একদম সহজে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়-100% প্রমানিত

বর্তমানে প্রায় সবাই ইন্টারনেট এবং স্মার্ট মোবাইল এর সাথে যুক্ত। তাই অনলাইনে ইনকাম করার কথা ভাবছেন কম বেশি প্রায় সবাই। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ ইন্টারনেট সুবিধা থাকা সত্ত্বেও অনলাইন থেকে টাকা উপার্জনের সঠিক উপায় খুঁজে পান না। কারণ তারা অনলাইনে আয় করার সঠিক মাধ্যম যানেনা। তাই আজকে আমি আপনাদের আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে জানাবো কি ভাবে আপনারা আপনাদের মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করবেন।

অনলাইনে কাজের কোনো কমতি নেই- এই তথ্যটি এক বা অন্যভাবে সত্য বলা যেতে পারে। আমাদের দেশে অনেকেই প্রয়োজনীয় দক্ষতা থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় কার্যকরী তথ্যের অভাবে অনলাইনে আয় করতে পারে না।কিন্ত বর্তমানে বাংলাদেশে লাখ লাখ মানুষ অনলাইন আয়ের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করছে।

অনলাইন ইনকাম 2022:আমি শুরুতেই বলছি আজকের আর্টিকেলটি অনেক বড় হবে।তাই খুব ধৈর্য ধরে পড়তে হবে। এবং আমি 100% গ্যারান্টি দিতে পারি যদি আপনি এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়েন। তবে ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে আপনার আর কোনো প্রশ্ন থাকবে না।

আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন আপনার এখন কী করা উচিত, কীভাবে আপনার এগিয়ে যাওয়া উচিত।

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ডাটা এন্ট্রি করে আয় করুন –সহজ ঊপায়

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়
মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়

কারা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন এবং কাদের জন্য এই পোস্টটি?

  • যারা সত্যিই পড়াশোনা বা চাকরির পাশাপাশি অনলাইনে ইনকাম করতে চান
  • যারা খুব ধৈর্যশীল
  • যারা কঠোর পরিশ্রম করতে পারে

কারা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন না ?

  • যারা মনে করেন যে তারা অনলাইনে মাত্র কয়েক দিনে হাজার হাজার ডলার আয় করতে পারবেন।
  • যারা পরিশ্রম করতে চাইনা কিন্তু তারা শুধু ডলার আয় করতে চাই।
  • যারা যেকোনো কাজেই অধৈর্য হয়ে ওঠে
  • (কারণ এই পোস্টটি নতুনদের কথা মাথায় রেখে লেখা হয়েছে)

মোবাইল দিয়ে  অনলাইনে ইনকাম ২০২২

এই মুহূর্তে আপনার হাতে একটি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল আছে? শুধু আপনি কেন এখন ২০২২সালে প্রায় সবার হাতেই স্মার্ট ফোন।

কিন্তু আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনি আপনার Android মোবাইল ব্যবহার করে ঘরে বসে মোবাইল দিয়ে আয় করতে পারবেন! আপনি আপনার শখের মোবাইল দিয়ে আপনার বেকারত্ব দূর করতে পারেন।

তুমি কি একজন ছাত্র? হাত খরচ করতে হবে? কোন সমস্যা নেই, আপনার মোবাইল আপনার আর্থিক সমস্যা সমাধানে সাহায্য করবে!

এখন আপনার মনে একটি নিশ্চিত প্রশ্ন আছে, আমার একটি মোবাইল আছে, আমি কিভাবে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করতে পারি?

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম ২০২২
মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম ২০২২

আমি কি প্রতারিত হব নাকি আমি উপার্জন করতে সক্ষম হব? আপনার সব প্রশ্নের উত্তর হ্যাঁ. কিন্তু কিভাবে আয় করবেন? ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

এই নিবন্ধের এই পর্যায়ে আমি আলোচনা করব কিভাবে আপনি মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

মোবাইল দিয়ে হাজার হাজার অনলাইন আয়ের ব্যবস্থা আছে। আমি এমন সব মাধ্যম নিয়ে আলোচনা করব না যেগুলো দিয়ে আপনি অল্প সময় এবং বিশ্বাসে অনলাইন থেকে খুব সহজেই ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করুন

এখন আমি আপনাদের সাথে শুধু ঐ মাধ্যমগুলো নিয়েই কথা বলবো ইনশাআল্লাহ। আমার দেখানো পথে ধৈর্য ধরে কাজ করলে ১০০% ইনকাম হবে মোবাইল দিয়ে।

অনলাইনে ইনকামের সূচনা

আজকের প্রযুক্তির যুগে, মানুষ সকালে ঘুম থেকে ওঠার মুহূর্ত থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার মুহূর্ত পর্যন্ত প্রযুক্তির উপর নির্ভরশীল। এই প্রযুক্তি ও অনলাইন নির্ভর মানসিকতার কারণে মানুষের ইন্টারনেটে আয়ের অনেক পথ খুলে গেছে।

মানুষ সহজেই অনলাইনে ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করছে। দেশের লাখ লাখ মানুষ এখন এই অনলাইন আয়ের ওপর নির্ভরশীল।

বাজার থেকে শুরু করে অফিস এর মত সকল কাজ এখন এই অনলাইনে করছে সবাই।

তাই আপনি চাইলে ইন্টারনেটের মাধ্যমে মোবাইল দিয়েও সহজেই বিভিন্ন উপায়ে আয় করতে পারেন। আপনি কি চান যে আপনার উত্তর যদি হ্যাঁ হয় তবে এই পোস্টটি আপনার জন্য।

অনলাইনে ইনকামের শুরু (Online Income)

অনলাইনে অর্থ উপার্জন করা ৫ বছর আগে যেমন কঠিন ছিল, কিন্তু এখন এটি অনেক সহজ। ডিজিটাল বাংলাদেশের দিকে এগিয়ে যাওয়া আমাদের প্রিয় বাংলাদেশে নানা সমস্যার কারণে ৫ বছর আগেও অনলাইনে আয় করার কথা কেউ কল্পনাও করতে পারেনি।

