ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

ইসলামের ইতিহাস কি?ইসলামের ইতিহাস বলতে ইসলাম ধর্মের উদ্ভবের পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সময়কাল পঞ্জী অনুসারে ইসলামের ইতিহাস, ইসলামী সভ্যতার রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়নকে বুঝানো হয়। অধিকাংশ ঐতিহাসিক স্বীকার করেন যে খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীর শুরুতে মক্কা ও মদিনায় ইসলামের সূত্রপাত হয়। মুসলমানরা ইসলামকে ঈসা, সুলায়মান, দাউদ, মূসা, ইব্রাহিম, নূহ এবং আদমের মত নবীদের মূল বিশ্বাসের প্রত্যাবর্তন।

মিয়া খলিফা সম্পর্কে  অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

ইসলাম ধর্মের প্রচলন সাধারত আদি কাল থেকেই অর্থাৎ পৃথিবীর প্রথম মানব আদম আলাইহিসসালাম এর সময় থেকেই ইসলাম ধর্মের প্রচলন শুরু হয়।৬১০ খ্রিস্টাব্দে ইসলাম ধর্মের সর্বশেষ নবী মুহাম্মদ (সা.) এর কাছে আল্লহর পক্ষ থেকে কুরান নাযিল হতে থাকে যা মুসলমানরা আল্লাহর ওহী হিসাবে বিশ্বাস করে, সেখানে এক আল্লাহর কাছে নতি স্বীকার করার, আসন্ন শেষ বিচারের প্রতীক্ষা এবং গরিব ও অভাবগ্রস্তদের যত্ন নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

মুহাম্মদ (সা) এর প্রাপ্ত এই বাণী কিছু মুষ্টিমেয় অনুগামীগণ গ্রহণ করে এবং মক্কার বেশিরভাগ মানুষের ক্রমবর্ধমান বিরোধিতার মুখোমুখি হয়। ৬২২ সালে তার প্রভাবশালী চাচা আবু তালিবের মৃত্যুর ফলে নিরাপত্তা হারানোর কয়েক বছর পর মুহাম্মদ ইয়াসরিব (বর্তমানে মদিনা নামে পরিচিত) শহরে হিজরত করেন। ৬৩২ সালে মুহাম্মাদের ওফাতের পর রাশিদুন খিলাফতের সময় কে মুসলিম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেন।

অষ্টম শতাব্দীর মধ্যে উমাইয়া খিলাফত পশ্চিমে আইবেরিয়া থেকে পূর্বে সিন্ধু নদ পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করে। উমাইয়া ও আব্বাসীয় খিলাফত (মধ্যপ্রাচ্যে এবং পরে স্পেন ও দক্ষিণ ইতালি), ফাতিমীয়, সেলযুক, আইয়ুবীয় এবং মামলুকদের দ্বারা শাসিত রাষ্ট্রগুলি বিশ্বের প্রভাবশালী শক্তি ছিল।

?? গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন ??

সামানি সাম্রাজ্য, গজনভি রাজবংশ, ঘুরি সাম্রাজ্য নিজেদের প্রতিষ্ঠিত সাম্রাজ্যে উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন করেছে। ইসলামিক স্বর্ণযুগে সংস্কৃতি ও বিজ্ঞানের অনেক ক্ষেত্র বিকাশ লাভ করে এবং মধ্যযুগে উল্লেখযোগ্য পলিম্যাথ, জ্যোতির্বিদ, গণিতবিদ, চিকিৎসক এবং দার্শনিকের জন্ম হয়।

ইসলামের ইতিহাসের সময়রেখাঃ ইসলামের ইতিহাস

নিম্নলিখিত সময়রেখাটিতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সময় পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ইসলামী বিশ্বের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ শাসনব্যবস্থা মোটামুটি ভাবে দেখানো যেতে পারে। এতে আরব, মেসোপটেমিয়া (বর্তমানে ইরাক), পারস্য (বর্তমানে ইরান), লেভান্ত (বর্তমানে সিরিয়া, লেবানন, জর্ডান এবং ইস্রায়েল/প্যালেস্টাইন), মিশর, মাগরেব (উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকা), আল আন্দালোস (আইবেরিয়া), ট্রান্সঅক্সানিয়া (মধ্য এশিয়া), হিন্দুস্তান (বর্তমানে পাকিস্তান, উত্তর ভারত এবং বাংলাদেশ সহ), এবং আনাতোলিয়া (বর্তমানে তুরস্ক) সহ পরাক্রমশালী ও সংস্কৃতির প্রধান ঐতিহাসিক কেন্দ্রস্থলগুলিকে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

যেহেতু কিছু অঞ্চলের শাসনক্ষমতা কখনো কখনো বিভিন্ন ক্ষমতাধরদের মধ্যে বিভক্ত হয়ে যায় এবং বৃহত্তর শাসনকর্তার কর্তৃত্ব প্রায়শই বিভিন্ন রাজবংশের কাছে বিতরণ করা হত ফলে অপরিহার্যভাবে এটির একটি সীমাবদ্ধতা রয়েছে।

উদাহরণস্বরূপ আব্বাসীয় খিলাফতের শেষ পর্যায়ে এমনকি রাজধানী বাগদাদও বুইয়ি ও সেলজুকদের মতো অন্যান্য বংশের দ্বারা কার্যকরভাবে শাসিত ছিল, যখন উসমানীয়রা সাধারণত বহিরাগত প্রদেশগুলিতে আলজিয়ার্স এর দাই, তিউনিসের বে এবং ইরাকের মামলুকদের মতো কার্যনির্বাহী কর্তৃত্ব স্থাপন করেছিল।

প্রাথমিক উৎস এবং ইসলামী ইতিহাস লিখনধারাঃ ইসলামের ইতিহাস

ইসলামী ইতিহাসের প্রথম দিকে সূত্রের অভাবে অধ্যয়ন জটিল হয়ে পড়েছে। উদাহরণস্বরূপ ইসলামের উৎসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক সূত্র হল আল তাবারির রচনা।তাঁর সময় ও স্থানের মানদণ্ড অনুযায়ী আল-তাবারিকে একজন দুর্দান্ত ঐতিহাসিক হিসাবে বিবেচনা করা হলেও তিনি পৌরাণিক, কিংবদন্তি, বাঁধাধরা, বিকৃত এবং প্রাসঙ্গিক বিষয়ের বিতর্কিত উপস্থাপনার উদার ব্যবহার করেছেন –

যা ইসলামিকভাবে গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হয় – এবং ইসলামের সূচনা সম্পর্কে তাঁর বর্ণনা প্রকৃত তারিখের পরবর্তী তারিখ দেওয়া, কয়েক প্রজন্মের পরের আল-তাবারি ৯২৩ সালে মারা যান। উপলভ্য উৎসসমূহের ভিন্ন ভিন্ন মতামতের ফলে প্রারম্ভিক ইসলামের ইতিহাস চারটি ভিন্ন পদ্ধতির দিকে পরিচালিত হয়েছে। চারটি পদ্ধতিরই আজ কিছু স্তরের সমর্থন রয়েছে।

* বর্ণনামূলক পদ্ধতিটি ইসলামী ঐতিহ্যের রূপরেখা ব্যবহার করেছে, যেখানে সেই উৎসসমূহের মধ্যে অলৌকিক ঘটনা ও বিশ্বাস কেন্দ্রিক কাহিনীসমূহ বিন্যস্ত করা হয়েছে।অ্যাডওয়ার্ড গিবন এবং গুস্তাভ ওয়েল হলেন বর্ণনামূলক পদ্ধতি অনুসরণকারী প্রথম কিছু ঐতিহাসিকদের প্রতিনিধিত্বকারী।

বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা

*উৎস সমালোচনা পদ্ধতি, উৎসসমূহে কোন তথ্য দুর্বল এবং এর উৎসের মধ্যে বৈশিষ্ট্যমূলক উপাদানের যে পার্থক্য রয়েছে তা শনাক্ত করার জন্য সমস্ত উৎসের একটি তুলনা করা হয়।উইলিয়াম মন্টগোমেরি ওয়াট এবং উইলফার্ড মাদেলুংয়ের কাজ উৎস সমালোচনা পদ্ধতির দুটি উদাহরণ।

*ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতিতে উৎসসমূহ অস্পষ্ট এবং লোকমুখে প্রচলিত ইতিহাসের সাথে মৌখিক ঐতিহ্যের উপর ভিত্তি করে বিশ্বাস করা হয় এবং তাই খুব সতর্কতার সাথে ব্যবহার করা হয়।ইগনাজ গোল্ডজিহর ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতির প্রবর্তক ছিলেন এবং ইউরি রুবিন সমসাময়িক কালের উদাহরণ।ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

*সংশয়মূলক পদ্ধতিটি বিকৃত এবং বানোয়াট উপাদানগুলি থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া খুব কঠিন, যে কোন সম্ভাব্য ঐতিহাসিক মূল সম্পর্কে প্রচলিত উৎসসমূহের প্রায় সমস্ত উপাদানকে সন্দেহ করে।সংশয়মূলক পদ্ধতির প্রাথমিক উদাহরণ হচ্ছে জন ওয়ান্সব্রুর কাজ।

বর্তমানে বিভিন্ন পদ্ধতির জনপ্রিয়তা বিবেচনাধীন কাজের সুযোগের ক্ষেত্রে পরিবর্তিত হয়। প্রাথমিক ইসলামের ইতিহাস সাধারণভাবে বর্ণনার জন্য বর্ণনামূলক পদ্ধতিটি বেশি জনপ্রিয়। যেসকল পন্ডিতগণ গভীরভাবে ইসলামের সূচনা প্রত্যক্ষ করেন তারা উৎস সমালোচনা এবং ঐতিহ্য সমালোচনামূলক পদ্ধতিগুলি প্রায়শই অনুসরণ করেন।

ইসলামিক উৎসঃ ইসলামের ইতিহাস

প্রাক্তন সভ্যতার প্রেক্ষাপটে ইসলামের উত্থান হয়েছিল। ষষ্ঠ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে আরবে রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছিল এবং যোগাযোগের পথগুলি আর নিরাপদ ছিল না।ধর্মীয় বিভাগগুলি এই সঙ্কটে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।ইহুদি ধর্ম প্রায় ৩৮০ এর পর ইয়েমেনের হিমিয়ার রাজ্যের প্রভাবশালী ধর্মে পরিণত হয় এবং তখন খ্রিস্ট ধর্ম পারস্য উপসাগরে শিকড় গাড়ছিল।

আরও একটি “ধর্মের আধ্যাত্মিক রূপ” সম্পর্কে আকুল আকাঙ্ক্ষা ছিল এবং “ধর্মের পছন্দ ক্রমবর্ধমানভাবে একটি সম্মিলিত ইস্যুর পরিবর্তে স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে।”কিছু লোক বিদেশী বিশ্বাসে রূপান্তরিত হতে অনিচ্ছুক হলেও এই বিশ্বাসগুলি “মূল বৌদ্ধিক ও আধ্যাত্মিক তথ্যসূত্র” সরবরাহ করেছিল এবং আরামীয় থেকে প্রাপ্ত ইহুদি ও খ্রিস্টান তৎভবশব্দসমূহ উপদ্বীপের সর্বত্র আরবি ভাষার পুরানো পৌত্তলিক শব্দভাণ্ডারকে প্রতিস্থাপন করতে শুরু করেছিল।

হানিফ বা “সন্ধানকারী” বহু-ঈশ্বরবাদকে প্রতিস্থাপনের জন্য একটি নতুন ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গির সন্ধান করেছিলেন এবং “আল্লাহ সর্বশক্তিমান ঈশ্বর যাকে তারা নির্দ্বিধায় ইহুদি প্রভু এবং খ্রিস্টান যিহোবার সাথে সমান গণ্য করেছিলেন।”তাদের দৃষ্টিতে মক্কা মূলত ইব্রাহিম প্রতিষ্ঠিত এই সত্য ধর্মের প্রতি উত্সৃষ্ট ছিল।

ইসলামী নবী মুহাম্মদ মক্কায় ৫৭০ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিল কুরাইশ পরিবারের ছিলেন, কুরাইশরা মক্কার প্রধান জাতি এবং পশ্চিম আরবের প্রভাবশালী শক্তি ছিল। অরাজকতা মোকাবেলায় তারা “পবিত্র মাসসমূহ” প্রতিষ্ঠা করেছিল, সেই মাসসমূহে সকল সহিংসতা নিষিদ্ধ ছিল এবং ভ্রমণ নিরাপদ ছিল।মক্কা ও আশেপাশের বহু ঈশ্বরবাদীদের কাবা ঘর ছিল জনপ্রিয় তীর্থস্থান যা শহরের জন্য উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক আয়ের উৎসে পরিণতি হয়েছিল।

ইসলামি স্বর্ণযুগঃ ইসলামের ইতিহাস

পূর্ববর্তী খলিফাদের অর্জন একীভূত করে ৭৫০ সালে আব্বাসীয় রাজবংশ ক্ষমতায় ওঠে। প্রাথমিকভাবে তারা বেলিরিক সহ ভূমধ্যসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ এবং পরে ৮২৭ সালে দক্ষিণ ইতালি জয় করে। আব্বাসীয় বিপ্লবী আবু মুসলিম দ্বারা উসকিয়ে দেওয়া উমাইয়াদের প্রতি অসন্তোষের তরঙ্গে আব্বাসীয়রা ক্ষমতায় আসে।আব্বাসীয়দের অধীনে ইসলামী সভ্যতা বিকাশ লাভ করেছিল।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ছিল আরবি সাহিত্য এবং কবিতার বিকাশ, যা কেমব্রিজ হিস্ট্রি অফ ইসলাম এর পরিভাষায় “স্বর্ণযুগ” হিসাবে আখ্যায়িত হয়েছে। আব্বাসীয় খলিফা আল মনসুর (শাসনকাল ৭৫৪–৭৭৫), হারুনুর রশিদ (শাসনকাল ৭৮৬–৮০৯), আল-মামুন (শাসনকাল ৮০৯-৮১৩) এবং তাদের অব্যবহিত উত্তরসূরীদের অধীনে বাণিজ্য ও শিল্প (মুসলিম কৃষি বিপ্লব হিসাবে বিবেচিত) এবং কলা ও বিজ্ঞান (মুসলিম বৈজ্ঞানিক বিপ্লব হিসাবে বিবেচিত) বিকশিত হয়।ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

আব্বাসীয়রা পারস্য ও ট্রান্সঅক্সানিয়ায় প্রাচ্য বিষয়গুলির উপরে গুরুত্বের কারণে রাজধানী দামেস্ক থেকে বাগদাদে স্থানান্তর করে। এই সময়ে খিলাফতে আঞ্চলিক রাজবংশের উত্থানের ফলে ফাটল দেখা দেয়। যদিও বিদ্রোহী আব্বাসীয়রা উমাইয়া পরিবারের সকল লোকদের হত্যা করে তবে উমাইয়া পরিবারের এক সদস্য প্রথম আবদুর রহমান স্পেনে পালিয়ে গিয়ে ৭৫৬ সালে সেখানে একটি স্বাধীন খেলাফত প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মাগরেব-এ হারুনুর রশিদ আরব আগলাবিদেরকে কার্যত স্বশাসিত শাসক হিসাবে নিয়োগ করেছিলেন যদিও তারা কেন্দ্রীয় কর্তৃত্বকে স্বীকৃতি অব্যাহত রেখেছিল।

আগলাবিদের শাসন স্বল্পকালীন ছিল, ৯০৯ সালে শিয়া ফাতিমীয় রাজবংশ আগলাবিদের ক্ষমতাচ্যুত করে। ৯৬০ সাল নাগাদ ফাতিমীয়রা আব্বাসীয় মিশরকে জয় করে এবং ৯৭৩ সালে “আল-কাহিরাহ” (যার অর্থ “বিজয়ের গ্রহ”, এটি বর্তমানে কায়রো নামে পরিচিত) নামে রাজধানী তৈরি করে। পারস্যে তুর্কি গজনভিরা আব্বাসীয়দের কাছ থেকে ক্ষমতা ছিনিয়ে নেয়।১০৫৫ খ্রিস্টাব্দে মহান সেলযুক সাম্রাজ্য (একটি মুসলিম তুর্কি জাতি যারা মূল ভূখণ্ড পারস্যে অভিবাসী হয়েছিল) আব্বাসীয়দের প্রভাব গ্রাস করে।

আধুনিক সময়কালঃ ইসলামের ইতিহাস

১৯৭৯ সালে ইরানি বিপ্লবের পর একজন শিয়া ধর্মীয় নেতা ও মারজা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনীর শাসনামলে ইরান একটি সাংবিধানিক রাজতন্ত্র থেকে জনপ্রিয় ঈশ্বরতান্ত্রিক ইসলামি প্রজাতন্ত্রে রূপান্তরিত হয়। বিপ্লবের পরে একটি নতুন সংবিধান অনুমোদিত হয় এবং একটি গণভোটে সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়, রুহুল্লাহ খোমেনি সর্বোচ্চ নেতা হিসাবে নির্বাচিত হন। পরবর্তী দু’বছরে উদারপন্থী, বামপন্থী এবং ইসলামী গোষ্ঠী একে অপরের সাথে লড়াই করে এবং ইসলামপন্থীরা ক্ষমতা দখল করে।ইসলামের ইতিহাস সম্পর্কে আপনার জানা এবং অজানা সকল তথ্য যেনে নিন

দুটি বিপরীত প্রান্তের বিকাশ, শিয়া ইসলামের দ্বাদশবাদী শিয়া সংস্করণে ইরানের সাফাভিবাদের রূপান্তর এবং সৌদি আরবের ইরানি বিপ্লব ও সালাফির দ্বারা এর শক্তিবৃদ্ধি, ইরানের সাথে সৌদি আরবের সম্পর্কের ফলে এই সরকারগুলি তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ বাড়াতে সাম্প্রদায়িক দ্বন্দ্বকে ব্যবহার করেছিল। সৌদি আরব এবং কুয়েতের মতো উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলি (ইরাকের শত্রু হওয়া সত্ত্বেও) সাদ্দাম হুসেনকে ইরান আক্রমণ করতে উৎসাহিত করেছিল যার ফলে ইরান-ইরাক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে, এর কারণ হলো তারা আশঙ্কা করেছিল যে তাদের নিজস্ব সীমানায় একটি ইসলামী বিপ্লব ঘটতে পারে।

কিছু নির্বাসিত ইরানী সাদ্দামকে বোঝাতেও সহায়তা করেছিল যে তিনি আক্রমণ করলে নতুনভাবে বর্ধমান ইসলামী প্রজাতন্ত্রটি দ্রুত ভেঙে পড়বে।

আরও পড়ুন-

কেন অর্থ বুঝে নামাজ পড়া উচিৎ: পড়ুন

আত্মীয়তার সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিৎ – জানুন

সালাম দিলে কি আপনি লাভবান হবেন? জানুন

SS IT BARI– ভালোবাসার টেক ব্লগের যেকোন ধরনের তথ্য প্রযুক্তি সম্পর্কিত আপডেট পেতে আমাদের মেইল টি সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ২৬৩ other subscribers

এছাড়াও আমাদের প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের নিচের দেয়া এই লিংক এ যুক্ত থাকুন।

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এএখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন এই লিংকে

WhatsApp Image 2022 02 01 at 9.56.07 AM

SS IT BARI- ভালবাসার টেক ব্লগ এ হেলথ/স্বাস্থ্য/স্কিন কেয়ার  এবং ইতিহাস বিষয়ক লেখালিখি করি। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, SS IT BARI-আমার হাতেখড়ি। হেলথ/স্বাস্থ্য/স্কিন কেয়ার বিষয়ক বিশ্লেষণ বাংলায় জানতে ভিজিট করুন http://ssitbari.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.