অভিজ্ঞতা ছাড়া অনলাইন ইনকাম করুন নতুন মাধ্যম থেকে

আসসালামু আলাইকুম আশা করছি সকলেই ভাল আছেন, আপনি যদি অনলাইন ইনকাম করতে চান লাইফ টাইম পর্যন্ত তাহলে আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্য।

আজকের এই পোষ্টটি এমনভাবে সাজানো হয়েছে, যেকোনো একজন অনভিজ্ঞ ব্যক্তিও কিভাবে তার মোবাইল অথবা কম্পিউটার ডিভাইসকে ব্যবহার করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসেই হাজার হাজার টাকা অনলাইন ইনকাম করতে পারবে তার উপরে ভিত্তি করে বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে।

অনলাইন ইনকাম
অনলাইন ইনকাম

ইনশাল্লাহ আপনি যদি অনলাইন ইনকাম করতে চান তাহলে আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদেরকে এমন ভাবে এমন কিছু মাধ্যম সম্পর্কে জানাবো যেই মাধ্যমগুলিকে আপনি ব্যবহার করে। কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই আপনি আপনার হাতে থাকাই স্মার্ট মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটারের মাধ্যমে হাজার হাজার টাকা অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।তো চলুন কথার না বাড়িয়ে আমরা মূল বিষয়ে চলে যাই।

অনলাইন ইনকাম করার জন্য কি দরকার?

শুরুতেই আমরা যেহেতু অনলাইন ইনকাম করব এজন্য আমাদের অবশ্যই কি বিষয়গুলি বাকি সকল বিষয় আমাদের প্রয়োজন সে বিষয়ে জানতে হবে।

  • আপনি অনলাইন ইনকাম করতে চাইলে প্রথমে আপনি কোন বিষয় নিয়ে বা কোন প্লাটফর্ম নিয়ে অনলাইন থেকে আয় করবেন তা মনস্থির করবেন।
  • সফলতা না আসা পর্যন্ত আপনি যে প্ল্যাটফর্ম নিয়ে শুরু করবেন সেই প্লাটফর্ম এর বাহিরে অন্য কোন প্লাটফর্মে কাজ শুরু করবেন না।
  • অবশ্যই আপনার অনলাইন থেকে আয় করার জন্য সবচাইতে বেশি যে বিষয়টি দরকার তা হচ্ছে আগ্রহবোধ এবং আপনার প্রচেষ্টা।
  • প্রতিদিন ধারাবাহিক ভাবে কাজ করার সময় এবং ইচ্ছে দুটি থাকতে হবে।
  • অবশ্যই আপনার কম্পিউটার অথবা মোবাইল ডিভাইস থাকতে হবে।
  • ইংলিশ ভাষা সম্পর্কে বোঝা এবং বলার একটু হলেও জ্ঞান থাকতে হবে।
  • মোবাইল অথবা কম্পিউটার ডিভাইস পরিচালনা বা চালানোর একটু হলেও অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

আশা করছি উপরের এই সকল বিষয়ে আপনি লক্ষ্য রাখলেই অনলাইন থেকে অবশ্যই কোন না কোন প্লাটফর্ম দিয়ে আপনি সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

ব্লগিং ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম | অনলাইন ইনকাম ২০২৩

বর্তমানে ব্লগার ওয়েবসাইট তৈরি করে বাংলাদেশের অনেকেই হাজার হাজার টাকা গুগল এডসেন্স থেকে তাদের ব্যাংক একাউন্টে নিয়ে এসে আয় করছে। তাই আপনারা যদি চান আপনার হাতে থাকায় স্মার্ট মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটার ডিভাইজের মাধ্যমে ব্লগিং ওয়েবসাইট তৈরি করে। সেই ওয়েবসাইট থেকে গুগল এডসেন্স এপ্রুভ করিয়ে। প্রতি মাসে গুগল এডসেন্স কোম্পানির কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

ব্লগিং ওয়েবসাইট থেকে কিভাবে ইনকাম হয়?