কিন্তু সেই স্বপ্ন আজ সত্যি হতে চলেছে-২০২২ সালে। মানুষ আজকাল শুধু অনলাইনেই আয় করছে না, বরং এই আয় দিয়েই অনেকর  পরিবারে আসছে সচ্ছলতা।

আজকের আধুনিক বিশ্বে অফিস আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে প্রায় সব ক্ষেত্রেই বেশিরভাগ কাজ অনলাইনে করা হচ্ছে। অতীতে, আপনি যদি কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদন করতে চান তবে আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে এসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফর্ম নিতে হত।

কিন্তু এখন দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে অনলাইনে ভর্তির ফরম পূরণ করা যাবে। চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রেও এখন এমনটা হয়। এই বিভিন্ন জায়গায়, অনলাইনে বিভিন্ন কাজ সম্পাদনের জন্য অনলাইনে বিভিন্ন কাজের সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। আপনাকে যা করতে হবে তা হল একটি ডিজিটাল ডিভাইস।(smart Mobile, Laptop or PC with Internet connection)

এখানে আমি গ্যারান্টি দিতে পারি না যে আপনি প্রথম থেকেই অনলাইনে লাখ লাখ টাকা আয় করতে পারবেন। কিন্তু আপনার যদি ধৈর্য থাকে, এবং আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট কাজে দক্ষ হয়ে উঠতে পারেন, তাহলে আপনি প্রতি মাসে অনলাইনে বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়১০০% প্রমানিত

অনলাইনে টাকা আয় করতে কে না চায়! সবাই অনলাইনে কিছু অর্থ উপার্জন করতে চায়। অনলাইন আয়ের অনেক উৎস রয়েছে। তবে এর মধ্যে ভালো বা মন্দ আছে।

আজকের পোস্টে, আমরা অনলাইনে আয়ের সেরা কার্যকরী কিছু উপায় জানাব যেগুলি থেকে আপনি ভাল আয় করতে পারেন।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ফ্রিল্যান্সিং

ফ্রিল্যান্সিং শব্দটির সাথে প্রায় সবাই পরিচিত। ফ্রিল্যান্সিং হল একটি প্রতিষ্ঠানে প্রচলিত চাকরির পরিবর্তে একজন স্বাধীন ব্যক্তি হিসেবে কাজ করার পেশা।

বর্তমানে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের সবচেয়ে আলোচিত উপায় হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। ফাইবার, আপওয়ার্কের মতো ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মগুলি ফ্রিল্যান্সারদের জন্য এই যাত্রাকে সহজ করেছে।

ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের একটি প্রধান সুবিধা হল আপনার সমস্ত দক্ষতা ব্যবহার করার সুযোগ। ধরুন আপনি ভিডিও এডিটিং এর পাশাপাশি গ্রাফিক্স ডিজাইনেও খুব ভালো। সেক্ষেত্রে আপনি ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে দুই ধরনের কাজ করে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

আপনার যদি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা না থাকে তাহলে আপনি আমাদের ওয়েবসাইটে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কিত পোস্ট গুলু দেখে নিতে পারেন।

Related Post: ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারPart-01

Related Post: কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো? ফ্রিল্যান্সিং করার জনপ্রিয় ওয়েবসাইটPart-2

Related Post: ফ্রিল্যান্সিং কাকে বলে?ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন-Part-03

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ব্লগিং (Blogging) করে আয়

ব্লগিং অনলাইন আয়ের একটি অতি প্রাচীন মাধাম কিন্তু অত্যন্ত কার্যকরী পদ্ধতি। এই  ব্লগিং করে প্রতি মাসে ভালো পরিমাণ টাকা উপার্জন করা সম্ভব।

এটি মূলত একটি ডিজিটাল সংবাদপত্রের মতো। আপনি আপনার মনের মধ্যে যে কোন বিষয় নিয়ে লিখবেন। আর অন্যরা আপনার এই লিখাটি গুগল থেকে দেখবে এবং যানতে পারবে।

আপনি এখন যে নিবন্ধটি পড়ছেন সেটিও একটি ব্লগ। অতএব, আপনি বিষয়টি বুঝতে পারেন। আপনি যদি লেখালেখিতে আগ্রহী হন তাহলে এখান থেকে সহজেই আয় করতে পারবেন।আপনি যে বিষয়ে সবচেয়ে বেশি আগ্রহী, জ্ঞান বা অভিজ্ঞতা সেই বিষয়ে ব্লগিং করা সবচেয়ে উপযোগী।

তাই আপনি যেকোনো একটা নিশ নিয়ে কাজ করতে পারেন. Niche হল নির্দিষ্ট বিভাগগুলিকে বোঝায় ।যেমন -খেলাধুলা, প্রযুক্তি, আইন, রান্না, জীবনী, ভ্রমণ ইত্যাদি। উদাহরণস্বরূপ, ভ্রমণের ক্ষেত্রে, আপনি একটি নির্দিষ্ট জায়গায় ভ্রমণ করতে কেমন ছিল সে সম্পর্কে একটি বিস্তারিত ব্লগ লিখতে পারেন।

সহজ উপায়ে ডাটা এন্ট্রি কাজ করে ঘরে বসে ইনকাম করুন-নুতন নিয়মে

এখন মূল বিষয় হল আপনি কোথায় লিখবেন ? এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি নিজে একটি ব্লগ সাইট তৈরি করতে পারেন। এখন কোনো খরচ ছাড়াই ব্লগ সাইট তৈরি করা খুবই সহজ। কিন্তু ফ্রি সাইটের প্রতি মানুষের বিশ্বাস কম থেকে একটু ।

এছাড়াও আপনি চাইলে আমাদের এই ওয়েবসাইটে লিখা লিখি করে আমাদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন এবং ভাল একটা ইনকাম করতে পারেন-আপনিও লিখুন এখানে ক্লিক করেন।

তাই আমাদের পরামর্শ হবে প্রথমে কিছু টাকা খরচ করে একটি ডোমেইন হোস্টিং কিনে একটি আকর্ষণীয় সাইট তৈরি করুন। তারপর সেখানে লেখা শুরু করুন। দেখবেন ভালো ফল পাচ্ছেন।

