ঈদ মোবারক-ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস-ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা-ঈদ নিয়ে উক্তি-প্রবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা

ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস-ঈদ মোবারক বা ঈদ মুবারক (আরবি: عيد مبارك‎‎) হলো মুসলিমদের একটি ঐতিহ্যবাহী শুভেচ্ছাবাক্য, যেটি ঈদুল ফিতর এবং ঈদুল আযহায় পরস্পরকে বলে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা হয়ে থাকে। “ঈদ” শব্দের অর্থ আনন্দ বা উদ্‌যাপন; আর “মোবারক” শব্দের অর্থ কল্যাণময়।

ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস,

সুতরাং “ঈদ মোবারক” শব্দের অর্থ হলো ঈদ বা আনন্দ উদ্‌যাপন কল্যাণময় হোক। কিছু রাষ্ট্রে এই শুভেচ্ছা বিনিময় একটি সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং কোন ধর্মীয় বাধ্যবাধকতার অংশ নয়। এই শুভেচ্ছাবাক্যটি শুধুমাত্র এই দুই মুসলিম উৎসবের সময় ব্যবহৃত হয়।

Table of Contents

ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

সবাইকে জানাই পবিত্র ঈদের শুভেচ্ছা ।  যাহোক আজ আপনাদের জন্য এখানে কিছু সুন্দর সুন্দর ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা বা মেসেজ বাণী নিয়ে আসলাম । আশা করি সবার কাছে এই ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ বা বার্তা গুলো ভালই লাগবে ।

তারাবির নামাজ সর্বনিম্ন কত রাকাত পড়া যায়?

১।কিছু কথা না বলা থেকে যায়,

কিছু ভাষা বর্ণনা হীন হয়

তবে ঈদের দিন সব প্রান খুলে বলা যায়,

এসো প্রান খুলে আজ সবাই বলি

ঈদ মোবারাক বন্ধু ।ঈদের শুভেচ্ছা

২।নীল আকাশে ঈদের চাঁদ

ঈদের আগে চাঁদনী রাত

ঈদ হলো খুশীর দিন

দাওয়াত রইলো ঈদের দিন,

ভালো থেকো সীমাহীন ।

ঈদের দিনটা তোমার হোক রঙিন।

ঈদ মোবারাক।

৩।সারাদিন ছিলাম বিজি

এখন আমি ইজি

এড্রেস দাও তাড়াতাড়ি

কালকে যাবো তোমার বাড়

ঈদ মোবারাক।

৪।কাল ঈদ সাজবে তুমি

মেহেদি দিয়ে রাঙ্গাবে তোমার হাত

এই খুশীর সময়টুকু

কাটুক তোমার বারোমাস।

ঈদ মোবারাক।

৫।দুরের মানুষ আসুক কাছে

কাছের জন থাকুক পাশে

মন ছুটে যাক মনের টানে

নয়া চান্দের আগমনে

ঈদ কাটুল খুশী মনে

*** ঈদ মোবারাক **

৬।চেয়ে দেখো, নীল আকাশ

চাঁদ উঠেছে, ঈদ এর চাঁদ

খুশীর বার্তা নিয়ে

সেই খুশিতে মোদের বাড়ি

দাওয়াত দিলাম আসিতে ঈদে।

৭।রং লেগেছে মনে

মধুর এই ক্ষনে

তোমায় আমি রাঙ্গিয়ে দেবো

ঈদের এই দিনে

” শুভ ঈদ মোবারাক”

৮।ও চাঁদ তুমি কি খুশী নিয়ে এলে ?

খুশীর আভাসে আজ পৃথিবী দোলে,

তোমার জন্য ছিলো কত অপেক্ষা

তাই বুঝি দিয়ে এক বছর পর দেখা ।

””” ঈদ মোবারাক “””