  • প্রথমে আপনি www.blogger.com  এই ওয়েবসাইটে গিয়ে ফ্রিতে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিবেন।
  • এরপর আপনার একটি ব্লগার সেটের নাম দিবেন এবং একটি থিম আপলোড করবেন।
  • এখন আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি হয়ে যাবে সেই ওয়েবসাইটে আপনি কন্টেন্ট পাবলিস্ট করবেন।
  • এর কিছুদিন পরে আপনি google এডসেন্সের জন্য আবেদন করবেন।
  • গুগল এডসেন্স কোম্পানি আপনার আবেদনটি রিভিউ করে দেখে আপনার ওয়েবসাইটের সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ১৪ দিনের মধ্যে google এডসেন্স মনিটাইজেশনে এপ্রুভ হয়ে যাবে।
  • এবং সেদিন থেকে google এডসেন্স এ আপনার ওয়েবসাইটে যত ভিজিটর আসবে এড ক্লিক হবে সেই ক্লিকের রেভিনিউ অ্যামাউন্ট আপনার অ্যাকাউন্টে যুক্ত হয়ে যাবে।

আশা করছি আপনারা যারা ব্লগিং ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে চাচ্ছেন তারা খুব সহজেই অনলাইন ইউটিউব ফেসবুক এগুলি দেখে আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করে, সেই ওয়েবসাইট থেকে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুক থেকে অনলাইন ইনকাম

বর্তমানের যতগুলি বড় বড় জনপ্রিয় অনলাইন ইনকাম করার প্লাটফর্ম রয়েছে তার মধ্যে সবচাইতে জনপ্রিয় এই ফেসবুক।

বর্তমানে আপনি আপনার ফেসবুক প্রোফাইল থেকেও শুধু মাত্র হাজার হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

একটা সময় ছিল ফেসবুক থেকে টাকা আয় করার জন্য একটি প্রফেশনাল ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হয়, এরপর সেই পেজটি সুন্দরভাবে আপনার ফুলফিল বা সেটআপ করতে হয়। এরপরে সেই ফেসবুক পেজ থেকে দু একটি মনিটাইজেশন টুলস অন করে সীমিত পরিমান কিছু আয় করা যেত।

ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম করার সঠিক উপায়

তবে বর্তমানের ফেসবুকে আপনি প্রোফাইল আইডি থেকেও, মনিটাইজেশনের যতগুলি এখন টুলস রয়েছে যেকোনো একটি টুলস অন করে প্রতি মাসেই ফেসবুক থেকে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। তো চলুন জেনে নিই ফেসবুক থেকে আয় করব কিভাবে সে বিষয়টি।

ফেসবুক থেকে অনলাইন ইনকাম করার নিয়ম?

প্রথমে আপনি আপনার মোবাইল নাম্বার অথবা ইমেইল আইডি দিয়ে একটি প্রফেশনাল ফেসবুক আইডি অথবা ফেসবুক পেজ খুলে নিবেন।

এরপর আপনি প্রফেশনালি প্রত্যেকটা রিকোয়ারমেন্ট ইনফরমেশন আপনার ফেসবুক আইডি অথবা ফেসবুক পেজে দিয়ে সম্পূর্ণ পেজ বা আইডিটি কমপ্লিট করবেন।

এরপর আপনি বর্তমানে যতগুলো মনিটাইজেশান টুলস রয়েছে তার মধ্যে থেকে যেকোনো একটি মনিটাইজেশন টুলস অন করে, ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

বর্তমানে মনিটাইজেশন টুলস গুলি –

  1. star
  2. In stem ads
  3. Ads on reels
  4. Subscription
  5. Bonus program
  6. Live ads

উপরের এই সকল মনিটাইজেশন টুলস থেকে আপনি যেকোনো একটি অন করে খুব সহজে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

