শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে পারে ঢেঁড়স বা ভেন্ডি। ৫০ গ্রাম ঢেঁড়স বা ভেন্ডিতে 172 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণে ঢেঁড়স খাওয়া জরুরী।

তিলের বীজ

১০০ গ্রাম কাঁচা তিলের বীজে ১ হাজার মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে পুষ্টিবিদদের মতামত অনুযায়ী। এতে করে বোঝা যায় তিলের বীজে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে যা ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণে সহায়তা করতে পারে।

ব্রকলি

ব্রকলি ক্যালসিয়ামের অন্যতম একটি উৎসব। যদিও ব্রকলি দেশী সবজি না। আমাদের বাংলাদেশে এর চাষ অনেক কম। কিন্তু বিদেশি সবজি হওয়া সত্ত্বেও এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম। সবুজ রঙের এই ক্যালসিয়াম যুক্ত সবজিটি ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণের সহায়তা করবে।

আমন্ড

আমন্ডে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম এবং প্রোটিন। অন্যান্য বাদামের মতো আমন্ডেও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। আমন ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণের পাশাপাশি হার্টের সমস্যার সমাধান করে।একজন মানুষের প্রতিদিন যে পরিমাণ ক্যালসিয়াম খাওয়া উচিত তার ছয় শতাংশ থাকে ২৮ গ্রাম আমন্ডে।

শালগম

শালগমে রয়েছে ক্যালসিয়াম এবং পটাশিয়াম যা হারের নমনীয়তা অস্টিওপোরোসিস ফ্রকচার ইত্যাদি কমাতে সাহায্য করে।একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের এক মন্ত্র মাংস ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করে এক কাপ শালগম। এক কাপ শালগোমে রয়েছে ২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে শালগম একটি উপকারী সবজি।

চিয়া সিডস

ওমেগা থ্রি ফ্যাটিএইট এসিড প্রোটিন ফাইবারের সঙ্গে চিয়া সিডসের রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করবে চিয়া সিডস।

 সয়াবিন

শরীরের ক্যালসিয়ামের অভাব মেটাতে সয়াবিন খুবই উপকার করবে। নিয়মিত খাদ্য তালিকায় সয়াবিন রাখলে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ হবে। এক কাপ সয়াবিনে ১৭৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে।

সবুজ শাকসবজি

সবুজ শাকসবজি পুষ্টির অন্যতম একটি উৎস। বিভিন্ন ধরনের সবুজ শাকসবজিতে ভিটামিন মিনারেলস প্রোটিন এবং জরুরী পুষ্টির সাথে সাথে থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। সবুজ শাকসবজি বিভিন্ন ধরনের রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে। ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করে। ওজনকেও নিয়ন্ত্রণ করে এ ছাড়া হাড়কে শক্ত মজবুত করতে সহায়তা করে। তাই নিয়মিত ক্যালসিয়াম ঘাটতি পূরণ করতে সবুজ শাকসবজি খাদ্য তালিকায় রাখুন।

ভিটামিন ডি

ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়াম দুটোই শরীরে হাড়কে মজবুত করতে সহায়তা করে আর সূর্যের আলোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। সকালে ১০ থেকে ১৫ মিনিট সূর্যের আলোতে থাকলে শরীরে ভিটামিন ডি তৈরি হয়।

ক্যালসিয়াম যুক্ত ফল

শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে ক্যালসিয়ামযুক্ত ফলের কোন বিকল্প নেই। বিভিন্ন ধরনের খাবারের পাশাপাশি খাদ্য তালিকায় এই ক্যালসিয়াম যুক্ত ফলগুলো রাখা উচিত। যাতে করে ক্যালসিয়ামের অভাব পূরণ করে শরীরকে সুস্থ সবল রাখা যায়। ক্যালসিয়াম যুক্ত ফলগুলো হলো;

কলা

ম্যাগনেসিয়ামের একটি অন্যতম উৎস হচ্ছে কলা। ম্যাগনেসিয়াম শরীরের হাড় এবং দাঁতের গঠন ঠিক রাখতে অপরিহার্য একটি ভিটামিন হিসেবে কাজ করে। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণে প্রতিদিন কলা খাওয়া জরুরি।