৯।হাঁসের ডিম মুরগির ডিম

দেখা হবে ঈদের দিন

ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশী

ঈদের দিন দাওয়াত না দিলে

মারবো একটা ঘুষি ।

১০।ঈদ কার্ড দিতে পারলাম না

তুমি দূরে বলে

মুখে বলতে পারলাম না

নাম্বার নাই বলে,

তাই তোমাকে বলছি সুন্দর হোক

তোমার ঈদের দিন,

দাওয়াত রইলো অগ্রিম ।

১১।আসছে ঈদ লাগছে ভালো

তাই তো আমায় বলতে হলো

ঈদ মানে আশায় ভরা আলো ।

ঈদ মানে আশা…

ঈদ মানে সুন্দর জীবন সুন্দর ভালোবাসা

*** ঈদ মোবারাক ***

১২।ঈদের দাওয়াত তোমার তরে

আসবে তুমি আমার ঘরে

কবুল কর আমার দাওয়াত

না করলে পাবো আঘাত

তখন কিন্তু দেবো আড়ি

যাবো না আর তোমার বাড়ি

১৩।কিছু কথা অব্যাক্ত রয়ে যায়

কিছু অনুভুতি মনের মাঝে থেকে যায়,

কিছু সৃতি গোপনে কাঁদায়,

শুধু এই একটি দিন সব ভুলিয়ে দেয় ।

*** ঈদ মোবারাক ***

১৪।তুমি শিশির ভেজা গোলাপের পাপড়ি

তুমি পাহাড়ের গায়ে ঝরনার পানি,

তুমি বরষার এক পরশ বৃষ্টি,

তুমি মধ্য রাতের পূর্ণিমার চাঁদ,

তোমাকে জানাই ” ঈদ মোবারাক ”

১৫।তুমি চাঁদ নয়, তবে তুমি চাঁদের আলো,

তুমি ফুল নয়, তবে তুমি ফুলের সৌরভ,

তুমি নদী নয়, তবে তুমি নদির ঢেউ,

তুমি অচেনা নয়, তবে আমার চেনা কেউ,

ঈদ মোবারাক

ঈদের শুভেচ্ছা

এখানে পাবেন ঈদের শুভেচ্ছা। আরও পাবেন অগ্রিম ঈদের শুভেচ্ছা ও ঈদের শুভেচ্ছা বাণী। তাই দেখে নিন ঈদের শুভেচ্ছা কার্ড। সবাই ঈদের শুভেচ্ছা পোস্টার ও ঈদের শুভেচ্ছা পোস্টার ডিজাইন পেতে চাই। তাই আমরা ঈদের শুভেচ্ছা ২০২২ ও বউ কে ঈদের শুভেচ্ছা তুলে ধরেছি। তাই নিচে থেকে দেখে নিন ঈদের শুভেচ্ছা কিভাবে জানাবো ও ঈদের শুভেচ্ছা হাদিস।

ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সকল মুসলিম ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা পেতে চায়। তাদের জন্য আজকের এই পোস্ট এ ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা দেওয়া হয়েছে। আপনারা চাইলে নিচে থেকে জনপ্রিয় ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা গুলো সংগ্রহ করে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারেন। আশা করছি আপনাদের সবার ঈদের শুভেচ্ছা বার্তা অনেক ভালো লাগবে। ঈদের শুভেচ্ছা দেখে নিন। ঈদ মোবারক স্ট্যাটাস শেয়ার করতে পারেন।

মহিলাদের তারাবির নামাজ । মহিলাদের তারাবির নামাজের নিয়ম

১।বাঁকা চাঁদের হাসিতে দাওয়াত দিলাম আসিতে,

আসবে কিনা বাড়িতে ? খেতে দেবো হাড়িতে ।

আসতে যদি নাও পারো,

ঈদের দাওয়াত গ্রহন করো

। ঈদ মোবারাক ।

২।ঈদ মানে খুসি, ঈদ মানে আনন্দ,

ঈদ আসে ভুলিয়ে দিতে সকল বিভেদ দ্বন্দ্ব,

ঈদ মানে ভুলে যাওয়া যতো দুঃখ ভয়,

ঈদের মত তোমার জীবন টা হোক দীপ্তিময় ।

* ঈদ মোবারাক *

৩।রং লেগেছে মনে, মধুর এই ক্ষনে,

তোমায় আমি রাঙিয়ে দিবো ইদের এই দিনে ।

ঈদ মোবারাক

৪।ঈদের এই খুশীর দিনে, তোমায় পড়ে মনে,

তুমি কাছে এলে দুঃখ যাই সব ভুলে,

তুমি দূরে গেলে কষ্ট গুলো বাড়ে ,

তাইতো তোমায় রেখেছি আমার মনের একটি কোনে ।

ঈদ মোবারাক

ঈদ নিয়ে উক্তি

ঈদ সম্পর্কিত উক্তি পেতে অনেকেই অনুসন্ধান করে। তাই আজকের এই পোস্টে ঈদের উক্তি তুল ধরা হয়েছে। তাই ঈদের শুভেচ্ছা উক্তি গুলো দেখে নিন আজকের পোস্ট থেকে। এখান থেকে জনপ্রিয় ঈদের শুভেচ্ছা উক্তি গুলো ডাউনলোড করতে পারবেন। তাই আর দেরি না করে নিচে থেকে ঈদের শুভেচ্ছা উক্তি গুলো দেখে নিন। ঈদ নিয়ে উক্তি দেখে নিন। ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বার্তা ও ঈদ মোবারক শুভেচ্ছা দেখে নিন।

১।নীল আকাশে ঈদ এর চাঁদ

ঈদের আগে চাঁদনী রাত,

ঈদ হলো খুশীর দিন

দাওয়াত রইলো ঈদের দিন,

ভালো থেকো সীমাহীন,

ঈদের দিনটা তোমার হোক রঙিন,

ঈদ মোবারাক

২।ঈদের দাওয়াত দিলাম বন্ধু, আসবে আমার বাড়ি,

অনেক কথা জমে আছে, বলবো তোমায় আমি,

না আসলে তোমার সাথে বলবো না আর কথা,

কোন দিন পাবে না তুমি আমার দেখা ।

৩।মেঘলা আকাশ মেঘলা দিন,

ইদের বাকি এক দিন,

আসবে সবার খুশীর দিন,

কাপর চোপড় কিনে নিন,

গরিব দুঃখীর খবর নিন,

দাওয়াত রইলো ইদের দিন ।

* ঈদ মোবারাক *

ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ

ঈদ উপলক্ষে একজন আরেকজনকে শুভেচ্ছা জানাতে ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ পাঠিয়ে থাকে। তাই সবাই ইন্টারনেটে ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ লিখে অনুসন্ধান করে। তাদের জন্য আজকের এই পোস্ট এ ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ তুলে ধরা হয়েছে। তাই নিচে থেকে ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ দেখে নিন। ঈদের এসএমএস শুভেচ্ছা কবিতা দেখে নিন। এখানে পাবেন ঈদ মোবারক স্ট্যাটাস। দেখে নিন ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বাণী।

১।নতুন চাঁদের আগমনে,

সাড়া জাগলো এ মনে,

ঈদ এলো পবিত্র দিনে,

দুঃখ বেদনা ভুলে গিয়ে,

এনজয় করো ইদের দিনে ,

দাওয়াত দিলাম তোমার তরে,

পারলে এসো আমার ঘরে,

ঈদ মোবারাক

২।আকাশে উঠেছে নতুন চাঁদ,

দিলাম তোমায় ইদের দাওয়াত,

দাওয়াত দিলাম আসবে বলে,

না আসলে আনবো ধরে,

তাতেও যদি না আসতে চাও,

এসএমএস দিয়ে ঈদ মোবারাক জানাও।

৩।ঈদের হাওয়া লাগুক প্রানে,

মন ভরে যাক নতুন গানে ,

ঘুম ঘুম চোখে স্বপ্নিল চাওয়া,

ঈদে হোক সবকিছু পাওয়া।

ঈদ মোবারাক

৪।পড়েছে আজ চাঁদের নজর,

তাইতো পেলাম ঈদের খবর,

হাসছে চাঁদ আজ জুড়ে আকাশ,

সবাই পেলো ঈদের বাতাস,

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা ।

ঈদ মোবারাক

প্রেমিকাকে ঈদের শুভেচ্ছা

আমরা দেখতে পাচ্ছি অনেকেই প্রেমিকাকে ঈদের শুভেচ্ছা পাঠাতে অনুসন্ধান করছেন। আপনাদের প্রিয়জনকে ঈদের শুভেচ্ছা পাঠাতে। এখানে প্রেমিকাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য জনপ্রিয় ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ দেয়া হয়েছে। তাই দেখে নিন এখান থেকে প্রেমিকাকে ঈদের শুভেচ্ছা, এস এম এস, স্ট্যাটাস ও উক্তি। ঈদ মোবারক স্ট্যাটাস ও ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস দেখে নিন।

তারাবির নামাজ কি?সৌদি আরবে তারাবির নামাজ কত রাকাত?

১।ঈদ এলো, বৃষ্টি এলো,

খুশীর দ্বার মুক্ত হলো,

ঈদের এখন নতুন রূপ,

বৃষ্টি হলো অপরুপ,

তুমি আমার আপনজন,

তাই তোমায় জানাই নিমন্ত্রন ।

ঈদ মোবারাক

২।সোনালি সকাল, রোদেলা দুপুর

পড়ন্ত বিকেল, গোধূলি সন্ধ্যা

চাঁদনী রাত, সব রঙ্গে রাঙ্গিয়ে যাক-

তোমার সারাটা বছর, এই কামনায় জানাই-

ঈদ মোবারাক

৩।রংধনু আসে রঙের টানে

সুবাস আসে ফুলের টানে

বন্ধু আসে বন্ধুত্তের টানে

মন চলে যায় মনের টানে

ঈদ আসে খুশীর টানে

ঈদ মোবারাক

বউ কে ঈদের শুভেচ্ছা

যারা নিজের স্ত্রীকে ঈদের শুভেচ্ছা পাঠাতে চান। তাদের জন্য এখানে ভালো মানের বউ কে ঈদের শুভেচ্ছা পাঠানোর এসএমএস দেওয়া হয়েছে। তাই আর দেরি না করে এখান থেকে বউকে ঈদের মেসেজ পাঠাতে দেখে নিন স্পেশাল ঈদের শুভেচ্ছা মেসেজ। ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস বউ কে পাঠান। ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বার্তা দেখে নিন। সবাই ঈদের শুভেচ্ছা বাণী ও ঈদ শুভেচ্ছা বাণী পেতে চাই। দেখে নিন ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস।

১।হাঁসের ডিম মুরগির ডিম

“দেখা হবে ঈদের দিন”

ঈদ মানে আনন্দ ‘ঈদ মানে খুশি’

ঈদের দাওয়াত না দিলে

মারবো একটা ঘুষি!

ঈদ মোবারক

২।মন চাইছে কারো সাথে কথা বলি।

মন চাইছে কোন প্রিয়জনকে স্মরণ করি।

ঈদ মোবারক বলার সিদ্ধান্ত যখন নিলাম।

ভাবলাম তোমাকে দিয়েই শুরু করি ।

– ঈদ মোবারক-

৩।চিঠি দিয়ে নয় “ফুল দিয়ে নয়”

কার্ড দিয়ে নয় “কল দিয়ে নয়”

মনের গহীন থেকে মিষ্টি SmS দিয়ে

জানাই সবাই কে “অগ্রিম ঈদের শুভেচছা”

ঈদ মোবারক.

৪।ফুলে ফুলে সাজিয়ে রেখেছি এই মন ।

তুমি আসলে দুজনে মিলে আনন্দ করবো সারাক্ষণ ।

বন্ধু তুমি আসবে বলে দরজায় থাকি দরিয়ে ।

ঈদ মোবারক , শুভ হোক তোমার ঈদের দিন।

৫।সোনালি সকাল, রোদেলা দুপুর,

পরন্ত বিকেল, গুধোলী সন্ধা, চাদণি রাত।

সব রঙ্গে রাঙ্গিয়ে থাক

আপনার সারাটি বছর, সারাটি জীবন।

এই কামনায় “ঈদ মোবারাক

প্রবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা

যারা প্রবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে চান। তাদের জন্য এখানে জনপ্রিয় প্রবাসীদের নিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা দেওয়া হয়েছে। তাই জনপ্রিয় সকল প্রবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস দেখতে নিচের অংশ খেয়াল করুন। ঈদ মোবারক, ঈদ মোবারক স্ট্যাটাস। ঈদের শুভেচ্ছা কিভাবে জানাবো দেখুন বিস্তারিত। ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে খুদে বার্তা ও ঈদের শুভেচ্ছা বন্ধুকে দেখে নিন।  প্রবাসী ঈদ এস এম এস ও প্রেমিকাকে ঈদের শুভেচ্ছা দেখুন।

 কোন কোন সূরা দিয়ে তারাবি নামাজ পড়তে হয়? 