ইনস্টাগ্রাম থেকে অনলাইন ইনকাম

বর্তমান ফেসবুক ইউটিউব এর পাশাপাশি ইনস্টাগ্রাম প্ল্যাটফর্ম থেকেও হাজার হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করা যাচ্ছে।

ইনস্টাগ্রাম থেকে টাকা আয় করার জন্য আপনার আইডিতে অবশ্যই ১০ হাজার ফলোয়ার থাকতে হবে। আর দশ হাজার ফলোয়ার যখনই হয়ে যাবে তখনই বিভিন্ন রকম বড় বড় কোম্পানি আপনাকে তাদের বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য চুক্তিবদ্ধ করবে।

এই মাধ্যম ব্যবহার করে প্রতি বছর পাঁচ থেকে ছয় হাজার ডলার পর্যন্ত আয় করছে ইনস্টাগ্রাম থেকে অনেকে।

গ্রাফিক ডিজাইন করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের গ্রাফিক ডিজাইন করেও হাজার হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

বর্তমানে আপনি হাতে থাকা স্মার্ট মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটার ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অথবা ইউটিউব ফেসবুক ওয়েবসাইট এগুলির গ্রাফিক ডিজাইন করেও কিন্তু আয় করতে পারবেন।

গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 

আপনি চাইলে ফটো সহ ইলিশ কটনের মত বড় বড় সফটওয়্যারে কাজ ছাড়াও অনলাইনের ক্যানভা ওয়েবসাইট থেকে সুন্দর সুন্দর গ্রাফিক্স তৈরি করে ক্লায়েন্ট এর কাজ করে টাকা আয় করতে পারবেন।

এছাড়াও ফাইবার আপ ওয়ার্ক এর মত ফ্রিল্যান্সার এই ওয়েবসাইটগুলিতে একাউন্ট তৈরি করে সেখান থেকে বায়ারের অর্ডার নিয়োগ গ্রাফিক্সের কাজ করতে পারবেন।

ডাটা এন্ট্রি করে অনলাইন ইনকাম

ডাটা এন্ট্রি কাজ ফিন্যান্সিং কাজেরই একটি অংশ। প্রত্যেকটা ব্যক্তি অনলাইনে যখন আয় করা কাজ শুরু করে তখন এই ডাটা এনটি দিয়ে শুরু করে। যদিওবা ডাটা এন্টি এখন আর সহজ কোনো কাজ নয়।

এরপরেও আপনি চাইলে কিন্তু বিভিন্ন বড় বড় প্রতিষ্ঠানের এবং অন্যান্য ওয়েবসাইটে আপনি ডাটা এনটি কাজ করে প্রতি মাসে ভালো মানের একটি এমাউন্ট আয় করতে পারবেন।

এসইও করে অনলাইন ইনকাম

SEO পূর্ণ নাম search engine optimization। আপনার যদি শুধুমাত্র এসইওর কাজ জানা থাকে সেক্ষেত্র আপনি প্রচুর পরিমাণে ক্লায়েন্টের ওয়েবসাইট ইউটিউব চ্যানেল ফেসবুক পেজ এগুলির করেও হাজার হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

যদিও ভাই এসিওর কাজকে একদমই কঠিন একটি কাজ তবে আপনার জানা থাকলে আপনার কাছে কিন্তু খুবই সহজ হয়ে যাবে।

এজন্য যারা এসইও এক্সপার্ট হতে চান তারা অবশ্যই সর্বপ্রথম এসিওর উপরে ভালো একটি কোর্স করে নিবেন।

কনটেন্ট রাইটিং করে অনলাইন ইনকাম

আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের টপিকের উপরে লেখালেখি করেও প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। এছাড়াও লেখালেখির প্রতি দক্ষ হলে আপনি নিজে একটি ওয়েবসাইট খুলে সেখান থেকেও আয় করতে পারবেন।