এক জিবি হোস্টিং এবং একটি বিনামূল্যের থিম সহ একটি ডট কম ডোমেন কিনুন৷ আপনার ব্লগিং শুরু করার জন্য এই তিনটি জিনিসই যথেষ্ট। এক্ষেত্রে আপনার খরচ হতে পারে প্রায় তিন হাজার টাকা।

এভাবে ব্লগিং করলে আপনার ব্র্যান্ডিং ভালো হবে এবং আয়ের পরিমাণ ফি সাইটের তুলনায় অনেক বেশি হবে। আর আপনার সাইটের দাম ভবিষ্যতে অনেক বেশি হবে। একটি ভাল সাইটের মান বিশেষ ক্ষেত্রে কয়েকটি লক্ষ্য পর্যন্ত যায়।

নাগদ,বিকাশ,রকেট দিয়ে ডোমেইন,হোস্তিং কিনুন এখান থেকে

আর ফ্রি সাইটের ক্ষেত্রে গুগল আপনাকে পুরো ডোমেইন দেবে না। সেক্ষেত্রে আপনি সাব ডোমেইন পাবেন। এইভাবে, একটি ব্লগ সাইট খোলার ক্ষেত্রে, আপনি Blogspot দিয়ে 10 মিনিটের মধ্যে একটি ব্লগ সাইট খুলতে পারেন।

আর এক্ষেত্রে আপনি মোবাইল এবং কম্পিউটার উভয় মাধ্যমেই কাজ করতে পারবেন। তাই যারা মোবাইলে অনলাইনে আয়ের কথা ভাবছেন তাদের জন্য এটি হতে পারে দারুণ সুযোগ।

তবে এত কিছুর পাশাপাশি ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে কিছু ধারনা থাকলে কিন্তু আপনি সহজেই আপনার ব্লগে প্রচুর ট্রাফিক বা ভিজিটর আনতে পারবেন। যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার আয়কে বহুগুণ করতে পারবেন।

ব্লগিংএ সফলতা পেতে চাইলে যা অবশ্যই জরুরীঃ

  • আপনার অবশ্যই একটি মোবাইল বা কম্পিউটার থাকতে হবে।
  • ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে।
  • যেকোনো ধরনের, বিনামূল্যের বা অর্থপ্রদানের ওয়েবসাইট থাকতে হবে।
  • নিয়মিত ব্লগে অনন্য সামগ্রী প্রকাশ করুন।
  • অ্যাডসেন্স অবশ্যই ব্লগে চলতে হবে।
  • আপনার একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে।

ব্লগিং নিয়ে আরও যানতে এই পোস্ট গুলো দেখুনঃ

গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ না পাওয়ার কারণ?

এসইও টুলস এর সঠিক ব্যবহার এবং গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়

Blogging A TO Z।শুধুমাত্র নতুন ব্লগারদের জন্য।

সহজ এসইও করে গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার উপায়।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায় ইউটিউবিং করে আয়

বাংলাদেশে অনেক বড় বড় ইউটিউবার আছে। তাদের কারো কারো মাসিক আয় ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকা। তবে আপনি চাইলে ইউটিউব ভিডিও তৈরি করেও অর্থ উপার্জন শুরু করতে পারেন।

এই ভিডিও আপনার ক্যামেরা ছাড়া করা যাবে. প্রথমে অনেক বড় ইউটিউবার তাদের মোবাইল ফোন দিয়ে ভিডিও তৈরি করে ইউটিউব যাত্রা শুরু করে। সফল হওয়ার পর তারা এখন দামি গ্যাজেট ব্যবহার করেন।

আপনার বিষয়বস্তু ভালো হলে, প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে ভিডিও বানাতে পারলে খুব দ্রুতই আপনি ভিউয়ার পাবেন।তবে এক্ষেত্রে টিপস সহ একটি ছোট টিপস দেব। আপনি যদি সত্যিই ইউটিউবে পেশাগতভাবে কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে ভিডিও অডিও এবং ভিডিও এডিটিং খুব ভালোভাবে করতে হবে।

আপনার ন্যূনতম এক হাজার সাবস্ক্রাইবার এবং সর্বনিম্ন ভিউ টাইম হয়ে গেলে আপনি ইনকামের জন্য আবেদন করতে পারেন৷ এর পরে, আপনি প্রতিটি ভিডিওতে মনিটাইজেশন সক্রিয় করলে আপনার আয় শুরু হবে।

ইউটিউবিং করে আয়
ইউটিউবিং করে আয়

বর্তমান ইউটিউব কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি, আপনি বিভিন্ন জায়গা থেকে স্পনসরের মাধ্যমেও আয় করতে পারেন। দেখা গেল যে একটি কোম্পানি আপনাকে একটি পণ্যের বিপণনের জন্য আপনার ভিডিওতে আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন দিতে বলেছে। আপনি যদি বিজ্ঞাপনে সম্মত হন তবে তিনি আপনাকে আপনার চাহিদা অনুযায়ী অর্থ প্রদান করবেন।

ইউটিউব থেকে আয় করতে চাইলে যেসব বিষয় অবশ্যই জরুরীঃ

  • আপনার একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন বা কম্পিউটার থাকতে হবে।
  • ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে।
  • একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে।
  • আপনাকে YouTube চ্যানেলে নগদীকরণ শুরু করতে হবে।
  • আপনি কি তৈরি করতে চান সে সম্পর্কে আপনাকে একটি খুব পরিষ্কার ভিডিও ক্যাপচার করতে হবে।
  • ক্যামেরা দিয়ে ধারণ করা ভিডিওগুলি পেশাদার মানের সাথে সম্পাদনা করা প্রয়োজন।
  • আপনার চ্যানেলে সম্পাদিত ভিডিও আপলোড করতে
  • আপনার চ্যানেলে আপলোড করা ভিডিও বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করে আপনার ভিডিওর ভিউ বাড়াতে হবে।

তবে মনে রাখবেন কারো ফেক ভিডিও কপি করে এটা করা যাবে না। এটা স্বার্থের পরিপন্থী হতে পারে। কারণ আপনি জানেন যে আপনি যদি অবৈধভাবে কিছু অর্জন করতে চান তবে আপনি বিপদে পড়বেন। আর পরকালে আল্লাহর শাস্তি। যাই করুন না কেন হালাল কিছু করার চেষ্টা করুন।

সহজ আ্যাফিলিয়েট ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করুন-অ্যাকাউন্ট করলেই 200-300 টাকা বোনাস

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়আর্টিকেল লিখে আয়

এই আর্টিকেলটি বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে খুবই জনপ্রিয়। এখন ভালো আর্টিকেল রাইটার পাওয়া কঠিন। বিশেষ করে বাংলাদেশে প্রবন্ধ লেখক পাওয়া যায় না। এ খাতে দক্ষ লোকের অভাব রয়েছে।

কিন্তু আপনি চেষ্টা করলে আপনার মোবাইল দিয়ে ঘরে বসে আর্টিকেল লিখে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। আপনি যদি একজন পেশাদার লেখক হন তবে আপনি অবশ্যই চাকরি পাবেন।

দক্ষতা থাকা সত্বেও কাজ না পেলে আমি ইনশাআল্লাহ আপনার আয়ের ব্যবস্থা করে দেবো –যোগাযোগ এখানে

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ভিডিও দেখে আয়

অনেকেই হয়তো ভিডিও দেখে অনলাইনে আয় সম্পর্কে জানেন না। সত্যি কথা বলতে, অনলাইনে ভিডিও দেখে আয় দেখে অনেকেই অবাক হলেও ঘটনাটি সত্যি। বর্তমানে কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে আপনাকে প্রতিদিন ভিডিও দেখার জন্য অর্থ প্রদান করা হবে।

কিন্তু মনে রাখবেন, অনলাইন ভিডিও দেখে অর্থ উপার্জন করার জন্য স্ক্যাম বা জাল সাইট রয়েছে। যারা আপনাকে ভিডিওটি দেখাবে তারা পরবর্তীতে কোনো পেমেন্ট করবে না। এই ধরনের স্ক্যাম এড়াতে, আপনাকে অবশ্যই অনলাইন জগতে সবসময় সতর্ক থাকতে হবে।

ভিডিও দেখে আয়
ভিডিও দেখে আয়

সাধারণত এই ধরনের ওয়েবসাইটগুলি তাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের চটকদার বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে আপনাকে ভিডিও দেখিয়ে প্রলুব্ধ করার চেষ্টা করে। একটা কথা সব সময় মাথায় রাখতে হবে। অনলাইনে কোনো ওয়েবসাইট আপনাকে ভিডিও দেখার জন্য খুব বেশি অর্থ প্রদান করবে না।

যখনই আপনি একটি লেখার ওয়েবসাইটে একটি অর্থ প্রদানের বিজ্ঞাপন দেখেন, আপনি তাদের বই সম্পর্কে কথা বলেন; তারপর ওয়েবসাইটটি খুব পরিচিত মনে হলে কাজ শুরু করুন; অন্যথায় নয়।

আমার প্রিয় একটা ইনকাম করার ওয়েব সাইট –এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত দেখে কাজ শুরু করতে পারেন।

অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম। ১০০% প্রমান সহ নিজের অভিজ্ঞতা।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায় এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়

আপনি চাইলে ঘরে বসে অনলাইনে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আমি এফিলিয়েট মার্কেটিং খুব পছন্দ করি। এই কাজে আমি অনেক মজা পাই।

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি ?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হল অন্য লোকের পণ্য অনলাইনে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করা। বুঝলেন না? অপেক্ষা করুন আমি একটি উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি পরিষ্কার করছি।

ধরুন আমার একটি থ্রি পিস ব্যবসা আছে, এখন আমি আপনাকে বলি আপনি যদি আমার থ্রি পিস বিক্রি করেন। কিন্তু আমি আপনাকে তিনটি অংশের প্রতিটির জন্য একটি নির্দিষ্ট শতাংশ দেব। এটি 5% থেকে 50% পর্যন্ত হতে পারে।

যদি একটি থ্রি পিসের দাম 500 টাকা হয় তাহলে আপনি প্রতি থ্রি পিস বিক্রির 10% হিসাবে 50 টাকা পাবেন। এভাবে আপনি বিক্রি করে যতটা আয় করতে পারবেন।

আপনি যদি অনলাইনে আরও বেশি অর্থ উপার্জন করতে চান এবং আপনি যদি একজন পরিশ্রমী এবং ধৈর্যশীল ব্যক্তি হন তবে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে সীমাহীন অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, কিভাবে একটি কোম্পানির পণ্য পেয়ে তা বিক্রি করবেন? এই প্রশ্নের উত্তর হলো- তারা আপনাকে কোনো পণ্য দেবে না। তারা আপনাকে যা দেবে তা হল পণ্যটির একটি নির্দিষ্ট লিঙ্ক।

?অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করুন–নতুনদের জন্য

আমি আপনাকে আমার ব্যবসার আরেকটি উদাহরণ দিই, যদি আপনি আমার থ্রি পিস অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেন। যাইহোক, আমি আপনাকে সরাসরি আপনার হাতে থ্রি পিস দেব না, আমি আমার ওয়েবসাইটে আমার থ্রি পিসের লিংক দিয়ে দেব।

আপনি এই লিঙ্কটি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া বা অনলাইনে শেয়ার করবেন যেখানে এমন লোক রয়েছে যারা থ্রি পিস কিনতে পারে। আর যদি কেউ আপনার শেয়ার করা লিঙ্ক থেকে আমার থ্রি পিস কিনে নেয় তাহলে আপনি আপনার ফিক্সড কমিশন পাবেন। এভাবে যত বেশি মানুষ আপনার লিঙ্ক থেকে পণ্য কিনবে, তত বেশি কমিশন পাবেন। আশা করি বুঝতে পেরেছো.

তারপরও যদি এই এফিলিয়েট মার্কেটিং বুজতে কোন সমস্যা হয় তাহলে আমাদের দেয়া নিচের পোস্ট গুলা থেকে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর সব কিছু ভাল করে বুজে নিন ।

পুতুল হোস্ট অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করুন

ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। LINK- https://www.control.putulhost.com/aff.php?aff=1251  

সহজ আ্যাফিলিয়েট ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করুন-অ্যাকাউন্ট করলেই 200-300 টাকা বোনাস

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করুননতুনদের জন্য

দারাজ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করুন-নতুন নিয়মে(বাংলাদেশী সাইট)

জনপ্রিয় এফিলিয়েট প্লাটর্ফম নাম ২০২২ঃ

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়পিটিসি করে আয়

ঘরে বসে PTC এর মাধ্যমে আয় করতে পারবেন মোবাইল দিয়ে।

PTC কি? PTC একটি ওয়েবসাইট যা বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখার জন্য অর্থ প্রদান করে। PTC-এর সম্পূর্ণ পেইড-টু-ক্লিক PTC সাইটের বিজ্ঞাপনদাতারা বিভিন্ন পণ্যের প্রচার বা ওয়েবসাইটের দর্শক বাড়াতে বিজ্ঞাপন দেয়।

এবং আপনি নিয়মিত কিছু বিজ্ঞাপন দেখে PTC সাইট থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। কাজ শুরু করার আগে আপনাকে নিবন্ধন করতে হবে । যাইহোক, এটি লক্ষ করা উচিত যে বেশিরভাগ PTC সাইটগুলি ভুয়া।

গুগল নিউজে সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন

তাই কাজের আগে নিশ্চিত হতে হবে সেটি প্রকৃত সাইট কি না। অনেক সময় বন্ধুত্বের রেফারেন্স দিয়ে আয় করতে পারেন।

জনপ্রিয় কিছু পিটিসি সাইট ২০২২ঃ

  • NeoBux – নিউবাক্স
  • ClixSense – ক্লিকসেন্স
  • FamilyClix – ফ্যামিলি ক্লিক
  • Scarlet Click – স্কারলেট-ক্লিক
  • GPTPlanet -জিপিটি প্ল্যানেট
  • ojooo – ওজো
  • clixblue – ক্লিকব্লু
  • ayuwage
  • innocurrent
  • paiddataentry

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ওয়েবসাইট বানিয়ে আয়

আপনি হয়ত জানেন যে একটি ভাল ওয়েবসাইটের দাম কত টাকা ছাড়িয়ে যায়। আপনিও এইরকম একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন এবং এটি সক্রিয় করে অনেক বেশি দামে বিক্রি করতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরি করা এখন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার মতোই সহজ। যে কেউ চাইলে এটা করতে পারে।

কিন্তু যে সাইটগুলো খুব সহজে তৈরি করা যায়, সেগুলোর কোনো চাহিদা নেই। তবে, আপনার সাইটে যদি মাঝারি পরিমাণ ট্রাফিক থাকে, তাহলে আপনি একটি ভাল দাম পেতে পারেন। যে সাইটগুলো বেশি দামে বিক্রি করে তা দক্ষ ওয়েব ডিজাইনারদের দ্বারা তৈরি করা হয়।

আপনি চাইলে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে আমাদের এই সাইটে কাজ করে আইডিয়া নিয়েও ওয়েবসাইট বানানোর কাজ করতে পারেন।

তাই আপনি যদি একজন ওয়েব ডিজাইনার হন, অথবা আপনি ওয়েব ডিজাইনিং শিখতে পারেন তাহলে আপনি নিজেই একটি ভাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন, সেখানে যথেষ্ট কন্টেন্ট আপলোড করতে পারেন, সাইটটি সক্রিয় করতে পারেন এবং ভাল দামে বিক্রি করতে পারেন।

আপনি চাইলে ইউটিউব থেকে ফ্রি ভিডিও দেখে বা ভালো কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব ডিজাইন কোর্স করেও ওয়েব ডিজাইনিং শিখতে পারেন।

অনেক ক্ষেত্রে ক্লায়েন্ট থাকলে আপনি নতুন সাইট বিক্রি করতে পারেন। আর এই কাজ একটা ভালো দিক হল আপনি যদি এই কাজে দক্ষ হয়ে উঠতে পারেন তাহলে আপনি বিভিন্ন জায়গা থেকে কাজের সুযোগ পাবেন এবং এই অভিজ্ঞতা আপনার কর্মজীবনে খুবই কাজে আসবে।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ড্রপশিপিং এর মাধ্যমে আয়

ড্রপশিপিং একটি ব্যবসায়িক উদ্যোগ যার মাধ্যমে কেউ সহজেই প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারে। চলুন প্রথমে জেনে নিই ড্রপশিপিং কি। উদাহরণ দিয়ে ব্যাখ্যা করলে খুব সহজে বুঝতে পারবেন।

ধরুন আপনার এলাকার একজন পরিচিত ব্যক্তি একটি পণ্য তৈরি করে বাজারে 500 টাকায় বিক্রি করেন। আপনি দেখতে পাচ্ছেন যে এই পণ্যটি শহরের বড় বাজারে বা যেকোনো ই-কমার্স সাইটে 1500 টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আমাদের দেশে বরাবরই এমনটা হয়ে আসছে। একটি সবজি কৃষকদের কাছ থেকে ৫ টাকা কেজি দরে কিনে বড় বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে।

তাই এক্ষেত্রে আপনি নিজেই একটি বড় ই-কমার্স সাইটে প্রোফাইল খুলে পণ্যটি বিক্রি করতে পারেন। আপনি আপনার এলাকার কোনো নির্মাতার কাছ থেকে 500 টাকায় পণ্যটি কিনতে পারেন এবং আপনার প্রোফাইলে 1400 টাকায় বিক্রি করতে পারেন।

একটি পণ্যে আপনি 900 টাকা আয় করতে পারেন। অথবা আপনি যদি 1200 টাকায় বিক্রি করেন, তবুও আপনি 800 টাকা লাভ। এটি মূলত ড্রপশিপিং। আপনার এলাকায় যদি এমন কোন সুযোগ থাকে, তাহলে অবশ্যই তা কাজে লাগান।

এশারাও আপনি আমাদের ওয়েবসাইটের পোস্ট দেখতে পারেন ড্রপশিপিং আসলে কি?

ড্রপশিপিং কি? ড্রপশিপিং বিজনেস থেকে আয় করে কিভাবে?

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়এনড্রোয়েড এপস থেকে আয়

আপনি হয়তো আপনার বন্ধু বা প্রতিবেশীদের কাছ থেকে শুনেছেন বা অন্য কোন মাধ্যমে Android Apps থেকে আয় হতে পারে। হ্যাঁ ভাই আপনি ঠিক শুনেছেন। গুগল প্লে স্টোরে অনেক অ্যাপ আছে যেগুলো ডাউনলোড করে ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন।

এনড্রোয়েড এপস থেকে আয়
এনড্রোয়েড এপস থেকে আয়

কিন্তু আপনাকে শুধু ডাউনলোড করতে হবে না। অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর অনেক কিছু করতে হয়। যেমন, অ্যাপ ডাউনলোড করা, অ্যাপ রেফার করা, ভিডিও দেখা ইত্যাদি। এটি করার জন্য আপনি অর্থ পান।

জনপ্রিয় অনলাইন ইনকাম এপস ২০২২ঃ

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়অনলাইনে পড়িয়ে আয়

অনেকেই আমাদের কাছে এসে দেখেন ঘরে ঘরে গিয়ে বা কোচিং সেন্টার খুলে সেখানে পড়াচ্ছেন। অনেকেই এভাবে পড়াশোনা করে মাসে পঞ্চাশ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করেন। কিন্তু এভাবে বাসায় গিয়ে পড়াতে গিয়ে অনেক সময় ও অর্থের অপচয় হয়।

অন্যদিকে কোচিং সেন্টারের জন্য জায়গা পাওয়াও কঠিন কাজ। এক্ষেত্রে বাংলাদেশে বর্তমানে যে বিষয়টি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে তা হলো অনলাইন শিক্ষকের ধারণা।

আপনি চাইলে ঘরে বসে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের পড়ালে অনেক টাকা আয় করতে পারেন। আপনি জেনে অবাক হবেন যে আজকের বিশ্বে 50 শতাংশ শিক্ষক অনলাইনে পাঠদান করছেন।ভারতেও এটি খুবই জনপ্রিয়। বর্তমানে আমাদের দেশেও এমন অনেক প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেখানে অনলাইনে শিক্ষাদান করা হয়। টেন মিনিট স্কুল তার মধ্যে একটি।

আপনি তাদের কাছ থেকেও অনেক ধারণা পেতে পারেন। প্রথমে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা থাকতে পারে, ছাত্রদের খুঁজতে তাড়াহুড়ো করতে হবে, কিন্তু পরে এখান থেকে অনেক সুবিধা পেতে পারেন।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ছবি বিক্রি করে আয়

আমাদের বর্তমান প্রজন্মের স্মার্টফোন নেই এমন লোকের সংখ্যা গণনা করুন। অনেকেরই বিভিন্ন ধরনের ক্যামেরাও রয়েছে। আপনি চাইলে এই মোবাইলের মাধ্যমে সহজেই অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।সেক্ষেত্রে আপনাকে শুধু বিভিন্ন মজার জিনিসের ছবি তুলতে হবে। আপনি এটি আপনার মোবাইল ফোন বা ক্যামেরা দিয়ে নিতে পারেন।

তারপর আপনি চাইলে একটু এডিট করতে পারেন বা বিভিন্ন ওয়েবসাইটে “Raw” ফাইল আপলোড করতে পারেন এবং সেখান থেকে আপনি প্রতিটি ছবির জন্য ৫০ থেকে ৫শ ডলার আয় করতে পারেন।একটু ফটো এডিটিং জানা থাকলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর ইত্যাদি অনেক ক্ষেত্রেই ছবির আকর্ষণ বাড়াতে পারে।

ছবি বিক্রি করে আয়
ছবি বিক্রি করে আয়

অনলাইনে ছবি বিক্রির জন্য আপনি অনেক ওয়েবসাইট পাবেন। এর মধ্যে Shutterstock, 500px, Envato ইত্যাদি খুবই জনপ্রিয় এবং ফটোগ্রাফারদের সবচেয়ে বেশি অর্থ প্রদান করে।

ভারতের সন্দীপ মহেশ্বরীর নাম অনেকেই শুনে থাকবেন। এখন তিনি প্রতিটি প্রযুক্তি সেমিনার বা স্টেজ শোতে প্রধান অতিথি। ফটোগ্রাফিকে পেশা হিসেবে নেওয়ার অন্যতম উদাহরণ তিনি।এই ক্ষেত্রে তিনি অত্যন্ত সফল একজন মানুষ। তার নিজের ছবি বিক্রি করার একটি ওয়েবসাইটও রয়েছে যেখানে দেশ-বিদেশের 1000 জনেরও বেশি ফটোগ্রাফার কাজ করেন।

আপনি এই ওয়েবসাইটগুলিতে যে ছবিগুলি বিক্রি করবেন তা সেই ওয়েবসাইট থেকে বিভিন্ন ব্যক্তিরা কিনে নেবে। এই ছবিগুলো গ্রাফিক ডিজাইনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বিভিন্ন বই, ব্যানার, ফেস্টুনের প্রচ্ছদে এসব ছবি বিক্রি করা হয়।

অনলাইনে ছবি বিক্রি সাইট ২০২২ঃ

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়ফেসবুক থেকে আয়

আমরা সবাই ফেসবুক চালাই, তাই না? ফেসবুকে বন্ধুদের সাথে চ্যাট করে, ভিডিও দেখে আর অকারণে নিউজফিট স্ক্রল করে কত সময় নষ্ট করি। কিন্তু আমরা যদি একটু সচেতন হই আর একটু কষ্ট করি তাহলে কিন্তু এই ফেসবুক থেকে ভালো পরিমাণ টাকা আয় করা যায়। বিশ্বাস হচ্ছে না? আসুন আলোচনা করি কিভাবে ঘরে বসে ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করা যায়।

আপনি ফেসবুকে বা লাইভে ভিডিও আপলোড করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আপনি Facebook এর AdBreaks বৈশিষ্ট্যের মাধ্যমে আপনার ভিডিও থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

ফেসবুক আপনার আপলোড করা ভিডিওতে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন রাখবে এবং কেউ সেই বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলে সেই বিজ্ঞাপন থেকে আয়ের কিছু অংশ আপনি পাবেন। তবে অ্যাডব্রেক সুবিধা পেতে হলে আপনাকে কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

ফেসবুক থেকে আয়
ফেসবুক থেকে আয়
  1. ১ হাজার অনুসারী থাকতে হবে।
  2. গত 60 দিনে, 3 মিনিটের বেশি ভিডিওতে 160,000 মিনিটের ভিউ এবং 30,000 মিনিটের ভিউ থাকতে হবে।
  3. গত 60 দিনে, আপনার পোস্ট 15,000 জনের কাছে পৌঁছাবে

আপনি যদি লাইভ অর্থ উপার্জন করতে চান তবে শর্ত হল:

  1. ভিডিওটি অবশ্যই চার মিনিটের হতে হবে।
  2. 300 জন দেখতে।

এই শর্তগুলো পূরণ হয়ে গেলে, আপনি AdBreaks সুবিধার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আমরা ইতিমধ্যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে জানি। আপনি আপনার ফেসবুক আইডির মাধ্যমে অন্যের পণ্য প্রচার করবেন তা ব্যাখ্যা করার নতুন কিছু নেই। কেউ আপনার প্রচারের মাধ্যমে একটি পণ্য ক্রয় করলে, আপনি সেই পণ্যের লভ্যাংশ থেকে একটি নির্দিষ্ট কমিশন পাবেন।

ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয়ের উপায়?

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়অনলাইন সার্ভে আয়

অনেক কোম্পানি আছে যারা গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া পেতে বিভিন্ন ধরনের জরিপ পরিচালনা করে। অনেক দেশে সরকারিভাবে বিভিন্ন জরিপ করা হয়। দেশের সার্বিক অবস্থা নিয়ে দেশের মানুষ কতটা সন্তুষ্ট তা জানতে সরকার এসব জরিপ পরিচালনা করে। তবে বেশির ভাগ বড় কোম্পানি অনলাইনে জরিপের ব্যবস্থা করে।

এই সার্ভে সাধারণত অর্থ প্রদান করা হয়. আপনি চাইলে এই সার্ভে করে প্রতি মাসে ভালো পরিমাণ আয় করতে পারেন। বড় কোম্পানিগুলি সমীক্ষা প্রতি 100 ডলার পর্যন্ত খরচ করে। এই সমীক্ষাগুলি একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।

এর জন্য আপনাকে প্রথমে ওই নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। আপনার সমস্ত তথ্য সহ অ্যাকাউন্ট আপডেট করার পরে, আপনি কাজ শুরু করতে প্রস্তুত। যাইহোক, আপনি প্রতিটি জরিপের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হবেন না। আপনি শুধুমাত্র আপনার অ্যাকাউন্টের তথ্যের সাথে মেলে এমন সমীক্ষা করতে পারেন।

অনলাইনে ইনকাম করার সেরা কার্যকরী উপায়অনলাইন রিসেলিং করে আয়

অনলাইনে পণ্য বিক্রি আজকাল বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশে বেশ কয়েকটি বড় অনলাইন ব্যবসা রয়েছে। আপনি চাইলে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

অনলাইন রিসেলিং করে আয়
অনলাইন রিসেলিং করে আয়

তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে শুরু করতে হবে বড় পর্যায়ে। এবং আপনাকে এতে আপনার সমস্ত সময় ব্যয় করতে হবে এবং একই সাথে আরও অনেক বিষয়ের যত্ন নিতে হবে যা ছাত্রজীবনে করা একটি কঠিন বিষয় হয়ে ওঠে।

সেক্ষেত্রে আপনি অনলাইন রিসেলিং করে ভালো আয় করতে পারেন। অনলাইন রিসেলিং মূলত অনলাইনে পণ্য বিক্রির কাজ কিন্তু এক্ষেত্রে আপনাকে বেশি কিছু করতে হবে না।

আপনাকে যা করতে হবে তা হল একটি রিসেলিং কোম্পানিতে আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং এখান থেকে আপনি পণ্যের ছবি এবং বিবরণ সহ একটি পৃষ্ঠা খুলতে পারেন এবং নিজে বিক্রি করতে পারেন।

আপনি রিসেলার কোম্পানীর কাছ থেকে অনেক কম দামে পণ্য পাবেন এবং একটু বেশি দামে বিক্রি করে লাভবান হবেন। বাংলাদেশে অনেক রিসেলিং কোম্পানি আছে। ShopUp তার মধ্যে একটি।

আপনি পোস্ট করতে প্রয়োজনীয় অনুমতি নেই। রিসেলার কোম্পানি পণ্য সংগ্রহ থেকে শুরু করে যাবতীয় কাজ করবে।

অনলাইন ইনকাম বিকাশে পেমেন্ট

একটি বিষয় সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকতে হবে। অনলাইন আয়ের মাধ্যমে বিকাশে অর্থ আনা নিয়ে আপনাদের অনেকের মনেই প্রশ্ন আছে। বিকাশে সরাসরি অর্থ আনার কোন উপায় আছে কি?

সহজ কথায়, এক কথায় উত্তর দিতে চাইলে উত্তর হবে না। আপনি অনলাইনে যে অর্থ উপার্জন করেন তা সরাসরি আপনার বিকাশে আসবে না।

অনলাইন ইনকাম ও বিকাশে পেমেন্ট
অনলাইন ইনকাম ও বিকাশে পেমেন্ট

কিন্তু এখানে কিছু জিনিস আছে. কোন সাইট থেকে আপনি ইনকাম করছেন, সাইটটি কোন বাংলাদেশী অ্যাডমিন দ্বারা চালিত কিনা বা তারা বিকাশ পেমেন্ট সমর্থন করে কিনা ইত্যাদি বিষয়গুলোও এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অনেক অনলাইন আয়ের সাইট রয়েছে যেখানে তাদের বিকাশ থেকে সরাসরি নগদ তোলার সুযোগ রয়েছে। আপনি যদি এমন একটি ওয়েবসাইটে কাজ করেন এবং সাইটটি বাস্তব হয় তবে অবশ্যই আপনি বিকাশের জন্য অর্থ প্রদান করতে পারেন

এছাড়াও আপনি যদি কোনো বাহিরের দেশের কোনো ওয়েবসাইটে কাজ করে থাকেন যারা মূলত বিকাশে পেমেন্ট করে না বরং অন্য কোনো পেমেন্ট গেটওয়েতে (Payment Gateway) পেমেন্ট করে তাকে সেক্ষেত্রে আপনি কোনো থার্ড পার্টি ব্যবহার করে পেমেন্টটি রিসিভ (Receive) করতে পারেন।

তবে এক্ষেত্রে যার মাধ্যমে আপনি পেমেন্টটি আনতে চাচ্ছেন, তার বিশ্বস্ততা ও স্বচ্ছতার বিষয়টি অবশ্যই খেয়াল রাখা দরকার।

অনলাইনে ইনকামের নামে প্রতারণা

আজকাল অনেক সাইট দেখছি যারা ইনভেস্ট করে আয় পরিচালনা করে। এর মধ্যে কয়েকটি প্রতারণামূলক সাইট যেমন, গোল্ড রাশ, গোল্ড লাইন সহ এই স্টাইলের বিভিন্ন সাইট।

এই সাইটে বিনিয়োগ করবেন না. বিভিন্ন প্যাকেজে আপনাকে ন্যূনতম 22 ডলার থেকে 5 হাজার ডলার বিনিয়োগ করতে হবে। ন্যূনতম আপনাকে ফেসবুক টিকটকের ভিডিও দেখিয়ে প্রতিদিন আপনাকে অর্থ প্রদান করবে! .

অনলাইনে ইনকামের নামে প্রতারণা
অনলাইনে ইনকামের নামে প্রতারণা

কিছুক্ষণ এভাবে করার পর দেখবেন সাইটগুলো আর পেমেন্ট করছে না। মানে, তারা বিদায় নিচ্ছে। ইদানিং অনেকেই বলে ভাই, লাইক থেকে কি ইনকাম করা যায়? আমি বলি লাইক থেকে ইনকাম গোল্ড লাইন থেকে ইনকাম গোল্ড রাশ থেকে ইনকাম এগুলো সব ভুয়া ভাই।

অলরেডি গোন লাইক করতে। তাই ভাই, পরিশ্রম ছাড়া কিছু পেতে না চাইলে প্রতারণার পরামর্শ দিচ্ছি।কঠোর পরিশ্রম করুন এবং আপনার দক্ষতা বিকাশ করুন, তাহলে আপনি দেখতে পাবেন যে অর্থ আপনার পিছনে ছুটছে। তাহলে আর টাকার পেছনে ছুটতে হবে না।

অনলাইনে ইনকাম করার জন্য প্রথম কোন কাজটি শিখবো?

অনেকেই প্রশ্ন করেন, ভাই আমি ফ্রিল্যান্সিং এ খুবই নতুন। অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য আমি প্রথমে কী করতে পারি? অনেকে বলেন আমার আর্থিক অবস্থা ভালো না পারিবারিক সমস্যা!

আমি একজন ছাত্র, আমি পড়াশোনার পাশাপাশি অল্প হলেও অনলাইনে টাকা আয় করতে চাই। আমাকে একটু পরামর্শ দিন।

সেই ভাইদের এক কথায়, আপনি আগে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখুন। বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা আকাশচুম্বী।

বিভিন্ন কোম্পানিতে যেমন ডিজিটাল মার্কেটারের কর্মক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে, তেমনি ডিজিটাল মার্কেটিং-এর ছোট চাকরির জন্য ক্লায়েন্টরা প্রতিদিন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে চাকরি পোস্ট করছে।

এই দুটি ক্ষেত্র ছাড়াও, আপনার ব্যবসার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং এর ইনস এবং আউটস শিখতে হবে। স্বল্প বাজেটে ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাহায্যে গ্রাহকদের ব্যস্ততা থেকে শুরু করে পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম খুব ভালোভাবে সম্পন্ন করা হচ্ছে।

এখন অনেকেই হয়তো ভাবছেন ডিজিটাল মার্কেটিং আবার কি? ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে একটি পণ্য বা ব্র্যান্ডের প্রচার বোঝায়। ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাথে ইন্টারনেট ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর অংশ

  • সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO)
  • সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং ( SEM )
  • ইমেইল মার্কেটিং
  • কনটেন্ট রাইটিং
  • ফেসবুক মার্কেটিং
  • ইউটিউব মার্কেটিং
  • টুইটার মার্কেটিং
  • সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
  • ভাইরাল মার্কেটিং
  • এফিলিয়েট মার্কেটিং
  • গুগল ডিসপ্ল্যে নেটওয়ার্ক
  • মোবাইল মার্কেটিং

?স্মার্ট মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ঘরে বসেই ইনকাম করুন।

?অনলাইনে টাকা আয় করার অ্যাপ

?ড্রপশিপিং বিজনেস থেকে আয় করে কিভাবে?

?ফেসবুক প্রোফাইল থেকে টাকা আয়ের উপায়? 

?ইনস্টাগ্রাম এর মাধ্যমে প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা উপার্জনের সুযোগ

?ফ্রিল্যান্সার ডটকম থেকে আয়ের উপায়

?ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন

সকল বিষয়  যানতে  আমাদের এই ওয়েব সাইটের ইমেইল সাবঃ করে সঙ্গে থাকন ।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join ৪৩২ other subscribers

 

সকল বিষয়  যানতে  আমাদের সঙ্গে থাকুন

SS IT BARI- ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে প্রযুক্তি বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুনঃ এখানে ক্লিক করুন

SS IT BARI- ফেসবুক পেইজ লাইক করে সাথে থাকুনঃ এই পেজ ভিজিট করুন
SS IT BARI- ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে এএখানে ক্লিক করুন এবং দারুণ সব ভিডিও দেখুন।
গুগল নিউজে SS IT BARI সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন।
SS IT BARI-সাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে যোগাযোগ করুন এই লিংকে

pp

SS IT BARI-ভালোবাসার টেক ব্লগ টিম

Leave a Reply

Your email address will not be published.