১।তোর ইচ্ছে গুলো উরে চলুক পাখনা দুটি মেলে,

দিন গুলি তোর যাকনা কেটে এমনি হেসে খেলে,

অপূর্ন না থাকে যেন তোর কোনো শখ,

এই কামনায় বন্ধু তোকে “ঈদ মোবারক”

২।ঈদের শুভেচ্ছা জানাই তোমাকে,

অনেক বেশি খুশি ঘিরে রাখুক তোমাকে,

সব আপনজনের মায়া মাতিয়ে রাখুক তোমাকে,

শুধু যখন সালামি পাবে মনে করিও আমাকে।

৩।সকল প্রবাসী ভাইদের জানাই ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা

সকল প্রবাসী ভাইয়ের ঈদ ভালো কাটুক। এ আশায় সবাইকে জানাই ঈদ মোবারক।

৪।পরিবার ছেড়ে সকল প্রবাসী ভাই ঈদ করে। অনেক কষ্ট লুকিয়ে তাদের ঈদ উদযাপন করতে হয়। তাই আজকের এই খুশির দিনে সবাইকে জানাই ঈদ মোবারক।

৫।সকল প্রবাসী ভাই সব সময় সুস্থ থাকুক এই আশায় সবাইকে জানাই পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা ‌

ঈদের শুভেচ্ছা পিকচার

অনেকেই আছেন যারা ঈদের শুভেচ্ছা পিকচার পাওয়ার জন্য ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করেন। তাদের সবার জন্য ঈদের শুভেচ্ছা পিকচার দেয়া হয়েছে আজকের পোস্টে। এখানে দুঃখ ছবি বানানোর কারিগর দিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা পিকচার বানানো হয়েছে। জেনে নিন ঈদ মোবারক শুভেচ্ছা। দেখুন ঈদ মোবারক স্ট্যাটাস।ঈদের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

১।আজ দু:খ ভুলার দিন,

আজ মন হবে যে রঙ্গিন।

আজ প্রান খুলে শুধু গান হবে,

আজ সুখ হবে সিমাহীন।

তার একটাই কারন,

আজ যে ঈদের দিন।

ঈদ মোবারাক !

২।নতুন সকাল নতুন দিন।

শুভ হোক ঈদের দিন।

নতুন রাত বাকা চাঁদ।

রঙ্গীন হোক ঈদের রাত।

ঈদে মিলাদুন্নবী

মিলাদ শব্দের অর্থ জন্ম। মিলাদুন্নবি অর্থ রাসুলের জন্ম। এই পরিভাষাগুলো এভাবে এসেছে। তবে মিলাদুন্নবি নামে সাহাবায়ে কেরাম রাসুল (সা.) যে দিনে জন্মগ্রহণ করেছেন এটাকে নিয়ে কোনো উৎসব করেছেন, অথবা সেটাকে মিলাদুন্নবি বানিয়ে কোনো অনুষ্ঠান করেছেন, এমন কিছু জানা যায়নি।

হাদিসের মধ্যে এসেছে ‘আমি করি নাই এমন কোনো কাজ এই দ্বীনের মধ্যে কোনো ব্যক্তি যদি তৈরি করে তাহলে সেটা পরিত্যাজ্য হবে, বা এটা গ্রহণ করা হবে না এবং বেদাত বলে পরিগণিত হবে।’ আমাদের নবী কবে জন্মগ্রহণ করেছেন কবে মৃত্যু বরণ করেছেন এটা নিয়ে মতপার্থক্য আছে। জন্মের দিনটা কোন দিন ছিল আর মৃত্যুর দিনটা কোন দিন ছিল এ নিয়ে আহলে এলেমদের মধ্যে মতপার্থক্য আছে।

তবে তিনি যে  মাসে জন্মগ্রহণ করেছেন, সেই মাসেই মৃত্যুবরণও করেছেন, এ ব্যাপরে সব ওলামায়ে কেরাম একমত।

তো আল্লাহর রাসুল(সা.) যেখানে মৃত্যুবরণ করেছেন সে সময় উনি জন্মগ্রহণ করেছেন বলে এজন্য আমরা আনন্দ করব, এটা করার তো কোনো সুযোগ নেই। বরং আমাদের যেটা করা উচিত, রাসুল (সা.) কে অনুসরণ করে আমাদের আমল করা উচিত।

রাসুল (সা.) কে আল্লাহ বলছেন ‘বলুন, তোমরা যদি আল্লাহকে ভালোবাস, তাহলে আমার রাসুলের আনুগত্যের মাধ্যমে তাকে ভালোবাস।’ এজন্য রাসুলের (সা.) প্রতি আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে, রাসুল (সা.)-এর অনুসরণ করে আমরা আমল করব।

তারাবির নামাজ কত রাকাত সহীহ হাদিস সহ তারাবির নামাজের বিস্তারিত

আল্লাহতায়ালা আমাদের বলেছেন রাসুল(সা.)-এর ওপর সালাত ও সালাম পাঠ করার জন্য।‘হে মুমিনগণ, আল্লাহ এবং ফেরেশতারা রাসুলের ওপরে সালাত ও সালাম পেশ করে, তোমরাও রাসুলের ওপর সালাত ও সালাম পেশ করো।’ যখন এই আয়াত নাজিল হলো, সাহাবায়ে কেরাম (রা.) রাসুলের কাছে আসলেন এবং বললেন, ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ, আমরা তো আপনার ওপর সালাম পেশে করি।

সাথে আল্লাহ আয়াত নাজিল করলেন, সালাত পাঠ করার জন্য। সেটা কীভাবে করব?’। রাসুল (সা.) তখন তাদের শিখিয়ে দিলেন, দরুদে ইব্রাহিম, যেটা আমরা নামাজে পড়ি। অধিকাংশ আলেমদের মতে এটা পড়া ওয়াজিব করে দিয়েছেন।

সাহাবায়ে কেরাম এভাবেই শিখিয়ে গিয়েছেন, যে আয়াত যখন নাজিল হয়েছে কীভাবে রাসুলের (সা.) কাছ থেকে তারা এটা শিখেছেন। আর সেটা বাদ দিয়ে মিলাদ নামে এভাবে প্রতি বছর ঘটা করে ১২ রবিউল আউয়ালে কোনো কাজ করা বা ঘটা করে পালন করা আমাদের উচিত নয়।

ঈদের নামাজ পড়ার নিয়ম

ঈদ মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব। মুসলিম উম্মাহ প্রতি বছর দু’টি ঈদ উদযাপন করে। ঈদের নামাজ আদায় করা ওয়াজিব। বছরে দুই বার ঈদের নামাজ পড়ার কারণে অনেকেই নামাজ পড়ার নিয়ম ভুলে যান। তাই ঈদের নামাজের নিয়ম তুলে ধরা হলো-

১।ঈদের নামাজ ছাদবিহীন খোলা জায়গায় আদায় করা সুন্নাত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খোলা জায়গায় ঈদের নামাজ আদায় করতেন। যদি খোলা স্থানের ব্যবস্থা না থাকে তবে মসজিদেও ঈদের নামাজ পড়া যাবে।

২। ঈদের নামাজ পড়ার নিয়মঈদের নামাজ খোলা জায়গা, মসজিদ কিংবা বাসা-বাড়ি যেখানেই পড়া হোক না কেন, অবশ্যই তা জামাআতের সঙ্গে পড়তে হবে। জুমআ নামাজ অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য যেসব শর্ত প্রয়োজন, ঈদের নামাজ আদায় করার জন্যও একই শর্ত প্রযোজ্য।

সুতরাং জামাআত ছাড়া ঈদের নামাজ আদায় করা যাবে না। বাসা-বাড়িতে ঈদের নামাজ আদায় করতে হলেও অবশ্যই জামাআতে ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে।

৩। ঈদের নামাজের জন্য কোনো আজান ও ইকামত নেই। তবে জুমআর নামাজের মতোই উচ্চ আওয়াজে কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে ঈদের নামাজ আদায় করতে হয়।

৪। ঈদের নামাজের পার্থক্যতবে ঈদের নামাজের জন্য পার্থক্য হলো অতিরিক্ত ৬টি তাকবির দিতে হবে।- প্রথম রাকাআতে ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত বেঁধে অতিরিক্ত তিন তাকবির দিয়ে সুরা ফাতিহা পড়া।-দ্বিতীয় রাকাআতে সুরা মিলানোর পর অতিরিক্ত তিন তাকবির দিয়ে রুকতে যাওয়া।

৫। ঈদের দুই রাকাআত ওয়াজিব নামাজ অতিরিক্ত ৬ তাকবিরের সঙ্গে এই ইমামের পেছনে কেবলামুখী হয়ে আল্লাহর জন্য আদায় করছি… আল্লাহু আকবার।