একজন দক্ষ কনটেন্ট রাইটার বর্তমানে কিন্তু অনেক চাহিদা। আপনি ফ্রিল্যান্সার আপ ওয়ার্ক এর মত মার্কেটপ্লেস গুলিতেও নিজে কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ করে টাকায় করতে পারবেন। কনটেন্ট রাইটিং হচ্ছে আপনি যে পোস্টটি পড়ছেন তারই একটি উদাহরণ।

ইউটুব থেকে অনলাইনে ইনকাম

বর্তমানে ফেসবুক টুইটার Instagram এর পাশাপাশি YouTube ও বড় একটি মার্কেটপ্লেস। বর্তমানে লক্ষ্য মানুষ YouTube এর ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে। ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা আয় করছে।

ইউটিউব থেকে টাকা আয় করার জন্য প্রথমে প্রফেশনালে একটি ইউটিউব চ্যানেল আপনার তৈরি করতে হবে।

সেই ইউটিউব চ্যানেলে আপনার নিজের কনটেন্ট পাবলিস্ট করতে হবে। এরপর মনিটাইজেশনের জন্য আবেদন করে মনিটাইজেশন অন করে প্রতি মাসে আপনি ইউটিউব চ্যানেল থেকেও হাজার হাজার ডলার আয় করতে পারবেন।

আপনি শুধুমাত্র আপনার নিজের অভিজ্ঞতার ভিডিও কনটেন্টে তৈরি করে যে কোন ধরনের ভিডিও ইউটিউবে পাবলিস্ট করতে পারবেন।

রিসেলিং করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমানে যেহেতু অনলাইনের যুগ আর প্রত্যেকটি পরিবার প্রত্যেকটি ব্যক্তির কাছে স্মার্ট মোবাইল ফোন রয়েছে তাই বর্তমানে এই 80% মানুষই অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট ক্রয় বিক্রয় করে থাকেন। তাই আপনি চাইলে নিজের কোন বিজনেস না থাকা সত্ত্বেও অনলাইনের মাধ্যমে রিসেলিং করে প্রোডাক্ট সেল করে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

বাংলাদেশে এখন এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেই সকল ই-ফমার্স ওয়েবসাইটগুলি এই রিসেলিং সিস্টেম রেখেছে। আর এই রিসেলিং প্রোগ্রাম এ আপনার একাউন্ট তৈরি করে তাদের প্রোডাক্ট আপনি অনলাইনে সেল করে কমিশনার আকারে ভালো একটি এমাউন্ট প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

বর্তমানে জনপ্রিয় রিসেলিং একটি ওয়েবসাইট –  www.shopup.com

মাইক্রো জব ওয়েবসাইট থেকে অনলাইন ইনকাম

এছাড়াও যদি আপনারা চান যে আপনাদের হাতে থাকা স্মার্ট মোবাইল ফোনে অল্প সময় অতিবাহিত করে অল্প আয় করতে?

আপনারাও খুব সহজেই মাইক্রো জব ওয়েবসাইটগুলি থেকে ছোট ছোট কাজ করে অল্প সময় অতিবাহিত করে প্রতিদিন ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত নগদ বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

এই সকল ওয়েবসাইটে যে সকল কাজ করতে হয় -ফেসবুকের ভিডিও দেখা, ইউটিউবের ভিডিও দেখা, ওয়েবসাইটের পোস্ট পড়া, ফেসবুকে ফলোয়ার হওয়া, ইউটিউবের সাবস্ক্রাইবার হওয়া এছাড়াও অসংখ্য এরকম ছোট ছোট কাজ রয়েছে।

আপনাদের সুবিধার্থে একটি বাংলাদেশি বিশ্বস্ত মাইক্রো জবা ওয়েবসাইটের ইউআরএল দিয়ে দিচ্ছি – www.workupplace.com

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমানে অনলাইন থেকে আয় করার আরেকটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণ ওয়েবসাইট রয়েছে যারা এফিলিয়ে প্রোগ্রাম চালু করে রেখেছে এই অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রোডাক্ট সেল করা সার্ভিস সেল করার মাধ্যমে আপনি ভাল মানের কমিশন পেয়ে প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