কমলার রস

কমলার রস থেকে পাওয়া যাবে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়াম যা হাড়ের শক্তিশালী করণে সাহায্য করবে। তাই নিয়মিত কমলার রস খেলে অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি হ্রাস পাবে।

সাইট্রাস জাতীয় ফল

সাইট্রিক এসিড ও ভিটামিন সি পাওয়া যায় কমলা মাল্টা লেবুর মতো ফল থেকে। এসব সাইট্রাস জাতীয় ফল শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি মেটাতে সহায়তা করে। তাই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে এই সাইট্রাস জাতীয় ফল খেতে পারেন।

ডুমুর

ডুমুরে রয়েছে খনিজ ভিটামিন এ, বি ১, বি ২, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, ম্যাঙ্গানিজ, সোডিয়াম, পটাশিয়াম এবং ক্লোরিন। ডুমুর একটি ফাইবার সমৃদ্ধ ফল। দুটি মাঝারি সাইজের ডুমুরের দানায় 55 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে।

জলবসন্ত রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা

শুকনো ফল

ক্যালসিয়ামের অন্যতম একটি উৎস হলো শুকনো ফল। শুকনো ফলগুলো স্বাস্থ্যসম্মত এবং উপকারী হয়। ক্যালসিয়ামের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে এই শুকনো ফলগুলো। এসব ফলে ক্যালসিয়ামের পাশাপাশি পুষ্টি উপাদানে ভরপুর থাকে। শুকনো ফলের মধ্যেও শুকনো এপ্রিকোট, শুকনো ডুমুর, বাদাম কিসমিস, ত্বীন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

আঙ্গুর কমলা

ক্যালসিয়ামযুক্ত ফলের মধ্যে আঙ্গুর ও কমলা খুবই উল্লেখযোগ্য দুটি ফল। ক্যালসিয়ামের পাশাপাশি এই দুটি ফলে পুষ্টিগুণ ভরপুর থাকে।আঙ্গুর এবং কমলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যা অনাক্রম্যতা শক্তির উন্নতির জন্য খুবই উপকারী। এছাড়াও রূপ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে এই দুটি ফল সাহায্যকারী হিসেবে কাজ করে।

বেরি

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ একটি অন্যতম ফল হচ্ছে বেরি। বেরি অত্যন্ত সুস্বাদু একটি ফল। পাশাপাশি এতে রয়েছে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট এবং ক্যালসিয়াম। ১০০ গ্রাম ব্ল্যাকবেরি তে ২৩.৮১ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে এবং ১০০ গ্রাম স্ট্রবেরিতে 15.28 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যাবে।

শরীরের ক্যালসিয়ামের মাত্রা বৃদ্ধির উপায়

শরীরে ক্যালসিয়াম বৃদ্ধির জন্য যা করতে হবে তা হলো-

১) ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খান।

২) সকালে সূর্যের আলোতে জান।

৩) ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার তালিকায় রাখুন।

৪) ক্যাফেইন জাতীয় খাবার বাদ দিন।

৫) লবণ খাওয়ার মাত্রা কমিয়ে দিন।

ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণে ঔষধ

খাবারের মাধ্যমে যদি ক্যালসিয়ামের অভাব বা ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব না হয় তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী জীবনযাপন করার পাশাপাশি ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট নিয়মিত খেতে হবে। ক্যালসিয়াম যুক্ত বিভিন্ন ওষুধ রয়েছে যেগুলোর মধ্যে নিম্নোক্ত ঔষধ গুলো উল্লেখযোগ্য-

*Calbon D one piece price 7 taka

*Calcin D one piece price 7 taka.