প্রথম রাকাআত১. তাকবিরে তাহরিমাঈদের নামাজে নিয়ত করে তাকবিরে তাহরিমা ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত বাঁধা।২. ছানা পড়া’সুবহানাকা আল্লাহুম্মা ওয়া বিহামদিকা ওয়া তাবারাকাসমুকা ওয়াতাআলা যাদ্দুকা ওয়া লা ইলাহা গাইরুকা।৩. অতিরক্তি ৩ তাকবির দেয়া।এক তাকবির থেকে আরেক তাকবিরের মধ্যে তিন তাসবিহ পরিমাণ সময় বিরত থাকা। প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবিরে উভয় হাত উঠিয়ে তা ছেড়ে দেয়া এবং তৃতীয় তাকবির দিয়ে উভয় হাত বেধেঁ নেয়া।৪. আউজুবিল্লাহ-বিসমিল্লাহ পড়া৫. সুরা ফাতেহা পড়া৬. সুরা মিলানো। অতপর নিয়মিত নামাজের মতো রুকু ও সেজদার মাধ্যমে প্রথম রাকাআত শেষ করা।

দ্বিতীয় রাকাআত১. বিসমিল্লাহ পড়া২. সুরা ফাতেহা পড়া৩. সুরা মিলানো।৪. সুরা মিলানোর পর অতিরিক্ত ৩ তাকবির দেয়া। প্রথম রাকাআতের মতো দুই তাকবিরে উভয় হাত কাধ বরাবর উঠিয়ে ছেড়ে দেয়া অতপর তৃতীয় তাকবির দিয়ে হাত বাঁধা।৫. তারপর রুকুর তাকবির দিয়ে রুকুতে যাওয়া।৬. সেজদা আদায় করে তাশাহহুদ, দরূদ, দোয়া মাসুরা পড়ে সালাম ফেরানোর মাধ্যমে নামাজ সম্পন্ন করা।

তারপর খুতবাঈদের নামাজ পড়ার পর ইমাম খুতবা দেবে আর মুসল্লিরা খুতবা মনোযোগের সঙ্গে শুনবে। অবশ্য অনেকেই খুতবা না দেয়ার ব্যাপারে শিথিলতার কথা বলেছেন। খুতবা না দিলেও ঈদের নামাজ আদায় হয়ে যাবে বলে মত দিয়েছেন।

অতিরিক্ত তাকবিরের ক্ষেত্রে অন্যান্য মাজহাবসহ অনেকেই প্রথম রাকাআতে তাকবিরে তাহরিমাসহ ৭ তাকবির আর দ্বিতীয় রাকাআতে ৫ তাকবিরে দিয়ে থাকেন। এতে কোনো অসুবিধা নেই।

তাই মসজিদ ছাড়াও বাসা-বাড়িতেও ঈদের নামাজ আদায় করা যাবে। তবে শর্ত হলো তা জামাআতে আদায় করা এবং খুতবা দেয়া।

আর ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য ইমাম ছাড়া ন্যূনতম তিনজন মুসল্লি হতে হবে। পরিবার নিয়ে জামাআতে ঈদের নামাজসহ যে কোনো ওয়াক্তের নামাজে এ চিত্র অনুযায়ী দাঁড়ানো।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যথাযথ নিয়মে ঈদের নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। ঈদের নামাজ আদায়ে যথাযথ নিরাপত্তা বজায় রেখে সুস্থ থাকার তাওফিক দান করুন।

ঈদুল ফিতরের নামাজের নিয়ম

ইমামের পেছনে কেবলামুখি হয়ে ঈদুল ফিতরের দু’রাকাত ওয়াজিব নামাজ ৬ তাকবিরের সঙ্গে আদায়া করছি- এরূপ নিয়ত করে ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত তুলে তাহরিমা বাঁধবেন। তারপর সানা (সুবহানাকাল্লাহুম্মা) পুরোটা পড়বে।

এরপর আউযুবিল্লাহ এবং বিসমিল্লাহর আগে তিনবার ‘আল্লাহু আকবার’ বলে তাকবির বলবেন। প্রথম দু’বার কান পর্যন্ত হাত উঠিয়ে ছেড়ে দেবেন।

কিন্তু তৃতীয়বার বলে হাত বেঁধে নেবেন। প্রত্যেক তাকবিরের পর তিনবার সুবহানাল্লাহ বলা যায় পরিমাণ থামবে।

তারাবির নামাজ না পড়লে কি গুনাহ হবে? তারাবির নামাজ সম্পর্কিত সকল বিষয়

তারপর আউযুবিল্লাহ এবং বিসমিল্লাহ পড়ে সূরায়ে ফাতেহার পরে একটা সূরা মেলাবেন। এরপর রুকু, সিজদা করে দ্বিতীয় রাকাতের জন্য দাঁড়াবেন।

এবার অন্যান্য নামাজের মতো বিসমিল্লাহর পরে সূরা ফাতেহা পড়ে আরেকটা সূরা মেলাবেন। তারপর তিনবার ‘আল্লাহু আকবার’ বলার মাধ্যমে তিনটা তাকবির সম্পন্ন করবেন। এখানে প্রতি তাকবিরের পর হাত ছেড়ে দেবেন এবং চতুর্থবার ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত না বেঁধে রুকুতে চলে যাবেন। এরপর সেজদা এবং আখেরি বৈঠক করে যথারীতি সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করবেন।

ঈদের জামাত সম্পর্কীয় মাসয়ালা

ইমাম সাহেব জুমার মতো দু’টি খুতবা দেবেন। তবে জুমার খুতবা দেওয়া ফরজ আর ঈদের খুতবা দেওয়া সুন্নত। কিন্তু ঈদের খুতবা শুনা ওয়াজিব। ওই সময় কথাবার্তা, চলাফেরা, টাকা উঠানো ইত্যাদি যেকোনো কাজ নিষেধ।

ঈদের নামাজের আগে নারী হোক কিংবা পুরুষ, বাড়িতে কিংবা মসজিদে অথবা ঈদগাহে নফল নামাজ পড়া মাকরূহ। সম্ভব হলে এলাকার সবাই একস্থানে একত্রে ঈদের নামাজ পড়া উত্তম। তবে কয়েক জায়গায় পড়াও জায়েজ।

ঈদের নামাজ না পড়তে পারলে কিংবা নামাজ নষ্ট হয়ে গেলে তার কাজা করতে হবে না, যেহেতু ঈদের নামাজের জন্য জামাত শর্ত। তবে বেশকিছু লোকের ঈদের নামাজ ছুটে গেলে বা নষ্ট হয়ে গেলে তারা অন্য একজনকে ইমাম বানিয়ে নামাজ পড়তে পারবেন।

?? গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন ??

কেউ ইমাম সাহেবকে দ্বিতীয় রাকাতে পেলে সালামের পর যখন ওই ব্যক্তি ছুটে যাওয়া রাকাতের (প্রথম রাকাত) জন্য দাঁড়াবে তখন প্রথমে সানা (সুবহানাকাল্লাহুম্মা), তারপর আউযুবিল্লাহ এবং বিসমিল্লাহ পড়ে ফাতেহা ও কেরাতের পর রুকুর পূর্বে তাকবির বলবে। ফাতেহার আগে নয়।

ইমাম তাকবির ভুলে গেলে রুকুতে গিয়ে বলবে, রুকু ছেড়ে দাঁড়াবে না। তবে রুকু ছেড়ে দাঁড়িয়ে তাকবির বলে আবার রুকুতে গেলেও নামাজ নষ্ট হবে না। বেশি লোক হওয়ার কারণে সহু সিজদাও দিতে হবে না।

আরও পড়ুন –

শবে বরাতের রোজা নিয়ত বাংলায় এবং শবে বরাতের নামায

মহরমের রোজা কয়টি?মহরমের রোজার নিয়ত?রোজার ফজিলত

শাওয়াল মাসের রোজা রাখার নিয়ম সহকারে বিস্থারিত

রোজার নিয়ত ও ইফতারের দোয়া সহ রোজা সম্পর্কিত সকল বিষয়

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪২৮ other subscribers

 প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুকগ্রুপেযোগদিয়েপ্রযুক্তিবিষয়কযেকোনোপ্রশ্নকরুনঃএখানেক্লিককরুন

SS IT BARI- ফেসবুকপেইজলাইককরেসাথেথাকুনঃএইপেজভিজিটকরুন
SS IT BARI- ইউটিউবচ্যানেলসাবস্ক্রাইবকরতেএএখানেক্লিককরুনএবংদারুণসবভিডিওদেখুন।
গুগলনিউজে SS IT BARI সাইটফলোকরতেএখানেক্লিককরুনতারপরফলোকরুন।
SS IT BARI-সাইটেবিজ্ঞাপনদিতেচাইলেযোগাযোগকরুনএইলিংকে

WhatsApp Image 2022 02 01 at 9.56.07 AM

SS IT BARI- ভালবাসার টেক ব্লগ টিম

Leave a Reply

Your email address will not be published.