তবে অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামিং করে আয় করার জন্য অবশ্যই আপনার নিজের একটি মার্কেটপ্লেস থাকতে হবে যেমন – ফেসবুক আইডি অথবা একটি ফেসবুক পেজ, ইউটিউব চ্যানেল, ওয়েবসাইট এই সকল মাধ্যমে আপনি অন্য ওয়েবসাইটের অ্যাফিলে প্রোগ্রামের সার্ভিস প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

প্রোগ্রামে যুক্ত হওয়ার জন্য অবশ্যই আপনাকে তাদের এফিলেট প্রোগ্রাম এর ফরম ফিলাপ করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

ছবি বিক্রি করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমানে প্রত্যেকটি ব্যক্তির কিন্তু হাতে একটি স্মার্ট মোবাইল ফোন আছে। একটু ভালো মানের মোবাইল ফোনগুলিতেই প্রচুর পরিমাণে ভালো রেজুলেশনের ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। তাই আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের সুন্দর সুন্দর প্রাকৃতিক ছবি উঠিয়েও ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করতে পারবেন।

অনেকে আবার অবাক হয় যে ছবি বিক্রয় করা যায় কিনা?

হ্যাঁ বর্তমানে ওয়ার্ল্ড এ অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি কপিরাইট ফ্রি আপনার মোবাইল ফোন দিয়ে ছবিগুলি বিক্রয় করতে পারবেন।

আপনারা যদি চান এই সকল ওয়েবসাইটের সন্ধান তাহলে অবশ্যই পোস্টের কমেন্টসে জানিয়ে দিবেন।

People also ask

অনলাইনে টাকা উপার্জনের উপায় কি কি?

  • মার্কেটপ্লেসে ফ্রিল্যান্সিং
  • ব্লগিং
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
  • ইউটিউব
  • সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
  • কন্টেন্ট রাইটার/ আর্টিকেল

কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় ২০২৩?

  • ইকমার্স সাইটগুলোতে
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
  • রিসেলার
  • ব্যবহৃত পণ্য
  • রাইড শেয়ারিং
  • ফ্রিল্যান্সিং
  • গাড়ি ভাড়া
  • জরিপ এর মাধ্যমে আয়

অনলাইনে আয় করার উপায়

আপনি যদি প্রোগ্রামিংয়ে দক্ষ হন, তাহলে ওয়েব বা মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপার হওয়ার চেষ্টা করুন। যদি লেখা আপনার আবেগ হয়, তাহলে বিষয়বস্তু লেখার চেষ্টা করুন, ব্লগিং করুন, ইবুক প্রকাশ করুন বা অর্থপ্রদানের নিউজলেটার পাঠান।

শেষ কথা – আশা করছি অনলাইনে ইনকাম আপনারা যারা করতে চান তারা উপরের এই সকল মার্কেটপ্লেস বা প্লাটফর্ম গুলি থেকে যেকোনো একটি নিয়ে কাজ শুরু করে দিতে পারবেন।

আরও জানুন-

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার নতুন মাধ্যম (প্রমাণসহ)

গেম খেলে টাকা আয় পেমেন্ট বিকাশে –নগদে -রকেটে

আপনার জন্য আরো 

SANAUL BARI

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আমি মো:সানাউল বারী।পেশায় আমি একজন চাকুরীজীবী এবং এই ওয়েবসাইটের এডমিন। চাকুরীর পাশাপাশি গত ১৪ বছর থেকে এখন পর্যন্ত নিজের ওয়েবসাইটে লেখালেখি করছি এবং নিজের ইউটিউব এবং ফেসবুকে কনটেন্ট তৈরি করি।
বিশেষ দ্রষ্টব্য -লেখার মধ্যে যদি কোন ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে অবশ্যই ক্ষমার চোখে দেখবেন। ধন্যবাদ।