*Caldical D one piece price 7 taka

*A-cal D one piece price 7 taka

*Coralcal- Dx one piece price 16 taka

*Coralcal-D one piece price 12 taka

*Coralbest -D one piece price 10 taka

*Kalcoral -D one piece price 10 taka

*Algecal -D one piece price 10 taka

*Calboster one piece price 8 taka

অবশ্যই ওষুধগুলো চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত খাবেন না। একা একা নিজে নিজে কখনো কোন ওষুধ খেলে উপকারের চেয়ে অপকার‌ বেশি হবে

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন

ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার খান হাড়ের যত্ন নিন। শুধুমাত্র হাড় নয় দাঁত স্নায়ু পেশীর সঠিক কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতে অবশ্যই ক্যালসিয়ামের মাত্রা ঠিক রাখা জরুরি। শরীরে কোনভাবেই ক্যালসিয়ামের ঘাটতি রাখা যাবে না। শরীরকে সুস্থ সবল শক্তিশালী করতে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের কোন তুলনা নেই। তবে হ্যাঁ যাদের ক্যালসিয়ামের মাত্রা অত্যন্ত কম বিভিন্ন খাবার খাওয়ার পরেও ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ হচ্ছে না এমতাবস্থায় অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করুন।

আমাদের সচরাচর জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

ডিমে কি ক্যালসিয়াম থাকে?

উত্তর: ডিম একটি ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার। ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকলে ডিম খাদ্য তালিকায় রাখা উচিত।

ক্যালসিয়াম বৃদ্ধির উপায় কি?

উত্তর: ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেলে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ হয়। এছাড়াও ভিটামিন ডি পেতে গেলে সূর্যের আলো শরীরে লাগান এতে করে শরীরের ভিটামিন ডি তৈরি হবে এবং ক্যালসিয়াম এর অভাব পূরণ হবে। ক্যাফাইন জাতীয় খাবার গুলো সম্পূর্ণ বাদ দিন।

শরীরে অতিরিক্ত ক্যালসিয়াম কি ক্ষতি করে?

উত্তর:শরীরে অতিরিক্ত ক্যালসিয়াম বিভিন্ন ধরনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে। যেমন: পেট সংক্রান্ত সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, আয়রন জিংক এর ঘাটতি। ক্যালসিয়ামের আধিক্য পাথর হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

আমাদের শেষ কথা

সম্মানিত পাঠক পাঠিকা বন্ধুরা আমাদের আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করেছি ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার কোনগুলো। আপনারা এতক্ষণ আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ে নিশ্চয়ই এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। আমাদের ওয়েবসাইটে আরও বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল পেতে অবশ্যই নিয়মিত ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন।

কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে ভুলবেন না। আর অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন এবং আমাদের সাথে থাকবেন। আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি। সকলে ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: উল্লেখিত সকল তথ্যগুলো সম্পূর্ণ ইন্টারনেট নির্ভর। কোথাও ভুল ত্রুটি থাকলে অবশ্যই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। ক্যালসিয়াম এর অভাবজনিত জটিলতা এড়াতে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলুন]

পোস্ট ট্যাগ-

ক্যালসিয়াম বৃদ্ধির উপায়,ক্যালসিয়াম যুক্ত ফল,ক্যালসিয়াম যুক্ত সবজি,ক্যালসিয়াম ডি যুক্ত খাবার,ক্যালসিয়াম বৃদ্ধির ঔষধ,ক্যালসিয়াম ঘাটতির লক্ষণ,কোন কোন ফলে ক্যালসিয়াম বেশি আছে,কোন মাছে ক্যালসিয়াম বেশি।

আপনার জন্য আরো 

আপনার জন্য-

অ্যাজমা রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা 

থাইরয়েড রোগ থেকে মুক্তি পেতে করণীয়

চর্মরোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার কার্যকারী চিকিৎসা

যক্ষা বা টিবি রোগের লক্ষণ

ক্যান্সার রোগের যেসব লক্ষণ এড়িয়ে যাবেন না

শ্বেতী রোগের লক্ষণ ও চিকিৎসা সম্পর্কে জেনে নিন

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৯২ other subscribers

 

প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এখানে ক্লিক করুন।
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে :এখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।

SS IT BARI- টুইটার থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- লিংকদিন থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- ইনস্টাগ্রাম থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- টুম্বলার (Tumblr)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে :এখানে ক্লিক করুন।

SS IT BARI- পিন্টারেস্ট (Pinterest)থেকে আমাদের খবর সবার আগে পেতে : এখানে ক্লিক করুন।

SS It BARI JOB NEWS

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম